ঢাকাশুক্রবার , ১২ অগাস্ট ২০২২
  1. সর্বশেষ
  2. বিনোদন

ফাঁসি হলেও আমার নাম পরিবর্তন করব না : হিরো আলম

প্রতিবেদক
নিউজ এডিটর
৩০ জুলাই ২০২২, ৭:০৫ অপরাহ্ণ

Link Copied!

নিউজ ডেস্ক ঃ

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচিত-সমালোচিত আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমকে সম্প্রতি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কার্যালয়ে তুলে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

তাঁর সঙ্গে অশোভন আচরণ এমনকি চুলের মুঠো টেনে নাম পরিবর্তন করতেও বলা হয়েছে। আজ শনিবার দুপুরে এনটিভি অনলাইনের কাছে এসব অভিযোগ করেছেন হিরো আলম নিজেই।

আজ দুপুরে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে বিস্তারিত কথা বলেন হিরো আলম। কথা প্রসঙ্গে তাঁর সঙ্গে ঘটা অনেক ঘটনা জানিয়েছেন তিনি। একইসঙ্গে ভবিষ্যতে তাঁর সঙ্গে আরও কিছু ঘটার আশঙ্কার কথাও প্রকাশ করেন হিরো আলম।

গত ২৭ জুলাই হিরো আলমের সঙ্গে কথা বলে গোয়েন্দা পুলিশ। হিরো আলমের দাবি, যখন তাঁকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়, তখন ডিবি থেকে পাঁচটি অভিযোগের কথা জানানো হয়েছিল। অভিযোগুলো হলো, বিকৃত করে রবীন্দ্রসংগীত গাওয়া, পুলিশ কনস্টেবলের পোশাক পরে ডিআইজি-এসপির অভিনয় করা ও অন্যকে ব্যঙ্গ করে গান গাওয়া। এরপর ২৭ জুলাই দুপুরে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান হারুন অর রশীদ সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন, ‘হিরো আলমের বিরুদ্ধে ডিসি সাইবারে অনেকগুলো অভিযোগ জমা হয়েছিল। সেগুলোর বিষয়ে আজ বুধবার আমরা তাঁকে সকালে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি।’

এ প্রসঙ্গে হিরো আলম বললেন, ‘ডিবি আমাকে ডাকলেই পারত। আমি চলে যেতাম। আমাকে তুলে নেওয়া লাগত না। আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করা হয়েছে। তুই-তুকারি করা হয়েছে। আমি তো চোর-ডাকাত বা সন্ত্রাসী না।’

ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে হিরো আলমের চুলের মুঠ ধরে পুলিশ তাঁর নাম পরিবর্তন করতে বলেছে অভিযোগ করে হিরো আলম বলেন, ‘চুলের মুঠ ধরে আমারে কচ্চে, আয়নায় তোর চেহারা কোনোদিন দেখছিলি? হিরো মানে কি, বুঝিস? বল, হিরো মানে কি? সিনেমা দেখিস না? গান দেখিস না? আজকে থেকে তোর যেসব জায়গায় ‘হিরো আলম’ নাম আছে, সব জায়গা থেকে চেঞ্জ করবি। এই নাম তুই কই পাইলি?’

জবাবে আপনি কিছু বলেননি, এমন প্রশ্নে হিরো আলম বলেন, ‘আমাকে তো আগেই বলে দেওয়া হয়েছে, যা প্রশ্ন করব, তার বাইরে একটাও কথা বলবি না। কথা বললে বিপদ হবে। সেখানে তো কথা বলার সুযোগ ছিল না। মনে হলো, আমি কথা বলার অধিকার রাখি না।’

নাম পরিবর্তন করবেন কী না জিজ্ঞেস করলে হিরো আলম বলেন, ‘আমাকে যদি বলা হয়, নাম পরিবর্তন না করলে তোর ফাঁসি হবে, আমি তাও পরিবর্তন করব না।’

আপনি অভিযোগ করছেন, আপনাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ঘটনার সূত্রপাত কীভাবে? জবাবে হিরো আলম বলেন, ‘আমি রামপুরা মহানগর প্রজেক্টে থাকি। তখন ঘুমিয়ে ছিলাম। অনুমানিক সকাল ৬টা বাজে। দরজায় শব্দ হয়। আমার সঙ্গে আরেকজন ছেলে ছিল। তখন আমি তাকে দরজা খুলতে বললাম। দরজা খোলা মাত্র ধামধাম করে ডিবির ৫ থেকে ৬ জন সদস্য ঘরের মধ্যে ঢুকল। তাঁদের মধ্যে নাজমুল হক নামের একজন ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা ছিলেন। তাঁর নেতৃত্বে মোট ৮ জন আমার কাছে আসেন। পরে তারা আমার রুমে সার্চ করেন।’

