ঢাকাবুধবার , ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  1. সর্বশেষ
  2. আন্তর্জাতিক

তুরস্ক ও সিরিয়ায় ভূমিকম্প : ধনী-দরিদ্র এক কাতারে

প্রতিবেদক
নিউজ এডিটর
১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ৩:৪৮ অপরাহ্ণ

Link Copied!

————-

পাঁচ দিন আগেও চাকচিক্যে ভরা সুরম্য এক বহুতল ভবনের মালিক ছিলেন ষাটোর্ধ্ব লায়লা। গত সোমবার ভয়াবহ ভূমিকম্প থেকে কোনোমতে প্রাণে বেঁচে ফিরতে পারলেও এখন তিনি নিঃস্ব। তুরস্কের দক্ষিণাঞ্চলীয় হাতায়া প্রদেশের এই নারী জানান, চারদিকে হঠাৎ শুনতে পান কান্নার রোল। কিছু বুঝে ওঠার আগেই দেখেন, তিনি প্রায় ঘরের মেঝে থেকে অন্তত সাড়ে ৫ ফুট উঁচুতে উঠছেন আর নামছেন। পুরো ভবন বারবার ঝাঁকুনি দিয়ে ঘরের সব ভেঙে পড়ছে তাঁর ওপর। এই ভূমিকম্প আর কখনোই থামবে না বলে মনে হচ্ছিল লায়লার। ঘুটঘুটে অন্ধকারের মধ্যে ধ্বংসস্তূপ থেকে জীবন নিয়ে ফিরতে তাঁর লেগেছিল অন্তত ৪৫ মিনিট। এই নারীর বাড়ি পুরোপুরি ধসে না পড়লেও সেটিতে আর বসবাসের অবস্থা নেই। তাই থাকছেন অন্য জায়গায় মেয়ের বাড়িতে। এখন তাঁর আর কিছুই নেই। খবর বিবিসির।

ধনী কিংবা গরিব- ওই এলাকায় বিধ্বস্ত হওয়া ভবনের বেঁচে থাকা বাসিন্দারা এখনও দিনযাপন করছেন রাস্তায়। তীব্র শীতে চরম কষ্টে আছেন তাঁরা। কাঠ পুড়িয়ে তীব্র শীত থেকে বাঁচার চেষ্টা করছেন নিঃস্ব এসব মানুষ।

এদিকে, ধসে পড়া ভবন ও ধ্বংসস্তূপ থেকে বাসিন্দাদের মূল্যবান জিনিস লুটের অভিযোগ উঠেছে। লায়লা তাঁর ক্ষতিগ্রস্ত অ্যাপার্টমেন্ট থেকেও লুটপাটের আশঙ্কা করছেন।

হাতায়া প্রদেশের রাজধানী আন্তাকার অবস্থা আরও করুণ। ভূমিকম্পের পাঁচ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনও এখানে নেই বিদ্যুৎ, পানি কিংবা খাবারের কোনো ব্যবস্থা। অনেকেই ঠাঁই নিয়েছেন সড়কের পাশে। কেউবা গাড়িতেই থাকছেন। যাঁদের বাড়ি ধসে পড়েনি, তাঁরাও ভবনে ফেরার সাহস করছেন না। আবার তাঁদের ভবনে ফেরার অনুমতিও দেওয়া হচ্ছে না।

পুরোপুরি ভেঙে পড়েনি এমন এক ভবনের মালিক আন্তাকার বাসিন্দা ওষুধ আনতে ভবনে ভেতরে যাওয়ার অনুমতি চান। এ সময় উদ্ধারকর্মীরা তাঁকে বলেন, ওই ওষুধ না খেলে যদি মৃত্যুর আশঙ্কা থাকে, তবেই যেন ভেতরে যান, অন্যথায় নয়। পরে ওই ব্যক্তি ধ্বংসস্তূপ সরিয়ে ভেতরে যাওয়ার চেষ্টা করেন ওষুধসহ জরুরি জিনিস আনতে।

এই প্রদেশেরই ইস্কেন্দারুন এলাকায় ফুরিয়ে আসছে দোকানের মালপত্র। অধিকাংশ দোকানেরই তাক খালি হয়ে গেছে। পণ্য সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় মালপত্র পাচ্ছেন না দোকানিরা। তবে, যতটুকুই আছে, তা বিক্রির ক্ষেত্রে উদ্ধারকর্মীদের প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে।
ভবন নির্মাণের নির্দেশনা বাস্তবায়ন নিয়ে ক্ষোভ বাড়ছে তুরস্কে। অনেকেই মনে করেন, দুর্বলভাবে ভবন নির্মাণ করায় ভূমিকম্পে এত ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তুরস্কের উত্তর-পশ্চিমের ইজমিট শহর ও আশপাশে ১৯৯৯ সালের ভয়াবহ ভূমিকম্পে ১৭ হাজার মানুষ মারা যান। এর পর ২০১৮ সালে দেশটিতে নির্মাণবিধি কঠোর করা হয়।

বিশ্নেষকরা বলছেন, কঠোর আইন করলেও নির্দিষ্ট ফি দিয়ে মানহীন অনেক ভবনকে পরে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছিল। ওই সিদ্ধান্তই এই ভূমিকম্পে বড় বিপর্যয় ডেকে এনেছে। ভূমিকম্প আঘাত হানা দক্ষিণ তুরস্কের ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চলজুড়ে ৭৫ হাজার ভবনকে ফি দেওয়ার মাধ্যমে সাধারণ ক্ষমা করা হয়েছিল।

এদিকে, সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকায় সহায়তা পৌঁছানো কঠিন হয়ে উঠেছে। তবে বৃহস্পতিবার সহায়তা নিয়ে ছয়টি ট্রাক ওই এলাকায় পৌঁছেছে। এর মাধ্যমে শত শত মানুষ সহায়তা পাবেন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।

159 Views

আরও পড়ুন

রাঙামাটির পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে দু’চালক সংগঠনের সংঘর্ষে রণক্ষেত্র: আহত ২৬

মহাত্মা অশ্বিনী কুমার ছাত্রাবাসের শিক্ষার্থীদের প্রভাত ফেরি ও ফুলেল শ্রদ্ধার্ঘ্য অপর্ণ।

বোয়ালখালীতে জাতীয় শিক্ষা পদকের পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন

দোয়ারাবাজারে মদের চালানসহ কারবারি আটক

বইমেলায় মীরাক্কেলের রাশেদের বই ‘ফিলিং চিলিং’

ঠাকুরগাঁওয়ে সড়কে আঁকা আলপনায় একুশের চেতনা

বোয়ালখালীতে মেয়র গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন কাল

ঢাকা-কক্সবাজার পথে পাঁচ দিনে ৫ বিশেষ ট্রেন।।

কক্সবাজার সৈকতের সুগন্ধা বিচের নাম পাল্টে হলো ‘বঙ্গবন্ধু বিচ’

সাপাহার সরফতুল্লাহ্ মাদ্রাসা কেন্দ্রে ভুয়া ৫৭ জন দাখিল পরীক্ষার্থী আটক

বইমেলায় পাওয়া যাচ্ছে মহিমা নুশরাতের বই “আদুরে ময়নাপাখি”

মেঘনা পেট্রোলিয়াম শ্রমিক ইউনিয়ন সিবিএ’র বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল