,

কাপাসিয়ায় দুর্ঘটনা ও সড়কদুর্ভোগের নাম ব্যাটারি চালিত অটো রিকশা- ইজিবাইক

কাপাসিয়া ( গাজীপুর) থেকে শামসুল হুদা লিটনঃ

গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলা সদর সহ ১১ ইউনিয়নের রাস্তা গুলোতে বর্তমানে যানজট ও দুর্ঘটনার বড় কারণ হয়ে দাড়িয়েছে অটো রিকশা ও ইজিবাইক। সকাল থেকে অনেক রাত পর্যন্ত বিভিন্ন রাস্তায় এসব যানবাহন চলাচল করতে দেখা যায়। প্রায় প্রতিদিন ই ঘটছে নানা ধরনের দুর্ঘটনা। যানজটে ভোগান্তি বাড়ছে এলাকার সাধারণ মানুষের । কাপাসিয়া সদরের থানার মোড়, সাফাইশ্রী মোড়, উপজেলা পরিষদের সামনের সড়ক, পুরাতন বাসস্ট্যান্ড, ব্যাস্ততম পাবুর, বরুন রাস্তা, কাপাসিয়া বাজারের কাঁচাবাজার মোড়গুলো দিন রাত যেন ব্যাটারি চালিত অটো রিকশা ও ইজিবাইকের দখলে থাকে । অসহনীয় যানজট ছড়িয়ে পড়ে মূল সড়ক থেকে অলিগলিতে। ফকির মজনুশাহ সেতুর মোড় থেকে উপজেলা পরিষদ পর্যন্ত যেতে আগের চেয়ে এখন সময় লাগে অনেক বেশি। ব্যাটারি চালিত অটো রিকশা পল্লী বিদ্যুতের হিসাব মতে প্রতিদিন ৩ থেকে ৫ ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার হচ্ছে। এ হিসাবে প্রায় ১ হাজার হাজার রিকশায় ব্যবহার হচ্ছে ৩ হাজার থেকে পাচঁ হাজার ইউনিট বিদ্যুৎ। অধিকাংশ রিক্সার গ্যারেজ মালিকই অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে এসব রিক্সাগুলো ব্যাটারিতে চার্জ দিয়ে থাকেন। ব্যাটারি চালিত অটো রিকশা কে কেন্দ্র করে কাপাসিয়ার অনেক এলাকায় গড়ে উঠেছে ব্যাটারি চালিত রিকশা তৈরির গ্যারেজ ও অবৈধ ব্যাটারির তৈরির কারখানা আর এই সব কারখানায় দেখা যায় অপ্রাপ্তবয়স্ক শিশু দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে। একাধিক যাত্রী অভিযোগ করেন, যাতায়াতে সাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব হিসেবে ইজিবাইক একসময় পরিচিতি পেলেও এখন তা এলাকাবাসীর গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসবের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করতে না পারার কারণে প্রতিনিয়ত সড়কে যানজট বাড়ছে। এসব নিয়ন্ত্রণহীন যানবাহনের বিরুদ্ধে দ্রুত পদক্ষেপ প্রয়োজন বলে মনে করেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসী। ব্যস্ততম সড়কগুলো থেকে পর্যায়ক্রমে ইজিবাইকমুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়ার দাবী করেছেন অনেকেই। । এলাকার সাধারণ মানুষের বক্তব্য – এসব অটোরিকশার ড্রাইভার বেশির ভাগ নাবালক ও অদক্ষ। বেশীরভাগ ড্রাইভারদের বাড়ি ময়মনসিংহ, গফরগাঁও ও পাগলা, জামালপুর জেলায়। এসব ড্রাইভাররা এক সময় ধানের মৌসুমে কাপাসিয়ার বিভিন্ন গ্রামের কৃষকের বাড়তে ক্ষেত খামারে কাজ করতো। ধানের মৌসুম শেষে ওরা পেশা পরিবর্তন করে হয়ে যায় অটোরিকশা ড্রাইভার। এলাকার সচেতন মহল এ ব্যাপারে প্রশাসনের কাছে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার জোড়ালো দাবী জানিয়েছেন।

Comments are closed.