সাতকানিয়ায় দুই ট্রাফিক পুলিশকে পিটিয়ে আহত করল পরিবহণ শ্রমিকরা

IMG_20190617_193357.jpg

মোঃ নাজিম উদ্দিন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:
চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় মহাসড়কের উপর বাস থামাতে না দেয়ার জেরে পুলিশ বক্সে ঢুকে দুই ট্রাফিক সদস্যকে পিটিয়ে আহত করেছে পরিবহণ শ্রমিকরা। এসময় আহত হয়েছেন, ট্রাফিক পুলিশের সদস্য মুমিনুল হক (৪০) ও নুরুল হক (৪২)। পরে
শ্রমিকরা জড়ো হয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে পুলিশ বক্সে ভাংচুর চালায়। (১৭ জুন) সোমবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে কেরানীহাট বান্দরবান রাস্তার মাথায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। এঘটনায় পুলিশ বাসটির চালক হারুনুর রশিদ রুবেল (৩২) ও সহকারী আকতার হোসেনকে আটক করে।
জানা যায়, সোমবার সকালে হানিফ পরিবহণের (চট্টমেট্রো-ব-১১-১২৮৮) নাম্বারের একটি বাস কেরানীহাট বান্দরবান রাস্তার মাথায় মহাসড়কের উপর দাঁড়িয়ে যাত্রী উঠা-নামা করছিল। এসময় ট্রাফিক পুলিশের একজন সদস্য বাসটিকে সড়কের উপর থেকে সরাতে বলে বাসের বডিতে প্লাস্টিক পাইপ দিয়ে বারি মারেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বাসের সহকারী ওই ট্রাফিকে ধাক্কা দেয়। ঘটনা দেখে আরো কয়েকজন ট্রাফিক এসে বাসের সহকারী আকতারকে ধরে বক্সে নিয়ে আসেন। কয়েক মিনিটের মধ্যে ট্রাফিক
সদস্যরা আকতারকে ছেড়ে দেয়। এঘটনার জের ধরে পরিবহণ শ্রমিকরা জড়ো হয়ে বক্সে ঢুকে দুই ট্রাফিককে লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকে। খবর পেয়ে সাতকানিয়া থানা পুলিশ এসে আহত অবস্থায় ট্রাফিক সদস্যদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এছাড়া শ্রমিকরা বক্সের ভিতরে ভাংচুর চালায় ও কিছুক্ষণ মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে চালক হারুনুর রশিদ রুবেল ও সহকারী আকতার হোসেনকে আটক করে। সাতকানিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আক্কাস আলী বলেন, যানজট নিয়ন্ত্রণে রাখতে মহাসড়কের উপর দাঁড়িয়ে থাকা হানিফ পরিবহণের একটি বাস সরাতে বলায় ট্রাফিক পুলিশকে পিটিয়ে আহত করেছে শ্রমিকরা। এঘটনায় চালক, সহকারী ও বাসটি আটক করা করা হয়েছে। ট্রাফিক পুলিশকে পিটিয়ে আহত করা ও বক্সে ভাংচুরের ঘটনায় মামলা পক্রিয়াধীন রয়েছে।
সাতকানিয়া দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর (টিআই) মুখলেছুর রহমান বলেন, সড়কের উপর দাঁড়িয়ে যাত্রী উঠা-নামা করা একটি বাসকে সরানোর জন্য গাড়ির বডিতে বারি মারার জেরে বেপরোয়া হয়ে পরিবহণ শ্রমিকরা দুই ট্রাফিক পুলিশকে পিটিয়ে আহত করেছে। এছাড়া তারা (শ্রমিকরা) বক্সেও ভাংচুর করে। বর্তমানে আহত ট্রাফিক সদস্যরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

Top