তারপর আমার পিসি (কম্পিউটার) খুলতে বলে। খুললাম। এরপর জানতে চাওয়া হয় আমার হার্ডডিস্ক কই। আমি বললাম, ফুটেজ আনতে পাঠাইছি। পুলিশ আমার বাসায় সর্বোচ্চ ৩০ মিনিট ছিল। আমি তাঁদের পরিচয় জানতে চেয়েছিলাম। কিন্তু, তাঁরা পরিচয় দেয়নি। তাঁরা তো ডাকাত বা সন্ত্রাসীও হতে পারত। তারপর আমাকে গাড়িতে করে ডিবি অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়।’

হিরো আলম বলেন, ‘ডিবিতে নেওয়ার পর তাঁরা আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ শুরু করে। আমার সঙ্গে কথা বলার সময় ৮ জন উপস্থিত ছিল। সব সময় তুই-তুকারি করে কথা বলেছে। খারাপ শব্দ ব্যবহার করেছে। কিন্তু, রাষ্ট্রের এমন কোনো আইন নেই যেখানে বলা আছে, পুলিশ তুই-তুকারি করে কথা বলবে।’

‘তারপর আমাকে বলা হলো, তোর নামে তো অনেক অভিযোগ পড়ছে। আমি জানতে চাইলাম কি কি অভিযোগ। একইসঙ্গে অভিযোগকারীর নামও জানতে চাইলাম। নতুবা আপনি (পুলিশ) হুটহাট জিজ্ঞেস করলে কি উত্তর দিব আমি? তখন পুলিশ আমাকে বলল, তোকে যে প্রশ্ন করব, সেটার উত্তর দিবি। এক লাইন বেশি কথা বলবি না। বেশি উত্তর দিবি না। বেশি কথা বললে, তোর সমস্যা হবে।’

হিরো আলম বলেন, ‘আমি বললাম, ঠিক আছে বলেন। আপনাদের কথাই শুনি। তখন আমাকে বললো, তোর নামে রিপোর্ট করছে মডেল বিপাশা ও মডেল মৌ। তোর নামে অভিযোগ করছে, ডাক্তার মুরাদ হাসান। তোর নামে অভিযোগ আছে, তুই পুলিশের পোশাক পরে অভিনয় করছিস। তুই রবীন্দ্রসংগীত কেন গেয়েছিস? মোট পাঁচটি অভিযোগ পুলিশ আমার কাছে বলেছে।’

‘‘কী কী অভিযোগ জানতে চাইলে পুলিশ বললো, মৌ আর বিপাশার যখন গ্যানজ্যাম হয়, তখন আমি ‘রাতের রানী’ শিরোনামে একটি গান করেছিলাম। এ গান গাওয়াতে আমি না কি বিপাশা আর মৌ-এর সম্মানহানি করছি। কিন্তু, আপনি ইউটিউবে সার্চ দেন, ওঁদের নামে ব্যঙ্গ করে অনেকে গান করছে। অনেকে গালিগালাজ করে গান করছে। তাঁদের কিন্তু ধরল না পুলিশ। খালি (শুধু), আমাকে কেন ধরল? ডাক্তার মুরাদ হাসানের নামে অনেকে ব্যঙ্গ করে গান গাইছে। তাঁদের দোষ ধরল না।’’

হিরো আলম বলেন, ‘আজ থেকে চার বছর আগে আমি পুলিশের পোশাক পরে একটি শুটিং করছিলাম। আমি ওটার পরিচালক ছিলাম না। আমি জাস্ট অভিনয় করছি। আমি পুলিশের পোশাকের বিষয়ে অতোকিছু বুঝতামও না। আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ হলো, কনস্টেবলের পোশাক পরে আমি কেন পুলিশের অন্য চরিত্রে অভিনয় করলাম। এটার জন্য কিন্তু আমি দায়ী হতে পারি না। দায়ী থাকলে পরিচালক থাকতে পারে।’

