মানবী তুমি সমালোচিত হও কিন্তু নিন্দিত হইও না

FB_IMG_1540200165865.jpg

আমি খুব সহজে এরকম রুঢ় হই না। কিন্তু আজ না হয়ে পারলাম না। নারীদের মনমানসিকতা দেখে আমি আশাবাদী আইয়ামে জাহিলিয়াত যুগ দেখার সখ খুব শীঘ্রই পুরণ হতে যাচ্ছে। কোন এক নারী নিজেকে খোলামেলা করে প্রকাশ করার বিরোধিতা করে অন্যসব আধুনিকা নারীদের দ্বারা হেনস্থা হয়েছেন।
আধুনিকারা বলেছেন,
-“পুরুষ বুক খুলে চললে তাকেতো কেউ সেক্সি, হট বলে না, নারীকে কেন বলবে?”
বাকিগুলো আর বলতে পারছিনা। বিবেকে বাধছে। তুমি নারী তুমি নিজেই জানোনা তোমার কি সৌন্দর্য। তুমি জানোনা তোমাকে নিয়ে কত কাব্য রচনা হয়ে এসেছে দিনের পর দিন। তুমি জানোনা পুরুষের খোলা বুক আর তোমার বুকের পার্থক্য কি। তুমি জানোনা তোমার সম্মান বাড়ানোর জন্য, তোমার সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য, তোমাকে পোশাক পড়ানোর জন্য কত মানুষ আজ ইতিহাস হয়ে আছে, কত কথা আজ স্বর্ণাক্ষরে লিখা আছে। তুমি জানোনা, তোমার আবৃত শরীরে কতটা মোহ লুকিয়ে আছে। তুমি জানোনা তোমার এগিয়ে যাবার ক্ষমতা টুকু। তুমি জানোনা তোমার তুমিকে। তুমি “নারী” লিঙ্গটার মর্মই বুঝোনা।
তুমি আজ চলবে খোলা বুকে, তোমার প্রিয়তম তোমায় ডাকবে “ওগো প্রিয়তম”, প্রিয়তমা বললে যদি তোমার নারীত্বের অপমান হয় এই ভেবে। গম্ভীর ভাবে বলবে না “বেগম”। তুমি চাইছোনা বোন থাকতে। তুমি চাইছো না বউ থাকতে, তুমি চাইছো না মা থাকতে। তুমি কেন চাইছোনা বলতে পারো? কারণ তুমি পুরুষ অনুকরণে অন্ধ হয়ে গেছো। তুমি বলছো, পুরুষকেতো আমরা সেক্সি বলিনা? পুরুষকেতো আমরা রেপ করিনা। আচ্ছা, পুরুষকে নিয়ে কেন কেউ কবিতা লিখেনা? তবে কি নারী কামনা বাসনা হীন? প্রেমহীন? তুমি কি কোন পুরুষকে অনুভব করনা? বরং এটাই সত্য যে পুরুষ এতটাই খোলামেলা যাকে নিয়ে কল্পনায় ভাবনার কিছু নেই। সবি দৃশ্যমান। আমরা দৃশ্যমান জিনিসকে এড়িয়ে স্বপ্নের পেছনে ছুটি। তাই আমরা নারীরা পুরুষকে রচনা করিনা।
নারী তুমি পুরুষ হতে চেয়ে বড়ই অপমান করছো নারীত্বকে। তোমারা উলঙ্গ হইয়ো না। পুরুষের খোলা লোমশ বুকে যে পুরুষত্ব সৌন্দর্য তা তোমার ওড়নার আড়াল করা দৃশ্যপটকে ছুয়ে যাবেনা। তুমি এগিয়ে যাও তোমার নারীত্বকে নিয়ে। তুমি আত্মনির্ভর হও তোমার নারীত্বকে ঘিরে। তুমি আকাশ ছুঁয়ে আসো তোমার উদ্যমী মন নিয়ে, তুমি সমুদ্র সাতরাও তোমার তেজোদৃপ্ততা নিয়ে। তুমি তোমার বুদ্ধির বিকাশ ঘটাও, তোমার শ্রমের মাত্রা বাড়াও, তুমি অন্যায়ের প্রতিবাদ করো, তুমি হাটে-মাঠে-ঘাটে ডানা মেলে উড়ে বেড়াও। তুমি পুরুষকে তোমার অধীনস্ত করো, তুমি তোমার পুরুষকে উপলব্ধি করাও “আমি নারী, কিন্তু আমি আত্মনির্ভরশীল নারী, আমি তোমার প্রেয়সী যে তোমায় কারো দারস্থ হতে দেবেনা” তুমি এগিয়ে যাও নারী…তুমি পরিবারের হাল ধরে এগিয়ে যাও, তুমি মা হয়ে এগিয়ে যাও, তুমি বোন হয়ে এগিয়ে যাও। তুমি তোমার সমস্ত মেধা দিয়ে এগিয়ে যাও। কিন্তু তুমি অনুসারী হইওনা। তুমি মেধার বিকাশ করতে গিয়ে শরীরের বিকাশ ঘটিও না। তুমি কবির কবিতা থেকে নিজেকে হারিও না। তুমি ইতিহাস থেকে নিজেকে মুছে নিও না। তোমার নিজস্বতা দিয়ে তুমি এগিয়ে যাও। তোমার সৌন্দর্য দিয়ে তুমি এগিয়ে যাও। তুমি সমালোচিত হও কিন্তু নিন্দিত হইও না। একেবারেই নিন্দিত হইও না….
লেখক : আতিক সুজন
সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার
পরিচালক চট্টলা ইঞ্জিনিয়ারিং ক্লাব

scroll to top