নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যানদের বিদায় ও বরণ অনুষ্টান

60814982_373372373277981_540644229748097024_n.jpg

শামীম ইকবাল চৌধুরী,নাইক্ষ্যংছড়ি(বান্দরবান)থেকে::

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানদের বরণ ও প্রাক্তন চেয়ারম্যানদের বিদায় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সোমবার (২০ মে) সকাল ১১টায় নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদ মিলানায়তনে এই বিদায় ও বরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া অাফরিন কচি এর সভাপতিত্বে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান অাধ্যাপক মো, শফিউল্লাহ পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান মংহ্লা ওয়ে মার্মা ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শামীমা অাক্তার গুন্নুকে বরণ করে নেওয়া হয়।

সেই সাথে সাবেক( ভারপ্রাপ্ত) উপজেলা চেয়ারম্যান মো: কামাল ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হামিদা বেগমকে বিদায় প্রদান করা হয়।

অনুষ্টানে বক্তব্য রাখেন পার্বত্য বান্দরবানের জেলা পরিষদের সদস্য ক্যনু ওয়ান চাক, পার্বত্য মন্ত্রীর প্রতিনিধি আলহাজ্ব খাইরুল বাশার, থানা অফিসার ইনচার্জ অানোয়ার হোসেন, সদর ইউপি চেয়ারম্যান তসলিম ইকবাল চৌধরী, বাইশারী ইউপি চেয়ারম্যান মো: অালম, দোছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান হাবিব উল্লাহ, ঘুমধুম ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঈীর অাজিজ, সোনাইছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান বাহান মার্মা, উপজেলা অাওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: ইমরান মেম্বার, উপজেলা মুক্তিযোদ্বা কমন্ডার রাজা মিয়া ।

এর আগে বিদায়ী ও বর্তমান চেয়ারম্যানদের ক্রেস্ট ও ফুল দিয়ে বরণ করে নেন উপজেলা প্রশাসন ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বৃন্দ। নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের পক্ষ থেকে বিদায়ী চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের বিদায়ী সম্মাননা স্বারক এবং বিদায়ী চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের পক্ষ থেকে বরণ সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, ইউপি সদস্য, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিকবৃন্দ সহ এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা শেষে বিদায়ী ও নবগত চেয়ারম্যানদের উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে ক্রেস্ট ও ফুলের তোড়া উপহার দেয়া হয়। এ সময় বিদায়ী চেয়ারম্যান নবগত চেয়ারম্যানের কাছে দায়িত্বভার অর্পণ করেন। সেই সাথে উপজেলা পরিষদের ১ম মাসিক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বরণ অনুষ্ঠানে চেয়ারম্যান শফিউল্লাহ বলেন- নাইক্ষ্যংছড়ির প্রতিটি সমস্যা আলোচনা করে ঐক্যমতের ভিত্তিতে সামাধান করতে হবে। শিক্ষাখাতে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হবে। মাদককের বিরুদ্ধে অভিভাবকদের স্বোচ্ছার হতে হবে।

Top