ফিল্ম স্টাইলে আওয়ামীলীগ নেতাকে অপহরণের চেষ্টা : এলাকাবাসির সহায়তায় উদ্ধার

Cox-Kokhan.jpg

কক্সবাজার প্রতিনিধি–
কক্সবাজার সদরের ভারুয়াখালীতে ফিল্ম স্টাইলে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতাকে অপহরণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। ১১ জুলাইয় (বৃহস্পতিবার) বিকাল ৪ টার দিকে ইউনিয়নের পশ্চিমপাড়া এলাকার সাবেক ইউপি সচিব রশিদ আহমদের বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। অপহরণের শিকার জালাল আহমদ (খোকন) ওই এলাকার রশিদ আহমদের পুত্র ও ভারুয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক বলে জানা যায়।
পরিবারের সদস্যরা বলছেন, প্রভাইভেট কার যোগে ৪ জন লোক সেনাবাহিনীর ঠিকাদার পরিচয়ে বড় ছেলে জালাল আহমদ (খোকন)কে খোঁজ করে। পরে খোকন বাড়ি থেকে বের হয়ে তাদের সাথে কৌশল বিনিময় করে বাসায় চায়ের নিমন্ত্রণ জানান। ওই ব্যাক্তিরা খোকনের বাসায় বসে চা খেতে খেতে নিজেদের সেনাবাহিনীর ঠিকাদার পরিচয় দিয়ে ভারুয়াখালীতে খোকনের নিজস্ব জায়গা ক্রয়ের প্রস্তাব দেন। এক পর্যায়ে তাদের কথায় রাজি হয়ে খোকন তার নিজস্ব জায়গা দেখানোর জন্য অতি কৌশলী অপহরণ চক্রের প্রাইভেট গাড়ীতে করে গন্তব্যে রওয়ানা দেন। তখন ওই গাড়ীর পিছু নেয় খোকনের ছোট ভাই ওসমান সরওয়ার।
ওসমান সরওয়ার জানান, জমি দেখার নাম করে আসা অপহরণ চক্রের সদস্যরা বড় ভাই খোকনকে তাদের গাড়ীতে থাকা অবৈধ পিস্তল টেকিয়ে গন্তব্য ক্রস করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় তাদের গতিবিধি লক্ষ করে আমি ভারুয়াখালী হাই স্কুলের সামনে গাড়ী বেরিকেট দিয়ে অপহরণ চক্রের বহর আটকিয়ে দিই। পরে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে এলাকাবাসি সহায়তায় আমার ভাইকে অপহরণ চক্রের কবল থেকে উদ্ধার করি।
অপহরণের শিকার জালাল আহমদ (খোকন) জানান, সেনাবাহিনীর ঠিকাদার পরিচয়ে জমি দেখার কথা বলে কৌশলে অপহরণকারীরা তাদের ব্যবহৃত প্রাইভেট কারে করে আমার জায়গায় যাওয়ার উদ্দেশ্য রওনা দেয়। পরে অপহরণ চক্রের সদস্যরা আমাকে নিজেদের র‌্যাব ও ডিবি পরিচয় দিয়ে পিস্তল ঠেকিয়ে অপহরণের চেষ্টা করে। এ সময় তাদের পিছু নেওয়া আমার ছোট ভাই সরওয়ার রাস্তায় বেরিকেট দিয়ে তাদের গাড়ী থামিয়ে এলাকাবাসির সহায়তায় আমাকে উদ্ধার করে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসি জানান, সাবেক সচিবের ছেলে সরওয়ারের চিৎকারে আমরা এগিয়ে এসে রাস্তায় বেরিকেট দিয়ে অপহরণ চক্রের (চট্ট মেট্টো-গ ১১-৭১৫৫) গাড়ীটি থামিয়ে দিই। পরে অপহরণ চক্রের সদস্যদের কবল থেকে আওয়ামীলীগ নেতা খোকনকে উদ্ধার করি। এ সময় অপহরণ কারীরা নিজেদের প্রশাসনের লোক পরিচয় দিয়ে দ্রæত ছটকে পড়ে।
এলাকাবাসি আরো জানান, সম্প্রতি সময়ে ভারুয়ালীতে পুলিশের কাছ থেকে আসামী চিনতাই কালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে সৃষ্ট ঘটনা নিয়ে এখনো আতঙ্ক কাটেনি এলাকাবাসির। তাই উক্ত অপহরণ চক্রের সদস্যরা প্রশাসনের পরিচয় দিয়ে সহজে পার পেয়ে যায়।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার ফরিদ উদ্দিন জানান, ঘটনার বিষয়ে আমি অবগত হয়েছি। ভূক্তভোগী পরিবার অভিযোগ দিলে যাচাই বাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Top