পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পরিণিত হয়েছে দলীয় রাজনীতির ; প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় সনদ বিক্রির ভবন

public-convention-akx-s-750x563.jpg

ঢাবি প্রতিনিধিঃ

দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় দলীয় রাজনীতির, আর অল্প কয়েকটি বাদে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো কেবল সনদ বিক্রির ভবনে পরিণত হয়েছে। শনিবার (৪ মে) সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

‘কেমন বিশ্ববিদ্যালয় চাই: উচ্চশিক্ষা নীতিমালা, কাঠামো’ শীর্ষক দুইদিনব্যাপী কনভেনশন শেষে এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. ফাহমিদুল হক ও সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ড. সামিনা লুৎফা।

কনভেনশনে শিক্ষকরা দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আটটি সমস্যা চিহ্নিত করেছেন। গত ১১ ও ১২ এপ্রিল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে এই কনভেনশন অনুষ্ঠিত হয়। ‘বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক’ এর আয়োজন করে।

লিখিত বক্তব্যে বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষার আটটি সমস্যা এবং ছয়টি সমাধান তুলে ধরা হয়। সমস্যাগুলো হলো- বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সরকারিক কর্তৃত্ব, নয়া উদারবাদী নীতি ও ইউজিসির কৌশলপত্র, স্বায়ত্তশাসনের অপব্যহার, শিক্ষা ও গবেষণায় কম বরাদ্দ, অস্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়, দলীয় বিবেচনায় শিক্ষক নিয়োগ ও এমসিকিউনির্ভর শিক্ষার্থী ভর্তি, শিক্ষার্থীদের আবাসন ও ছাত্র রাজনীতি এবং মুনাফামুখী বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়।

কনভেনশনে সরকারি কর্তৃত্ব দলীয় রাজনীতির মাধ্যমে কিভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন হরণ করছে সে বিষয়টি উঠে আসে। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভেতরে পদ-সম্পদ-প্রমোশন বাঁটোয়ারার নীতি শিক্ষকদের দলীয় রাজনীতিমুখী করে তুলছে বলেও মত দেন তারা।

অন্যদিকে, অধিকাংশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো শুধুমাত্র সার্টিফিকেট বিক্রির প্রতিষ্ঠান হয়ে পড়েছে বলেও জানান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক আনু মুহাম্মদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. কাজী মারুফুল ইসলাম, অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড রুশাদ ফরিদী, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ড. মোহাম্মদ তানজীমউদ্দিন খান প্রমুখ।

Top