৩ মিনিটের জন্য বেঁচে গেলো টাইগাররা ‘

received_318085162228037.png

অনলাইন ডেস্ক ;

শুক্রবার জুমুআর নামাজ পড়তে যাওয়ার আগে ‘ক্রাইস্টচার্চের’ একটি মসজিদে আনুমানিক সময় ১:৪০ মিনিটে এক ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা হয়। হামলাকারীর নাম ব্রেন্ডন ট্যারান্ট ফ্রম।বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম জুমুআর নামাজ আদায়ের লক্ষ্যে একটি মসজিদে যাওয়ার পূর্ব মুহূর্তে এ ঘটনা ঘটে। ‘আল নূর’ নামের ওই মসজিদটি ডিন এভিনিউতে অবস্থিত এবং টেস্ট ভেন্যু থেকে একটু দূরে। সেখানেই ঘটে গেলো এই ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা। ব্রেন্ডন ট্যারান্ট ফ্রম নামক ঐ বন্দুকধারী মসজিদে ঢুকে অতর্কিত এই হামলা চালিয়েছে। বিষয়টা টের পেয়ে ৩ মিনিট পথ দূরে তাকতেই দ্রুতই ‘হ্যাগলি’ পার্ক দিয়ে ফিরে যান ‘তামিম-মিরাজরা’। একটু পরে যাওয়ায় প্রাণে বেঁচে যান তারা। ভিডিও চিত্রের বরাতে জানা যায় হামলাটি প্রায় ১৬ মিনিট ধরে চলে। উক্ত সময়ে সেখানে কোন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়নি। ক্রাইস্টচার্চের আল নূর ও লিনউড মসজিদে এই হামলার ঘটনায় অন্তত ৪৯ জন নিহত হন; আহত আরও ৪৮ জন।
এখন প্রশ্ন থেকে যায়, তাহলে কি এই হামলা টাইগারদের উপর হওয়ার কথা ছিল, এটা কি পরিকল্পিত নাকি কোন উদ্দেশ্য প্রণোদিত?

শনিবার শুরু হওয়ার কথা ছিল ক্রাইস্টচার্ট টেস্ট। শুক্রবার জুমার নামাজ পড়ে বিকালে অনুশীলনে যেতো টিম টাইগারা। কিন্তু তা আর হয়ে উঠেনি।যদি এটি বাংলাদেশ কিংবা ভারত পাকিস্তানে হতো তাহলে আজ বিশ্বের গগণমাধ্যম গুলোর তোলপাড় করা গরম নিউজের ঠেলায় চ্যানেল পাল্টানোই দায় হয়ে যেত। কিন্তু ১৬ মিনিটে ও কোন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাউকে দেখা যায় নি সে খানে।এর থেকে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ মনে করতেছেন যে “এই হামলা পরিকল্পিত, বাংলাদেশ টিমকে হামলা করার জন্যই এই হামলা।” ফেইসবুক & ইউটিউব মিডিয়াতে চলছে তীব্র সমালোচনার ঝড়।

তামিম ইকবাল ফেসবুকে লিখেছেন, ‘পুরো দল গোলাগুলির হাত থেকে বেঁচে গেলো। খুবই ভয়াবহ অভিজ্ঞতা, সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

ভয়াবহ এই ঘটনার বিবরণ দিয়ে দলের ডাটা অ্যানালিস্ট শ্রীনিবাস তার টুইটার অ্যাকাউন্টে লিখেছেন, ‘এক বন্দুকধারীর হাত থেকে রক্ষা পেলাম। এখনও নিশ্বাস স্বাভাবিকভাবে নিতে পারছি না। ভয় কাজ করছে সর্বত্র।’

জাতীয় দলের ট্রেনার মারিও ভিল্লাভারায়েনও ঘটনার বিবরণ দেন, ‘আমি ঘটনার পরপরই ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা কিছু দেখেনি। তবে গুলির শব্দ শুনে হ্যাগলি পার্ক দিয়ে মাঠে ফিরে গেছে। কোচিং স্টাফের সবাই টিম হোটেলেই ছিলেন। খেলোয়াড়রা গোলাগুলির শব্দ শুনেই দৌড়ে নিরাপদ স্থানে গিয়েছেন।’

উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম ফেসবুক পোস্টে জানিয়েছেন তার ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কথা। তিনি লিখেছেন, ‘ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে হামলা থেকে আল্লাহ আমাদের সবাইকে রক্ষা করেছেন। আমরা খুবই ভাগ্যবান। আমরা ঘটনার খুব কাছাকাছি ছিলাম। কখনোই এ ধরনের অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে চাই না। আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

শুক্রবার বেলা ১২টায় বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান পাপন গুলশানের নিজ বাসায় সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলবেন। ওখানেই হয়তো ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে বাংলাদেশের করণীয় বিষয়গুলো উঠে আসবে!

এদিকে ফেইসবুকের একটি পেইজ থেকে জানা যায়”Bangladesh Cricket Board (BCB) and New Zealand Cricket (NZC) has been made to cancel the Hagley Oval Test after a joint discussion.

Brought to you by Lifebuoy

(Bangladesh Cricket : The Tigers)”

দেখা যাক কি হয় এর পরিণতি। আই,সি,সি কিংবা বি,সি,বি ই-বা কি করে।

কে.এস,সবুজ বেপারী/ এনভি/ ডেস্ক

Top