ঘটনার দিন হারুন অর রশীদ বলেছিলেন, ‘হিরো আলম মুচলেকা দিয়েছেন যে, জীবনেও আর নজরুলগীতি ও রবীন্দ্রসংগীত বিকৃত করে গাইবেন না। এ ছাড়া এ ধরনের ভিডিও বানাবেন না।’ পরে ডিএমপির জনসংযোগ শাখা থেকে কয়েকটি ভিডিও পাঠানো হয় সাংবাদিকদের কাছে। ভিডিওতে হিরো আলমকে ভুল স্বীকার করে বিভিন্ন বক্তব্য দিতে শোনা গেছে।

এ প্রসঙ্গে হিরো আলম বলেন, ‘আমি মুচলেকা ও ভিডিওতে যা বলেছি, তার প্রত্যেকটি কথা পুলিশের শিখিয়ে দেওয়া। তাঁরা আগেই আমাকে বলেছিল, তারা যা বলবে; তাই বলতে। এ কথাগুলো বলার কারণে আমার কি হবে, আমি নিজেও জানি না। আমাকে আবার ডিবিতে নিয়ে যেতে পারে, টর্চারও করতে পারে। তবে, আমি যা সত্য, তা বলেই যাব। আমি মনে করি, আমার সঙ্গে ১০০ ভাগ অন্যায় করছে পুলিশ।’

‘জিজ্ঞাসাবাদ করার সময় ডিবি পুলিশ আমাকে বলে, তুই যে অপরাধগুলো করেছিস, সেগুলোর জন্য এক থেকে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা হতে পারে। ৫ থেকে ৭ বছরের জেল হতে পারে। তখন আমাকে বলে, তুই এগুলো করবি, না কি করবি বল? আমি তখন বাধ্য হয়ে বললাম, ঠিক আছে আমি এ ধরনের (রবীন্দ্রসংগীত ও নজরুলগীতি) কাজ আর করব না। তখন আমাকে বলা হলো, তোর এ কথার ভিত্তি কি? তুই তাহলে মুচলেকায় সই দে। তখন আমি সই করেছি। আমি কোনোরকম আপস করিনি। অত্যাচার ও নির্যাতনের কারণে বাধ্য হয়ে আমি এ কথা বলেছি, কাজগুলো করেছি। তবে, আমি কিন্তু জীবনে গান করব না, সে কথা বলিনি। আমি বলেছি, রবীন্দ্রসংগীত বা নজরুলগীতি, এ ধরনের কোনো গান করব না এবং কারও বিরুদ্ধে গান করব না।’

হিরো আলম আক্ষেপ করে বলেন, ‘আমি জানতে চাই, পুলিশ কি চায় ? যারা আমার পেছনে লাগছে, তারা কি চায় ? আমি দেশে থাকব, না কি দেশ ছেড়ে চলে যাব?’

কথা শেষে হিরো আলমের কাছে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, আপনি এখন কেমন আছেন? জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি মানসিকভাবে টেনশনে আছি।’

এনটিভি

আরও পড়ুন

বিশ্বে তেলের দাম কমলেও দেশে কমছে না কেন?

প্রয়োজনে দেশের মাটিতে জেলে যাব : সেতুমন্ত্রী

এলাকাভিত্তিক শিল্প-কারখানা এক দিন বন্ধের প্রজ্ঞাপন জারি

১০ টাকা ভাড়া নিয়ে ঝগড়া: চালককে শ্বাসরোধ করে হত্যা, গ্রেফতার ২

নোয়াখালীতে চারটি মামলায় স্থায়ী জামিন পেয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বুলু

সীতাকুণ্ড সিমনি শীপ ইয়ার্ড এর দায়ের করা ডাকাতির মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামীদের ৩ দিনের রিমান্ড

জৈন্তাপুরে এনআরবিসি ব্যাংকের সৌজন্যে বন্যার্তদের মধ্যে সহায়তার অর্থ বিতরণ

রাণীনগরে মাদক সেবীর ৬ মাসের সাজা

ঢাবি উপাচার্যের সঙ্গে কোইকা প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ

কাপাসিয়ায় নামধারী চিকিৎসকের অবহেলায় প্রাণ গেল নবজাতকের

“ফিরে এসো তুমি”–সামিউর রহমান প্রধান

পুকুরের পানিতে ডুবে প্রাণ গেল দুই শিশুর