দোয়ারায় ঘিলাচড়া স্কুল ও কলেজে শিক্ষকদের প্রতিবাদ সভা ও শিক্ষার্থীদের মানববন্ধব

57154264_2189819587763532_7669355077051613184_n.jpg

সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ঃ

দোয়ারাবাজার উপজেলার নরসিংপুর ইউনিয়নের ঘিলাছড়া স্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মুজিবুর রহমানের অপসারণের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানব বন্ধন ও বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষকের উপর মিত্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে শিক্ষকদের প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘিলাচড়া স্কুল ও কলেজ মাঠে শিক্ষার্থীরা মানব বন্ধন করেছে। একই সময় বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষকদের উপর থেকে মিত্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা করেন বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষকগণ। ঘিলাচড়া স্কুল ও কলেজের সহকারী শিক্ষক ও শিক্ষক প্রতিনিধি মো.আমজাদ হোসেনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সহকারী শিক্ষক মো.ছানোয়ার হোসেন, সহকারী শিক্ষক মো.আবু সহিদ, মো.আব্দুল জব্বার,বিপ্লব কান্তি দাস, মো.সুমন মিয়া, মো.মোজাম্মেল হক, মো.সুরমান আলী,মো.নুরুল আমিন, অফিস সহকারী মো.বাবুল মিয়াা, দপ্তরী মো.আল আমিন। শিক্ষকগণ বক্তব্যে বলেন, গত ২৬ মার্চ স্বাদিনতা দিবসে যে ঘটনা গটেছে আমরা তার কিছুই জানতামনা আমরা ছিলাম শহিদ মিনারের পাশে জাতীয় প্রোগ্রামের ঝামেলায়। এসময় যখন ছাত্র ছাত্রিরা দিক বেদিক দৌড়াইতেছে আর আমাদের অধ্যক্ষকে অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ করছে তারা, আমরা তখন শিক্ষার্থীদের দমানোর চেষ্টা করি এবং সাময়িক ভাবে পরিস্তিতি সামাল দেই। পরে ঘটনার খবর পেয়ে দোয়ারাবাজার থানার পুলিশ পরিস্তিতি সান্ত করেন। এখন দেখি গত ৬ এপ্রিল অধ্যক্ষ সাহেব আমাদের বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. ওয়াছির আলী ও মো.মুজিবুর রহমানকে আসামী করেছেন তিনি আমরা তার তিব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি তারি সাথে দ্রুত মামলা প্রত্যাহার করে অধ্যক্ষের অপসার দাবী জানাচ্ছি।

এদিকে একই সময় অধ্যক্ষের অপসারণের দাবীতে শিক্ষার্থীদের মানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন সপ্না আক্তার,একরাম আলী, সায়মা আক্তার, ছাদিয়া হক রিয়া,মিছবাহ্,মুন্নি আক্তার, কাউছার মিয়া, ফাহিমা আক্তার, আমির হোসেন, ফাতেহা আক্তার, তিথি রহমান, মাছুমা আক্তার, লুভা আক্তার, রানী, ঝুমা আক্তার, মনি আক্তার, এমরান হোসেন, বাবলু মিয়া, বুশরা আক্তার প্রমুখ। শিক্ষার্থীরা বক্তব্যে বলেন, আমাদের বিদ্যালয়ের শিক্ষক হচ্ছেন, আমাদের গুরুজন আমরা চাই সৎ চরিত্রের শিক্ষক। আমরা প্রশাসনের কাছে দাবী জানাচ্ছি অনতি বিলম্বে লম্পট মুজিবুর রহমানের অপসারণ করে আমাদের বিদ্যালয়ে নতুন শিক্ষক নিয়োগ দেয়াহোক। এমনকি ঐ লম্্পট শিক্ষক আগের কর্মস্তলেও ইভটিজিংয়ের দায়ে অভিযুক্ত ঘিলাছড়া স্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মুজিবুর রহমান লাঞ্চিত হয়েছেন। এমনকি তার এই অপকর্মের সংবাদ ভিবিন্ন সংবাদ পত্রেও প্রকাশ হয়েছে। তারা আরোও বলেন আমরা যেখানে লম্পট নারী লোভী শিক্শকের অপসারণ দাবি করছ সেই ফাকে এলাকার কিছু দালাল চক্র তার পক্ষনিয়ে আমাদের গার্জিয়ানদের উপর মামলা করিয়েছে।

যে শিক্ষক শিক্ষার্থীকে তার নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে যৌন হয়রানির চেষ্টা করতে পারে তার কাছে আমাদের মত কোন শিক্ষার্থী নিরাপদ নয়। শিক্ষার সুন্দর পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে এবং শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে অভিলম্বে শিক্ষক নামের কলঙ্ক মুজিবুর রহমানকে ঘিলাছড়া স্কুল এন্ড কলেজ থেকে দ্রুত অপসারণ করে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যাবস্তা নেয়া হোক।

সমাজ সেবক মনোয়ার আলী মনর (মামলার আসামী) বলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুজিবুর রহমান অবৈধ ভাবে বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে বেডরুম করেছেন। এইরুমে দিনের বেলা তিনি সব দর্জা জানালা বন্ধ রাখতেন এ যারা নিরিহ শিক্ষার্থী তাদের কে একা ডেকে নিয়ে তার শরী টিপেে দেয়ার কথা বলতেন। আমরা এর এত বিষয় জানতামনা। এঘটনার পর থেকে তার এত অপকর্মের কথা প্রকাশ হচ্ছে। আমাকে মামলার আসামী করা হয়েছে আমি ঐদিন ছিলাম আমাদের নরসিংপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জাতীয় প্রোগ্রামে এর পরও আমাকে হয়রানি করার উদ্যেশে আসামী করা হয়েছে।

দোয়ারাবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ঘিলাছড়া স্কুল এন্ড কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি কাজী মহুয়া মমতাজ বলেন, এব্যাপারে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে আগামী সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

Top