রোভার পল্লীতে তরুণ কলামিস্টদের বিচরণ

57441696_2201012333547368_6848888904720842752_n.jpg

মো. জাহানুর ইসলাম:

অবসর সময়ে মানুষ নিজেকে সতেজ করে নিতে বিনোদনের বিভিন্ন মাধ্যম বেছে নেওয়া নতুন কিছু নয়। যুগ যুগ ধরে এমনটাই হয়ে আসতেছে। সময়ের বিবর্তনে বিনোদনের মাধ্যমগুলোর মাঝে বেশ পরিবর্তন হয়েছে তবে । একেক সময় একেকটা মাধ্যম জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। এই যেমন বর্তমানে মানুষের কাছে বিনোদনের মাধ্যম হিসেবে ঘুরাঘুরি বা ভ্রমণ করা খুবই জনপ্রিয় । বর্তমান প্রজন্মের ছেলে মেয়েরা একটু অবসর পেলেই ঘুরতে বেরিয়ে পড়ে দিগ দিগন্তে। আমরাও এর বিপরীত নই। সুযোগ পেলেই দলবলসহ বেরিয়ে পড়ি বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান দেখতে, নতুনত্ব আবিষ্কারের সন্ধানে। এবারো এর কোনো ব্যতিক্রম হয়নি।সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে ভ্রমণপিপাসু মানুষের ভ্রমণ তালিকার পছন্দের কিছুটা যেমন ভিন্নতা থাকে, তেমনি আমাদেরও ছিল। অন্য সময় পাহাড়,পর্বত, নদ-নদীসহ বিভিন্ন প্রত্নতাত্বিক স্থাপনা দেখতে বের হলেও এবারের পছন্দ গাজীপুরের বাহাদুরপুর।

বাংলাদেশ তরুণ কলাম লেখক ফোরামের আমরা ( নাজমুন আরা শামীমা, মো. জাকারিয়া, মারজুকা রায়না, নিগার সুলতানা সুপ্তি, মাহবুবুর রহমান সাজিদ, ফেরদাউস খান, শামীম, মো. মুছা, জুয়েনা আক্তার ও উসিম উদ্দীন) কয়েকজন তরুণ কলামিস্ট অনেক জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ১৯ এপ্রিল গাজীপুরের বাহাদুরপুরে ভ্রমণে যাই। সেখানে গিয়ে জানতে পারি বাহাদুরপুরে নজরকাড়া কোনো স্থাপনা নেই। তবে রোভার স্কাউটদের প্রশিক্ষণের জন্য একটি আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রয়েছে যা সারা বিশ্বে “বাহাদুরপুর রোভার পল্লী ” নামে পরিচিত। আমরা স্থানীয়দের সহায়তায় সেখানে যাই। সেখানকার গ্রামীণ প্রাকৃতিক সবুজ পরিবেশ ও শীতল আবহাওয়া খুব সহজেই আমাদের মন আকৃষ্ট করে। আমরা বিমোহিত হয়ে পড়ি সেখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের মোহে। রোভার পল্লীতে না গেলে কখনো বিশ্বাস করতেই পারতাম না যে ঢাকার অদূরে এত সুন্দর সাজানো গোছানো একটি প্রশিক্ষণ থাকতে পারে।

শান্ত প্রকৃতি আর শীতল বাতাসে ভরপুর ইটের বেষ্টনি দিয়ে ঘেরা রোভার পল্লীর ভিতরকার পাকা রাস্তার দুই পাশে সারি সারি বৃক্ষ , মুল প্রবেশপথের ডান পাশের দৃষ্টিনন্দন পুকুর, সামনে আর একটু এগিয়ে গেলে চোখে পড়ে বিশাল একটি মাঠ, আধুনিক স্থাপত্য বিদ্যার সফল প্রয়োগে তৈরীকৃত প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের চোখ জুড়ানো নান্দনিক ভবন যা আমাদের মন কাড়ে। সেকানকার কর্মকর্তা, কর্মচারির কাছ থেকে জানতে বর্ষা আর শীতের মৌসুমে নাকি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটি হয়ে যায় ফুলের রাজ্য।চারিদিকে শুধু ফুল আর ফুলের গন্ধে মোহিত হয় সেখাকার বাতাস। আর এসব কারণেই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রটি খুব সহজেই জনপ্রিয়তা লাভ করেছে পর্যটকদের কাছে। রোদের ক্ষিপ্রতা কমে আসলে আমরা সেখানকার সবুজ গাছগাছালির সাথে নিজেদেরকে ক্যামেরাবন্দী করি। বিকাল ৩ টার দিকে রোভার পল্লী থেকে বের হই এবং এর মধ্য দিয়েই পরিসমাপ্তি ঘটে আমাদের গ্রাম্য রোমাঞ্চকর এক আনন্দঘন ভ্রমণের।

লেখক :
সভাপতি : বাংলাদেশ তরুণ কলাম লেখক ফোরাম

Top