গবেষণার নামে লাউয়াছড়ায় বন্যপ্রাণী পাচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন

received_647277632420372.jpeg

নির্মল এস পলাশ, কমলগঞ্জ প্রতিনিধি —

পর্যটক ভিসায় বাংলাদেশে এসে বন বিভাগ ও সরকারি অনুমতি ছাড়াই মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে গবেষনার নামে সাপের ডিম ও বিষ সংগ্রহ এবং বন্যপ্রাণী পাচারের প্রতিবাদে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের প্রধান প্রবেশ পথে শুক্রবার(১২জুলাই) সংক্ষুব্ধ নাগরিক আন্দোলন সিলেটের ব্যনারে মানববন্ধন করে।
সম্প্রতি দেশীয় কতিপয় গবেষকের সাথে কিছু বিদেশী পর্যটক লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে প্রবেশ করে বন্যপ্রানী ও জীববৈচিত্র‍্য নিয়ে গবেষনা করেছেন। এ নিয়ে গত কয়েক দিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিভিন্ন গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ছে। এসব গবেষকরা জাতীয় উদ্যানের থেকে সাপের ডিম ও বিষ সংগ্রহসহ বন্যপ্রানী পাচার করেন বলেও স্থানীয়ভাবে জোর অভিযোগ উঠেছে।
বাংলাদেশ পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (বাপা) সিলেট বিভাগীয় সম্পাদক আব্দুল করিমের নেতৃত্বে স্থানীয় জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটি, পরিবেশ সাংবাদিক ফোরামসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সদস্যরা মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ গ্রহন করেন। এক ঘন্টা স্থায়ী মানবন্ধনে বক্তব্য রাখেন বাপা সিলেটের সভাপতি আব্দুল করিম,পরিবেশ সংগঠক নিয়ামুল ইসলাম খান, বাপা সিলেটের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সামির মাহমুদ চৌধুরী, শামছুল হক, পরিবেশ সাংবাদিক ফোরাম মৌলভীবাজারের সাধারণ সম্পাদক নুরুল মোহাইমিন, ব্যারিষ্টার গোলাম সোবহান চৌধুরী, বাপা হবিগঞ্জ কমিটির সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্ঝল হোসেন, বাপা মৌলভীবাজারের সমন্বয়কারী আ ছ ম ছালেহ সোহেল,প্রকৃতি প্রেমি আব্দুল আহাদ, কমলগঞ্জ জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সভাপতি মঞ্জুর আহমদ আজাদ সহ প্রমুখ।
এ সময় বক্তারা বলেন সম্প্রতি দেশীয় সাপের গবেষক শাহরিযার সিজারের সাথে দুইজন মার্কিন গবেষক পর্যটক হিসেবে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে প্রবেশ করেছিলেন। দুই বিদেশী পর্যটক দেশী গবেষকের সাথে সংঘবদ্ধ হয়ে অবৈধভাবে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান থেকে বিভিন্ন প্রজাতির সাপের ডিম সংগ্রহ করেন। কিন্তু সরকারি আইন অনুযায়ী কোন বিদেশি নাগরিক বাংলাদেশে গবেষনার কাজে আসতে হলে সরকারের অনুমতি নিতে হয়। তবে তারা সরকারি অনুমতির তোয়াক্কা না করেই অবাদে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে ঘুরে বনের বন্য প্রাণীর বিভিন্ন নমুনা সংগ্রহ করেছেন। যা দেশের আইন পরিপন্থী।
জীববৈচিত্র রক্ষা কমিটি কমলগঞ্জ এর সভাপতি মনজুর আহমদ আজাদ মান্না বলেন, কথিত গবেষক শাহরিয়ার সিজার সাথে আর কোন বাংলাদেশী গবেষক বা সহযোগী মার্কিন নাগরিকদের সাথে সম্পৃক্ত কিনা তা খতিয়ে দেখা উচিত এবং তাদের দৃষ্টান্ত শাস্তি দাবি করেন।

Top