সান্তাহারে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ীতে হামলা লুট সংক্রান্ত দ্রুত বিচার আইন মামলার আসামীরা এখনও অধরা

MOMIN-KHAN-ADAMDIGHI-BOGRA-NEWS-23-03-2019-2.jpg

মোঃ মোমিন খান, আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি ঃ

বগুড়ার আদমদীঘির সান্তাহারে উপজেলা আওয়ামীলীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আনছার আলীর বাড়ীতে দলবদ্ধ ভাবে অনধিকার প্রবেশ ও ত্রাস সৃষ্টি করে হামলা ভাংচুর মারপিট ও নগদ টাকা স্বর্ণালংকার লুট সংক্রান্ত দ্রুত বিচার আইন মামলার মুল আসামী নব নির্বাচিত উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদুর রহমান পিন্টু, মাইন,শাকিলসহ অপর আসামীদের পুলিশ ৬ দিনেও গ্রেফতার করতে পারেনি। সজল ও শুভকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করলেও অপর আসামীরা এখনও অধরা থাকায় বাদি ন্যায় বিচার পাবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন।

মামলা সুত্রে প্রকাশ, মামলার বাদি আনছার আলী মাইক মার্কা ও প্রধান আসামী মাহমুদুর রহমান পিন্টু টিউবওয়ের মার্কা নিয়ে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যার পদে প্রতিন্দন্দ্বিতা করেন। আনছার আলী ভোটে পরাচিত হন এবং মাহমুদুর রহমান পিন্টু জয়লাভ করেন। গত ১৯ মার্চ বিকেল ৫টায় মাইক্রো স্ট্যান্ডে পরাজিত প্রার্থী আনছার আলীর ছেলে মারুফ হাসান রবিনের সাথে নির্বাচিত প্রার্থী মাহমুদুর রহমান পিন্টুর সমর্থক মামলার আসামীদের মধ্যে কথা কাটাকাটি, উত্তেজনা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর রেশ ধরে সন্ধ্যা ৭টায় মামলার এজাহারভুক্ত প্রধান আসামীর হুকুমে অপর আসামীরা দলবদ্ধ ভাবে বাদির বসতবাড়ীতে অনধিকার প্রবেশ করে ত্রাস সৃষ্টি ও হামলা করে বাড়ীর বৈদ্যুতিক মিটার, পানির পাইিপ ভাংচুর করে। এসময় বাধা দিলে হামলাকারিরা বাদি ও তার স্ত্রী মুন্নি বেগমকে মারপিটে জখম ও শয়ন ঘরে প্রবেশ করে স্বর্ণলংকার ও নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় রাতেই আনছার আলী বাদি হয়ে নব নির্বাচিত উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদুর রহমান পিন্টু, ছাত্রলীগ নেতা সজল, শুভ, মাইন মিরাজসহ ১২জনের নাম উল্লেখসহ আরও বেশ কয়েকজন অজ্ঞাত ব্যক্তির বিরুদ্ধে থানায় দ্রুত বিচার আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।
গতকাল শনিবার বিকেলে মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুর রাজ্জাক জানান, আসামীদের ধরতে প্রায় রাতে বিভিন্ন স্থানে সাঁড়াশি অভিযান চলছে। তারা আত্মগোপনে থাকায় গ্রেফতারে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে।
#

Top