ইসলামপুরে কর্মসংস্থান কর্মসূচি’র প্রকল্পে বেহাল অবস্থা ; কর্মদিবস ফাঁকি, প্রকল্পের কাজ চলছে কাগজে কলমে !

yyyy.jpg

রোকনুজ্জামান সবুজ,জামালপুর:

জামালপুরের ইসলামপুরে ২০১৮-১৯অর্থ বছেরের অতিদরিদ্রদের জন্য কর্ম সংস্থান কর্মসূচি”২য় পর্যায়ে প্রকল্পের কাজের বেহাল অবস্থা বিরাজ করছে।
জানা গেছে, এই উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়নকারীদের কোন প্রকার তদারকি না থাকায় ইজিপিপি’র উদ্দেশ্য ও আদর্শ্য সরকারী নীতিমালা ও নির্দেশনা এ উপজেলায় বাস্তবায়ন না হওয়ায় সরকারের ইজিপিপি প্রকল্পের উদ্দেশ্য ভেস্তে যাচ্ছে। কর্মদিবস ফাঁিকতে প্রকল্পের কাজ চলছে শুধু কাগজে কলমে।
জানা যায়,জেলার ইসলামপুর উপজেলায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রনালয় কর্তৃক বাস্তবায়িত ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের ২য় পর্যায়ের অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচীর ইজিপিপি’র প্রকল্পের কাজের মোট বরাদ্ধ রয়েছে ৩কোটি ৩লাখ ৩৬হাজার টাকা। এছাড়াও ননওয়েজ কষ্ট বাবদ বরাদ্ধ রয়েছে ১৬লক্ষ ১০হাজার ৫২২ টাকা। উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ৬২টি প্রকল্পের ৩হাজার ৭৯২জন উপকার ভোগী রয়েছে।এ সকল উপকারভোগী ৪০কর্মদিবসে দৈনিক ২০০/-টাকা হারে মজুরি পাওয়ার কথা। কিন্তু প্রকল্পের কাজ শুরুর ১৫কর্মদিবস অতিবাহিত হলেও ২২মে বুধবার সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে,কাজের বেহাল অবস্থার ভয়াবহ চিত্র। উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের ৬২টি উন্নয়ন প্রকল্পের সিংহ প্রকল্পেরই এখনো কাজই শুরু হয়নি। কয়েকটি প্রকল্পে নাম মাত্র কাজ শুরু করলেও প্রকল্পের নির্ধারিত কোন শ্রমিক নেই কাজে। শ্রমিকের বদলে শ্যালো ইঞ্জিন চালিত ভটভটি দিয়ে মাটি ফেলা হয়েছে প্রকল্পে। প্রকল্প এলাকা কোন কার্যাদেশের সাইন বোর্ড চোঁখে পড়েনি।
প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা যায়, গত ২৯এপ্রিল থেকে প্রকল্পের কাজ শুরুর আদেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ১৭ কর্মদিবস অতিবাহিত হলেও শনিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,ইসলামপুর নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের ১৪নং প্রকল্পের কাজ এখনো শুরু হয়নি। একই অবস্থা এই ইউনিয়নের ১৫ থেকে ২২নং প্রকল্পের। এব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বলেন,আমি অসুস্থ,প্রকল্প সভাপতিদের বলেন।
এব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেহেদী হাসান টিটু জানান,প্রতিটি ইউনিয়নের কর্মসূচি কাজ সঠিক ভাবে বাস্তবায়নের জন্য দুই বার চিঠি দেয়া হয়েছে।

Top