সাতকানিয়ায় পিডিবির ভুতুড়ে বিলে অতিষ্ঠ গ্রাহকরা

images-6.jpg

মোঃ নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

দক্ষিণ চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় পিডিবি’র ভুতুড়ে বিল নিয়ে হয়রানির শিকার হচ্ছেন বিদ্যুৎ গ্রাহকরা। মিটার রিডিং না দেখেই অফিসে বসে গ্রাহকদের বিল তৈরি করছে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড-পিডিবির কর্মীরা। এতে প্রায় সময় অতিরিক্ত অর্থ গুনতে হচ্ছে গ্রাহকদের। গত মে মাসের বিলে মিটার না দেখেই ব্যবহারের অতিরিক্ত ইচ্ছামত বিল চাপিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করেছেন গ্রাহকেরা।
অতিরিক্ত বা ভৌতিক বিল চাপিয়ে দেওয়ার বিষয়ে অনেকেই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে লেখালেখি করছেন। সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্নসাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন তাঁর ফেসবুকে বিদ্যুৎ বিলের ছবি দিয়ে লিখেছেন ‘সাতকানিয়া বিদ্যুৎ বিভাগের ভুতুড়ে বিল’। কামাল উদ্দিন নামের আরেক গ্রাহক লিখেছেন ‘বিদ্যুৎ ব্যবহার ১১০ ইউনিট, বিল পেয়েছি ২০০ ইউনিট। ৯০ ইউনিট ভুতের বিল।’
বিদ্যুৎ গ্রাহকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সাতকানিয়া বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের লোকজন দীর্ঘদিন ধরে মিটার না দেখেই ইচ্ছেমত অতিরিক্ত বিল দিয়ে যাচ্ছেন। গত মে মাসে আরও অতিরিক্ত বিল দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তাঁরা।
সাতকানিয়া পৌরসভা সদরের নুরুল ইসলাম বলেন, মে মাসের বিলে আমার মিটারে বিদ্যুৎ ব্যবহারের রিডিং দেখানো হয়েছে ১২৫০০। কিন্তু এক মাস পরেও জুনের ২৩ তারিখে মিটারে রিডিং দেখা গেছে ১২৪০৫। এতে দেখা যায় এক মাস পরে
এসেও উল্টো আমিই বিদ্যুৎ বিভাগের কাছ থেকে ৯৫ ইউনিট পাওনা আছি। অথচ তাঁরা আমার নামে ২৯০ ইউনিট বিল করে পাঠিয়েছেন।
রাসেদ হোসেন নামের আরেক গ্রাহক বলেন, বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন তাঁদের চুরি পুষিয়ে নেওয়ার জন্য গ্রাহকদের ওপর অতিরিক্ত বিল চাপিয়ে দিচ্ছেন। প্রায় প্রত্যেক গ্রাহককেই অতিরিক্ত বিল দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগের এই দূর্নীতির তদন্ত হওয়া দরকার।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সাতকানিয়া বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের আবাসিক প্রকৌশলী মো. গোলাম সরোয়ার অতিরিক্ত বিল করার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, লোকবল না থাকার কারণে মে মাসের বিলে কিছু বাড়তি বিল করা হয়েছে। আগামী মাসের বিলে তা সমন্বয় করে বিল বিলি করা হবে।

Top