বগুড়ার শেরপুরে পৃথক ধর্ষণের চেষ্টা ॥ দুই লম্পট আটক

download-7.jpg

শেরপুর(বগুড়া)প্রতিনিধি ঃ
বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় পৃথক ধর্ষণের চেষ্টা ঘটনায় অভিযোগের প্রেক্ষিতে এনামুল হক (৩২) ও আবু শামিম (৩২) কে আটক করেছে থানা পুলিশ।
জানা যায়, উপজেলার খামারকান্দি ইউনিয়নের শুভগাছা গ্রামের গোলজার হোসেনের মেয়ে শুভগাছা দাখিল মাদ্রাসার ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রি । ১৬ এপ্রিল (মঙ্গলবার) সকাল ৯টার দিকে বিলপাড়া ক্ষেত এলাকা থেকে ছাগলের জন্য ভুট্টার পাতা সংগ্রহ করতেছিল এ সময় একই গ্রামের আব্দুস ছামাদের ছেলে এনামুল হক পূর্ব থেকে তাদের ভুট্টার জমি দেখতে গিয়ে পাশের জমিতে ওই ছাত্রিকে ভুট্টার পাতা ছিড়তে দেখে তাকে জোড় পূর্বক ভুট্টার ক্ষেতের ভিতর নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে। ছাত্রিটির চিৎকারে মাঠে কাজ করা আশপাশের কৃষকরা এগিয়ে আসলে লম্পট পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ছাত্রির বাবা গোলজার হোসেন বাদি হয়ে শেরপুর থানায় এনামুলকে আসামি করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে শেরপুর থানা পুলিশের এস আই ইকবাল হোসেন ভুইয়া সঙ্গিয় ফোর্স নিয়ে লম্পট এনামুলকে শেরপুর পৌর শহরের তালতলা এলাকা থেকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। অপরদিকে কুসুম্বি ইউনিয়নের উচুল বাড়িয়া গ্রামের মৃত আজাহার আলীর ছেলে দলিল লেখক আবু শামিম দীর্ঘদিন ধরে পাশের বাড়ির মুদি দোকানদারের স্ত্রী মোর্শেদা(৪২)কে কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এতে সাড়া না পেয়ে আবু শামিম গত সোমবার সন্ধ্যায় ওই গৃহবধুর বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে ভিতরে ঢুকে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। গৃহবধুর চিৎকারে আশেপাশের বাড়ির লোকজন এগিয়ে এসে আবু শামিমকে হাতেনাতে আটক করে থানা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশের এস আই আতোয়ার হোসেন সঙ্গিয় ফোর্স নিয়ে আবু শামিমকে থানায় নিয়ে আসেন। এ ঘটনায় মোর্শেদা বাদি হয়ে শেরপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
এ ব্যাপারে শেরপুর থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বুলবুল ইসলাম বলেন, আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Top