কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদীয়মান বিভাগ সাংবাদিকতা

received_2550406844969876.jpeg

আল আমিন, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ! দেশের সাংবাদিকতাকে আরো একধাপ এগিয়ে নিতে ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫২ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু করে এ বিভাগ। সময়ের সাথে সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচিতি এনে দিচ্ছে এ বিভাগ। সাংবাদিকতার বিদ্যাকে নিজেদের মধ্য ধারণ করে, সমৃদ্ধ করতে শুরু করেছে সাংবাদিকতা অঙ্গনকে। বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা বিভাগকে উদীয়মান বিভাগই বলা যায়, কেননা খুব কম সময়েই নিজেদের অবস্থান জানান দিচ্ছেন।

বিভাগটিতে প্রতিষ্ঠাকালীন শিক্ষক ছিলেন ৩ জন। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে বর্তমানে বিভাগটিতে ৭জন শিক্ষক পাঠদান ও গবেষনার কাজে নিযুক্ত আছেন।যারা সবসময় শিক্ষার্থীদের পাশে থেকে উৎসাহ ও অনুপ্রেরনা দিয়ে তাদের স্বপ্ন বুনার পথগুলোকে প্রশস্থ করে দিচ্ছেন।
বিভাগটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে তাদের আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।সময়ের স্রোতের সাথে তাল মিলিয়ে যেন সাফল্য আর অর্জন বিভাগের দরজায় একের পর এক কড়া নাড়ছে।শিক্ষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ক্রীড়াঙ্গনসহ সকল সেক্টরেই যেন তাদের সাফল্যের পদচারনায় মুখরিত। ২০১৮ সালে আন্ত:বিভাগ ফুটবল টুর্নামেন্টে সকল বিভাগকে পেছনে ফেলে ৩য় স্থান অর্জন করে বিভাগটি ক্রীড়াঙ্গনে সাফল্যের মুখ দেখতে শুরু করে।তারপর থেকে একের পর এক সাফল্য বিভাগটির ঝুড়িতে জায়গা করে নেয়।২০১৯ সালে আন্ত:বিভাগ ক্রিকেট টুর্নামেন্টেও ১৯ টি বিভাগকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নের মুকুট ছিনিয়ে আনে তারা।
সাহিত্য ও সংস্কৃতিতেও বিভাগটির অংশগ্রহন কোন অংশে কম নয় ।বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান দুটি সাংস্কৃতিক সংগঠন থিয়েটার ও অণুপ্রাসে অংশগ্রগনের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত মেধার সাক্ষর রাখছে বিভাগের শিক্ষার্থীরা।বিভাগটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনে অংশগ্রহনের মাধ্যমেও গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইটি সাংবাদিক সংগঠনে নিজেদের পাকা অবস্থান করে নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। সাংবাদিকতাকে একটু ভিন্ন স্বাদের করে তুলছেন এ বিভাগ থেকে যাওয়া ক্যাম্পাস সাংবাদিকগণ।
ক্যাম্পাসের সকল দিক থেকে নিজেদেরকে ব্যতিক্রমী ভাবে উপস্থাপন করতেই যেন বদ্ধপরিকর শিক্ষার্থীরা। সবার সাথে যোগাযোগের ক্ষেত্রে বিশেষ ভাবে দক্ষ হয়ে উঠছেন গণযোগাযোগ অধ্যায়ন করে।
গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী হিসেবে বিভাগে গণমাধ্যম প্রেমী শিক্ষার্থীর সংখ্যাও কম নয়, বরং দিনদিন বাড়ছে।বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ন অনলাইন মিডিয়া ও প্রিন্ট মিডিয়ায় নিয়মিত কাজ করার মাধ্যমে নিজেদের যোগ্যতা ও মেধার সাক্ষর রেখে চলেছেন শিক্ষার্থীরা।শোষনমুক্ত ও সুন্দর সমাজ বিনির্মানের প্রত্যাশায় তারা নিজেদেরকে গড়ে তুলছেন।
বিভাগটি বিভিন্ন জাতীয় দিবসে বিভিন্ন কর্মসূচি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে।যা শিক্ষর্থীদের মননশীল চিন্তা ভাবনার পথ আরো প্রশস্থ করছে।তছাড়াও বই পড়া কর্মসূচি ও বিতর্ক প্রতিযোগিতায়ও বিভাগের শিক্ষার্থীরা নিয়মিত অংশগ্রহন করে প্রতিভার সাক্ষর রাখছে।ফলে অনান্য বিভাগ থেকে নিজেকে সতন্ত্র বিভাগ হিসেবে পরিচয় দিয়েছে ইতোমধ্যে।
গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ৩য় ব্যাচের শিক্ষার্থী জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া তার বিভাগ নিয়ে অনেক স্বপ্নের কথা বলেছেন। তিনি বলেন” কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা বিভাগে ভর্তি হতে পেরে নিজেকে গর্বিত মনে করেন। তার বিভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ের অনান্য বিভাগ থেকে একটু ভিন্ন।তিনি আরও বলেন তাদের বিভাগ শিক্ষা, সাহিত্য,সংস্কৃতি ও ক্রীড়াঙ্গনে অনান্য বিভাগের তুলনায় এগিয়ে।আর তাদের এই সাফল্যের পিছনে প্রাণপ্রিয় শিক্ষকদের ভূমিকা অতুলনীয়।তারা প্রতিনিয়ত শিক্ষার্থীদের মানসিক সাপোর্ট, পরামর্শ ও যেকোন কাজে দিকনির্দেশনা দিয়ে থাকেন।যা শিক্ষার্থীদের আত্মবিশ্বাস ও কাজে একগ্রতা বৃদ্ধি করে”। সর্বোপরি শিক্ষকরা অভিবাবকের ন্যায় অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করেন।তিনি বিশ্বাস করেন যে তাদের বিভাগ শুধু তাদের বিশ্ববিদ্যালয়েই নয়, একদিন দেশসেরা বিভাগ হিসেবে পরিচিতি লাভ করবে।দেশের গুরুত্বপূর্ন সেক্টরগুলোতে তাদের বিভাগের শিক্ষার্থীরা অবস্থান করবে।

বিভিন্ন সমস্যা, সীমাবদ্ধতা ও প্রতিকূলতার মধ্যেও কুবির গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ নিজেকে সতন্ত্র বিভাগ হিসেবে পরিচয় দিচ্ছে।অনেক বাধা বিপত্তি পেরিয়েও আজ তারা অনেকটাই সমৃদ্ধ। বিভাগের প্রতিটি শিক্ষার্থীরই স্বপ্ন একদিন তারা তাদের বিভাগকে দেশসেরা বিভাগ হিসেবে দেখতে চায় ।
একদিন দেশের মিডিয়া অঙ্গনে এরাই হয়ে উঠবে একেকটি নক্ষত্র। নিজেদের অর্জিত বিদ্যা দিয়ে, সাংবাদিকতার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবে এই বিভাগের শিক্ষার্থীরাই। সাংবাদিকতাকে একধাপ এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার দৃঢ় প্রত্যয় সবার চোখে মুখে, আর তাইতো এরা হয়ে উঠছে ব্যাতিক্রম

Top