ডব্লিউটিও’র সহযোগিতা চাইলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি

56119603_583968345439833_4629688421093212160_n.jpg

বাংলাদেশের উন্নয়নে ডব্লিউটিও’র সহযেগিতা চেয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। জেনেভায় বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সদর দপ্তরে বুধবার অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের ৫ম ট্রেডপলিসি রিভিউ-এর প্রথম সভায় তিনি এ সহযোগিতা কামনা করেন, বৃহস্পতিবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ শাখা থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। সভায় বাংলাদেশের বাণিজ্য, শিল্প, বিনিয়োগ ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ ও সংস্কারসমূহ তুলে ধরে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার পরামর্শ মোতাবেক বাংলাদেশ বিশ্ববাণিজ্যে সক্ষমতা অর্জন করেছে। রপ্তানি বাণিজ্যে বাংলাদেশ সুনামের সঙ্গে এগিয়ে চলছে। তিনি বলেন, ‘গত অর্থবছরে বাংলাদেশের রপ্তানি ছিল প্রায় ৩৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০২১ সালে রপ্তারি লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বাংলাদেশের রপ্তানি প্রত্যাশার চেয়েও ভালো। বাংলাদেশ বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। বরাবরই বাংলাদেশ এ সংস্থায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলছে। টিপু মুনশি বলেন, ‘বাংলাদেশ ইতোমধ্যে এলডিসি থেকে বেড়িয়ে উন্নয়নশীল দেশে প্রবেশের প্রথম ধাপ সফলভাবে অতিক্রম করেছে। ২০২৪ সালে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হবে। তখন বিশ্ববাণিজ্যের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় উন্নয়নশীল বাংলাদেশের জন্য ডব্লিউটিও’র সহযোগিতা প্রয়োজন হবে। বিশেষ করে ট্রিপস চুক্তির মেয়ার বৃদ্ধির সুবিধা বাংলাদেশের প্রয়োজন। ২০৩৩ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত এলডিসিভুক্ত দেশগুলো এ সুবিধা পাবে। ঔষধ শিল্প বাংলাদেশের জন্য খুবই সম্ভাবনাময়। বাংলাদেশে ব্যবসা পরিচালনায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ডিজিটাল পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। বাংলাদেশ এখন পেপারলেস ট্রেডে সক্ষমতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশ ডব্লিউটিও’র পেপারলেস ট্রেড পলিসি চুক্তিতে প্রথম স্বাক্ষরকারী দেশ। ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন নয় বাস্তব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘ভিশন-২০২১’ ঘোষণা করেছেন। ২০২১ সালের আগেই ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা হবে এবং ২০৪১ সালে বাংলাদেশ হবে বিশ্বের উন্নত দেশ। টিপু মুনশি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। দেশি-বিদেশী বিনিয়োগকারিগণ বিনিয়োগ করার জন্য এগিয়ে আসতে শুরু করেছে। বাংলাদেশ সরকার বিনিয়োগে বিশেষ সুযোগ-সুবিধা প্রদান করছে। আগামী ১৫ বছরে এখানে ১০ মিলিয়নের বেশি মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। অতিরিক্ত রপ্তানি আয় হবে ৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ডব্লিউটিও ট্রেডপলিসি রিভিউ বডির চেয়াম্যান অ্যাম্বাসেডর টিহাংকির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার প্রায় সকল সদস্য দেশের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন। বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি সভায় প্রতিবেদন এবং সদস্য দেশ সমূহের লিখিত প্রশ্নের আলোকে বক্তব্য উপস্থাপন করেন। বাণিজ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের পর কানাডার অ্যাম্বাসেডর বাওয়ের, ডব্লিউটিও সেক্রেটারিয়েট আলোচনায় অংশ নেন। অতপর মুক্ত আলোচনা পর্বে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, অষ্ট্রেলিয়া ও জাপানসহ ৩০টি দেশ অংশগ্রহণ করে। মুক্ত আলোচনার সদস্য দেশসমূহ বাংলাদেশের অব্যহত উন্নয়ন, ২০১২ হতে ২০১৮ পর্যন্ত অব্যহতভাবে প্রায় ৮% জিডিপি গ্রোথ রেট, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, বিদ্যুতসহ অবকাঠামো উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়নসহ বাণিজ্য ও বিনিয়োগ ক্ষেত্রে উন্নয়নের প্রসংসা করেন। সভায় সদস্যগণ দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নয়নের জন্য প্রনিত ভিশন ২০২১ সহ ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রচেষ্টার প্রশংসা করেন। উপ¯স্থিত সদস্যদের মধ্যে অনেকে রোহিঙ্গা রিফিউজিদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রশংসা করেন। সভায় বাংলাদেশের আমদানি শুল্ক কমানোসহ বাণিজ্য ও বিনিয়োগের নীতিমালা উদারীকরণের জন্য ও একাধিক দেশের প্রতিনিধি অনুরোধ জানান।
আগামী ০৫ এপ্রিল বাংলাদেশের ট্রেডপলিসি রিভিউয়ের দ্বিতীয় পর্বে অর্থাৎ প্রশ্নাত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে ১৮টি দেশ ১৪০টি লিখিত প্রশ্ন দাখিল করেছে। বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল উক্ত প্রশ্ন সমূহের জবাব দেবেন। বাণিজ্যমন্ত্রী গত ০২ এপ্রিল বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার মহাপরিচালক ড. রবার্তো আজাভেদো‘র সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠকে মিলিত হন।
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সির নেতৃত্বে বাণিজ্য সচিব মো: মফিজুল ইসলাম, জেনেভায় বালাদেশ মিশনের ¯স্থায়ী প্রতিনিধি শামীম এম আহসানসহ ১৬ সদস্যের প্রতিনিধিদল এ ট্রেডপলিসি রিভিউ সভায় অংশগ্রহণ করেন।

Top