কক্সবাজারে র‌্যাব এর হাতে দেশীয় অস্ত্র সহ এক ডাকাত গ্রেফতার

18-02-19-Dacoit.jpg

জাহেদ হাসান, কক্সবাজার।

কক্সবাজারে নবগঠিত এডহক ভিত্তিতে পরিচালিত র‌্যাবের নতুন ব্যাটালিয়ন “র‍্যাব-১৫” অভিযান চালিয়ে কক্সবাজার সদরের ঝাউবন এলাকা থেকে ২টি দেশীয় তৈরী অস্ত্র এবং ১টি লোহার পাইপসহ ১ জন ডাকাত গ্রেফতার।

র‌্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদ্ঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃংখলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। র‌্যাবের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে ধর্ষক, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, ডাকাত, খুনি, বিপুল পরিমান অবৈধ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার, মাদক উদ্ধার, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী, মানবপাচারকারী ও প্রতারকদের গ্রেফতার করে সাধারণ জনগনের মনে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এ বৎসর ১ জানুয়ারি ২০১৮ হতে অদ্য ১৮ ফেব্র“য়ারি ২০১৯ ইং তারিখ পর্যন্ত সর্বমোট ৩৬২ টি বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রসহ মোট ৪২ টি ম্যাগাজিন এবং ১০,২৮৪ রাউন্ড বিভিন্ন ধরনের গুলি/কার্তুজ উদ্ধারের পাশাপাশি ৫৭ লক্ষ ৮২ হাজার ৬৭০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ২৪ হাজার ৫৩৫ বোতল ফেন্সিডিল, ৭,৫৬১ বোতল বিদেশী মদ ও বিয়ার, ৯ লক্ষ ৮৭ হাজার ৫২৭ লিটার দেশীয় তৈরী মদ, ৯৪৬ কেজি ৯১৯ গ্রাম গাঁজা, ৭ কেজি ২৫০ গ্রাম আফিম এবং ২ কেজি হেরোইন উদ্ধার করেছে।

এরই ধারাবাহিকতায় এডহক ভিত্তিতে পরিচালিত নবগঠিত র‌্যাব-১৫ গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কক্সবাজার জেলার সদর থানাধীন ঝাউবন এলাকায় কতিপয় ডাকাত দেশীয় অস্ত্রসহ ডাকাতির উদ্দেশ্যে প্রস্তুতি গ্রহণ করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে অদ্য ১৮ ফেব্রæয়ারি ২০১৯ ইং তারিখ রাত ১.১০ ঘটিকার সময় র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালনা করে আসামী মোঃ নেজাম উদ্দিন (৩২), পিতা- মোঃ উলা মিয়া, গ্রাম- উত্তর নরবিলা, থানা- মহেশখালী, জেলা- কক্সবাজার’কে আটক করে। এ সময় অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন ডাকাত দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে উপস্থিত স্বাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীর দেহ তল্লাশী করে ২ টি কিরিচ এবং ১ টি লোহার পাইপ উদ্ধারসহ আসামীকে গ্রেফতার করা হয়। উল্লেখ্য যে, জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামী দীর্ঘদিন যাবত কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি করে এবং এলাকার লোকজনকে জিম্মি করে টাকা-পয়সা হাতিয়ে নেয়। আরো উলেখ্য যে, গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে কক্সবাজারের বিভিন্ন থানায় অস্ত্র, মাদক, খুন, ডাকাতিসহ সর্বমোট ১২ টি মামলা রয়েছে।

গ্রেফতারকৃত আসামী এবং উদ্ধারকৃত অস্ত্র সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নিমিত্তে কক্সবাজার জেলার সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

Top