সংরক্ষিত মহিলা আসন নিয়ে চলছে আলোচনা, মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে যারা

received_2113513555383506.jpeg

এম এ সামাদ
বিশেষ প্রতিনিধি

এবার জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত ৫০ মহিলা আসনের সদস্য (এমপি) হতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রত্যাশায় রয়েছে অসংখ্য নারী নেত্রী।এ জন্য তারা দলের শীর্ষ পর্যায়ের সমর্থন পেতে বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

আগামী ৩০ জানুয়ারি একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হবে। অধিবেশন শুরুর আগে সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্যরা নির্বাচিত হতে পারেন। দ্রুতই এ নারী আসনের নির্বাচন এবং মনোনয়ন প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে জানা গেছে।
তাই অনেকেই প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে গিয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করার চেষ্টা করছেন। আবার অনেকে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজনদের সঙ্গে দেখা করে মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা করছেন।
আওয়ামী লীগের একাধিক সুত্রে জানা গেছে, নতুন নেতৃত্ব তৈরি এবং সুযোগ দেওয়ার জন্য এবার সংরক্ষিত আসনে কিছু নতুনদের সুযোগ দেওয়া হতে পারে।
এবার সংরক্ষিত নারী (মহিলা) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে আলোচনায় রয়েছে যারা:

ড. শাম্মি আক্তার, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি। ঝরনা বাড়ৈ, সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামীলীগ। মারুফা আক্তার পপি, সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি। সাফিয়া খাতুন, সভাপতি,বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি। শমি কায়সার,অভিনেত্রী। রোকেয়া প্রাচীর, অভিনেত্রী। নাজমা আক্তার, সভাপতি,যুব মহিলা লীগ,কেন্দ্রীয় কমিটি। অপু উকিল,সাধারণ সম্পাদক, যুব মহিলা লীগ,কেন্দ্রীয় কমিটি। সৈয়দা জেবুন্নেছা হক। কেয়া চৌধুরী। তারানা হালিম।সাবিনা আক্তার তুহিন।অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম। শেখ মিলি। মাহামুদা বেগম ক্রিক, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি। রোজিনা নাসরিন রোজি, দপ্তর সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি। ফারহা দিবা দীপ্তি,সহ-সম্পাদক,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি। অ্যাডভোকেট রুবিনা মিরা, সহ-সম্পাদক,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি। আরিফা রহমান রুমা, সহকারী পরিচালক,উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়। প্রকৌশলী ইছমত আরা বেগম ইসমু, সহ- সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় উপ- কমিটি। সুলতানা রাজিয়া পান্না, সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি। সোহেলী সুলতানা সুমি, সহ-সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি। রেখা আলম চৌধুরী, সাবেক কাউন্সিলর, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। নাসরীন সুলতানা, সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি। শারমিন সুলতানা লিলি, সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগ,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি। নূরজাহান আক্তার সবুজ, সহ-সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি। ইসমত আরা হ্যাপি, সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি। তামান্না নুসরাত বুবলী, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগ। হুমায়রা লতিফ পান্না, সাধারণ-সম্পাদক,মাদারীপুর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ। আয়সা জাবিন,সহ-সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ,কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি।জাকিয়া সুলতানা শেফালী,মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি।
সংরক্ষিত ৫০টি আসনের মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রাপ্ত আসন অনুযায়ী আওয়ামী লীগ পাবে ৪৩টি। এরপর বিরোধীদল জাতীয় পার্টি ৪টি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ১টি এবং স্বতন্ত্র ও অন্যান্য দল মিলে ২টি আসন পাবে। নিয়ম অনুযায়ী প্রতি ৬টি আসনের বিপরীতে যে কোনো দল বা জোট ১টি সংরক্ষিত আসন পাবে। সে হিসেবে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ, বিকল্পধারাসহ অন্যান্যদের কোনো সংরক্ষিত আসন পাওয়ার সম্ভাবনা নেই।

Top