রুহুল বিন নিজামের কবিতা–আমি অকৃতজ্ঞ বলছি

received_338953223491474.jpeg

————–
প্রতিটি নির্ঘুম রাতের সাথে মরে
যাক একেকটি স্বপ্ন,
প্রতিটি নিরবতার মাঝে লুকিয়ে যাক, বেচেঁ থাকার ভিন্ন প্রতিযোগিতা।
প্রতিটি ঠোটঁ কামরে কান্নার আড়ালে থেকে যাক পাহাড় সম দুঃখ।
প্রতিটি অব্যক্ত কথার মাঝে
রয়ে যাক না বলা হাজারো সুর।
প্রতিটি একাকিত্বে ছেয়ে যাক
আকাশটা ঘন কালো মেঘে,
প্রতিটা বসন্ত চলে যাক বেখেয়ালীপনাতে।
প্রতিটা ফুল ঝরে পড়ুক
মানব ছোঁয়া না পেয়ে।
প্রতিটি বকুল সুবাস ছড়াক
বকুলতলায় পরে।
আমি মানুষ হয়েও মানুষের বিরুদ্ধে
আমি কবি হয়েও কবিতার বিরুদ্ধে
আমি সংগ্রামী হয়েও সংগ্রামের বিরুদ্ধে
আমি আমার হয়েও আমার বিরুদ্ধে।
কেননা আমার কাজ, আমার কর্ম
প্রতিটি কথা আমি কিংবা আমাকে সৃষ্টির উদ্দেশ্যের বাহিরে।
আমার ক্ষণিকের কাল একা থাকা যখন একাকিত্ব,
আর হাজারটা জনম কারো সাথে থাকাও যখন উপেক্ষিত,
তাহলে কি লাভ পশুদের মতো সুবিধাবাদী হয়ে পশুদের মতো থাকতে।
দেয়ার (মেঘ) আড়ালে সূর্য হাসছে, দেখছি আমি, আমরা, আমার প্রজন্ম
তারপরও তমাশার ভয়ে ছাড়ি অন্ন,আপন;হয়ে উঠি বন্য।
ধৈর্যে আমার নাহিক বিশ্বাস,স্বার্থে বিশ্বাসী
আমার পায়ের ছাপায় মরা,মানুষটা আবার কি?
আমি চির কৃতঘ্ন!
আমি আমার আমিত্ববোধে বিশ্বাসী,
পাশের বাড়ির লোকটা থেকে নিচু না হওয়ার প্রতিযোগিতায় মাতি।
রক্তাক্ত দেহ তৃষ্ণারজল মোর,কালো টাকা সম্পদ
হরণ করিবো খোদার আসন আমিতো মহাজন!
জুটিতে মোর বস্ত্র আচঁল, করিবো সব ছিন্ন
ভুলেই গিয়েছি এসেছিলাম আমি,
কেবলই কেবলই খুব নগ্ন।
আমি ভুলিয়া গিয়েছি ওগো,মোর স্রষ্টার সৃষ্টিত্ব
নিজেকে আমি স্রষ্টা বানিয়েছি,আমি যে কেবলই শূন্য।
তাই আসন্ন মৃত্যু কামনা করছি
আমি ও আমার জগতের,
ফিরতে চাচ্ছি মানবিক বাগানে মানবতার জন্য লড়তে।

Top