“ITEX-2019 এ Best Innovation International ক্যাটাগরীতে award পেলো এটুআই এর এক-শপ(Ek-Shop)”

IMG_1107.jpg

সানজিদা ইমু, ঢাবি ;

মালয়েশিয়ার ITEX ২০১৯ বৃহত্তর এশিয়ার গত ৩০ বছর ধরে চলে আসা প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন প্রদর্শনী ও আন্তর্জাতিক বিচারক গণের মাধ্যমে পরিচালিত একটি প্রতিযোগিতা । এবারের আয়োজনে ২১ টি দেশের ১৩২৭ টি উদ্ভাবন উপস্থাপিত হয় । গতবারের ধারাবাহিকতা রেখে এবারও এ টু আই প্রকল্প – আই ল্যাব বাংলাদেশকে এই আয়োজনে প্রতিনিধিত্ব করে । প্রান্তিক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভাবকদের উদ্ভাবন ছাড়াও এই আয়োজনে এবার এ টু আই প্রকল্প এর দুইটি নিজস্ব উদ্যোগ ও উদ্ভাবন অংশ নেয় ।

দেশের সর্ববৃহৎ Innovation Contest-itex এ প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ থেকে কোনো innovation ইন্টারন্যাশনাল ক্যাটাগরিতে বিশ্বসেরা Award পায়।ইন্টারন্যাশনাল বেস্ট ক্যাটাগরীতে মাএ ৬টি এওয়ার্ড দেওয়া হয়।এর মধ্যে Ek-shop “বেস্ট ইন্টারন্যাশনাল ইনোভেশন” ক্যাটাগরীতে পুরস্কার পেয়েছে।

আই ল্যাব এর ৪ টি উম্ভবনের প্রতিটি ই সম্মানজনক রৌপ্য (সিলভার) পদকে ভূষিত হয়। এছাড়াও গ্রামীণ ই কমার্স উদ্যোগ এক-শপ স্বর্ণ পদকে ভূষিত হয়। এছাড়া এক- শপ শুধু স্বর্ণ পদক ই নয়, ২১ টি দেশের মধ্যে সেরা আন্তর্জাতিক উদ্ভাবন ট্রফি অর্জন করে।

উল্লেখ্য যে ITEX ২০১৮ তেও ILAB প্রথমবারের মতো অংশগ্রন করে দুইটি স্বর্ণ ও একটি রৌপ্য পদক অর্জন করে।

এটুআই এর রেজওয়ানুল হক জামি বলেন ,”ব্যক্তিগত ভাবে আমার জন্য এটি একটি বিরল সম্মান। পুরস্কার গুলো পাওয়ার জন্য প্রত্যেক উদ্ভাবকদের ই আন্তর্জাতিক জাজ দের সামনে পিচ দেয়া থেকে শুরু করে অসংখ্য প্রশ্নের মোকাবেলা করতে হয়। এক শপের জন্য একেক জন জাজ গড়ে ২০ মিনিটের ও বেশি সময় ধরে, ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টি, বিজনেস ভাইয়াবিলিটি, স্ক্যালাবিলিটি এই সবকিছু পুঙ্খানু পুঙ্খ ভাবে যাচাই করেন। শুধু গোল্ড অ্যাওয়ার্ড নয়, পুরো প্রতিযোগিতা এবং এক্সিবিশন এ মাত্র ৬ টি অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয় সেরার সেরাদের। আর সেই ট্রফি সব দেশকে অবাক করে দিয়ে পেয়ে যাই আমরা – “বেস্ট ইনভেনশন ইন্টারন্যাশনাল ক্যাটাগরি –

বাংলাদেশের জন্য এটি একটি বিরল সম্মাননা।

Top