উপজেলা নির্বাচনে কক্সবাজার সদরে আলোচনায় যারা

received_386545445413928.jpeg

মিছবাহ উদ্দিন#
সদ্য সমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরপরই উপজেলা নির্বাচনের ইঙ্গিত দিয়েছেন নির্বাচন কমিশন। তোড়জোড় শুরু হয়েছে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের। ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং গণমাধ্যমেও প্রচারণা চলাচ্ছে প্রার্থীরা। বিশেষ করে সরকার দলীয় মনোনয়ন পেতে প্রার্থীরা স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন। নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করতে বিভিন্নভাবে উপস্থাপন করছেন প্রার্থীদের কার্যক্রম ও অবস্থান। এমনকি ক্ষমতাসীন দলের একাধিক প্রার্থী নির্বাচনী কার্যক্রম চালাতেও দেখা যাচ্ছে। তবে তরুণরাই এবারের উপজেলা নির্বাচনের হাল ধরতে আগ্রহী। অনেক তরুণ নেতারা নিজেদের প্রার্থী ঘোষণা দিয়ে দোয়াও চেয়েছেন ভোটারদের কাছে। সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে যাদের নাম লোকমুখে শুণা যাচ্ছে তারা হলেন, সাবেক জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আবুতালেব। যিনি গতবার নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করেছিলেন। সাবেক জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও জালালাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইমরুল হাসান রাশেদ, সাবেক জেলা ছাত্রলীগ নেতা ও বর্তমান সেচ্ছাসেবকলীগ সাধারণ সম্পাদক কাইছারুল হক জুয়েল, ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) ও শ্রমিকলীগ সভাপতি আমজাত হোসেন ছোটন রাজাসহ অনেকে।
এ ব্যাপারে আবু তালেব বলেন, এবারও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে অংশগ্রহন করবো। এমনকি দলীয় প্রতীক পেলে বিজয়ও নিশ্চিত।
ইমরুল হাসান রাশেদ মনে করেন, নেত্রী এবার তরুণদেরকেই মূল্যায়ণ করবেন যেটা বিভিন্নভাবে ইঙ্গিত দিয়েছেন। তাই দলীয় প্রতীক পেলে তিনি চেয়ারম্যান পদে লড়বেন। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে যাচ্ছেন তিনি।
অপর প্রার্থী কাইছারুল হক জুয়েল বলেন আমার বাবা বীরমুক্তিযোদ্ধা মুজাম্মেল হক বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর ও আমরণ জেলা আ’লীগ সভাপতি ছিলেন। এমনকি আমার সমস্ত পরিবার বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথেই হাটছি। যদি নেত্রী মূল্যায়ন করে তবে নৌকা প্রতিক নিয়েই উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিবো।
এদিকে আমজাদ হোসেন ছোটন রাজা বলেন বঙ্গবন্ধুর সপ্ন বাস্তবায়নে নিজেকে কাজে লাগাতে চাই। ইতিমধ্যে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে নিজেকে জড়িত রেখেছি। তাই উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

Top