কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের শিক্ষক ড. বাবুল কান উৎসবে আমন্ত্রিত

kaan-2.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চলচ্চিত্র বিষয়ক শিক্ষক, গবেষক, লেখক, অভিনেতা ও নির্মাতা ড. নুরুল ইসলাম বাবুল ৭২ তম কান চলচ্চিত্র উৎসব-২০১৯-এ অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ পেয়েছেন।
আগামী ১৪ থেকে ২৫ মে ২০১৯ ফ্রান্সের কান শহরে চলচ্চিত্রের এই বৃহত্তম উৎসব শুরু হবে। হলিউড-বলিউডসহ বিশ্বব্যাপী চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা এ উৎসবের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন। ১৯৪৬ সাল থেকে প্রতি বছর ১২ দিনব্যাপী এই উৎসবটি সারাবিশ্বের নামকরা চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্বদের মিলনমেলায় পরিণত হয়ে আসছে।
উলে­খ্য, ড. বাবুল গত ফেব্রয়ারি ২০১৫-তে জার্মানীতে অনুষ্ঠিত বার্লিন চলচ্চিত্র উৎসব ও ইউরোপিয়ান চলচ্চিত্র বাজারে অংশগ্রহণের জন্যও বাংলাদেশ থেকে অফিসিয়াল আমন্ত্রণ পেয়েছিল।
তিনি দেশের কৃতিমান তরুণ চলচ্চিত্রকর্মী হিসেবে ভারত সরকারের বৃত্তির আওতায় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চলচ্চিত্র বিদ্যা বিষয়ে বাংলাদেশে প্রথম এম.এ এবং ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম পি.এইচ.ডি ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৮৫ সাল থেকে তিনি বাংলাদেশের চলচ্চিত্র ও নাট্য আন্দোলনের সাথে জড়িত।
‘চলচ্চিত্রম’ ও ‘লোকনাট্য দল’-এর কর্মী হিসেবে বাংলাদেশ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের নেতৃত্বে অংশ নিয়েছেন স্বৈরশাসক এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে। তিনি দৈনিক আজকের কাগজ, দৈনিক আমাদের সময়, সাপ্তাহিক রূপবাণী সহ বেশি কিছু পত্র-পত্রিকায় সংবাদকর্মী হিসেবে কাজের পাশাপাশি টেলিভিশনের অনুষ্ঠান নির্মাণ ও বাংলাদেশ বেতারের অনুষ্ঠান ঘোষক হিসেবে কাজ করেছেন।
ড. বাবুল বর্তমানে কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন বিভাগের প্রধান হিসেবে কাজ করছেন। তিনি বিজ্ঞাপন নির্মাণ ও দেশি-বিদেশি চলচ্চিত্র নির্মাতাদের সাথে বিভিন্ন রকম কাজে সম্পৃক্ত আছেন। কলকাতার প্রতিভাস থেকে ২০১৮ সালে প্রকাশিত তাঁর বই ‘চলচ্চিত্র ও বাস্তবতা’ গবেষকদের কাছে সমাদৃত।
বিভিন্ন কাজের মধ্যে ধারাবাহিক- জলদাস, আদর্শ মেসবাড়ী। গানের অনুষ্ঠান- গানের অড্ডা। তথ্যচিত্র- জনমত, হট রোড (জার্মানী), ইয়াসমিন, রামরু, এ বিউটিফুল ওয়ার্লড, সি ইউ বি, বেনারসি পল্লী। স্বল্পদৈর্ঘ চলচ্চিত্র- টেলিফোন (১৯৮৮, ভারত), মা, চক্র, ভেতর ও বাহির, কালার ওফ ডেথ। সিটিসেল-এর কিছু বিজ্ঞাপন প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

Top