পেকুয়া উপজেলায় নৌকার প্রার্থী হয়ে চমক দেখাতে পারেন মোহাম্মদ হোছাইন বিএ!

received_2014580962177297.jpeg

নিজস্ব প্রতিনিধি–
আসন্ন উপজেলা নির্বাচনকে সামনে রেখে পেকুয়া উপজেলায় বিএনপি জামায়াত প্রার্থীদের মাঠে দেখা না গেলেও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা আটগাট বেঁধে মাঠে নেমেছেন। চলছে নবীন প্রবীণদের ব্যাপক গণসংযোগ। পেকুয়া উপজেলায় বিএনপি দুর্গ ভাঙতে আওয়ামী লীগ বেশ তত্পর হয়ে উঠেছে। অন্যদিকে বিএনপি নির্বাচনে এলে এবং উক্ত উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রবীণ ও গ্রহণযোগ্য ভাল প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া না হলে আওয়ামী লীগের জন্য বিজয় হওয়া বড় ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়াবে বলে মনে করছেন সাধারণ ভোটাররা ।
এ জন্য দলীয় টিকিট নিশ্চিত করতে হ্যাভিওয়েট প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী সদস্য প্রবীণ সাংবাদিক কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের সদস্য মোহাম্মদ হোছাইন বিএ স্থানীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষনেতাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে চলছে।
অন্যদিকে কেন্দ্রীয় কমিটির হাইকমান্ডের নেতাদেরও সমর্থন পাওয়ার আশায় মোহাম্মদ হোছাইন বিএর সমর্থকরা। প্রাপ্ত তথ্য মতে জানা যায় সদ্য সম্পন্ন হওয়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় সংসদ সদস্য প্রার্থীর পক্ষে নিজ এলাকায় বিভিন্ন দলীয় ও রাজনৈতিক কর্মকান্ড ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক, কর্মকান্ডে, নিরলস ভাবে দিন রাত কাজ করে গেছেন,দলীয় প্রার্থী বিজয় নিশ্চিত করতে মোহাম্মদ হোছাইন।
এদিকে নির্বাচনের দিন যত ঘনিয়ে আসবে প্রার্থীর সংখ্যা আরো কিছুটা বৃদ্ধি পাবে বলে দলীয় নেতাকর্মীরা মনে করেন। তবে বর্তমানে বেশ কয়েকজন প্রার্থী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়ার আশা ব্যক্ত করেন। তবে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রচার বিমূখ প্রার্থী হিসেবে সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য সমাজসেবক হিসেবে পরিচিত দৈনিক আপন কণ্ঠের সম্পাদক মোহাম্মদ হোসাইন বিএ প্রকাশ্যে প্রচার-প্রচারণা না করলেও বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে সরব উপস্থিতি লক্ষ করা যাচ্ছে। আগামী উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থী হিসেবে ব্যক্তি ইমেজ, দলীয় পরিচয়, বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের বিষয়গুলো দলীয় নেতাকর্মীরদের অবহিত করছেন।
উক্ত বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, আমি নিজেও পেকুয়া উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রাত্যাশী, তবে জেলা আওয়মীলীগের প্রবীণ নেতা দুঃসময়ের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের অন্যতম কান্ডারী জেলা আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা মোহাম্মদ হোছাইন যদি দলীয় প্রার্থী এবং তাকে যদি দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করা হয় সেটি হবে সাধারণ বঙ্গবন্ধুর সৈনিকদের জন্য ত্যাগের উপহার, আশাকরি ত্যাগীনেতাকে মূল্যায়ন করা হলে আমার মতো যারা নৌকার প্রার্থী হতে মাঠে নেমেছে সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধ ভাবে মোহাম্মদ হোছাইন এর পক্ষে কাজ করে পেকুয়া উপজেলাকে নৌকার ঘাঁটিতে পরিণত করবে, বিজয় নিশ্চিত করার মধ্য দিয়ে।
এবিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের আরেক প্রভাবশালী সদস্য জিএম কাশেম বলেন, ত্যাগী এবং জনকল্যাণে নিবেদিত নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করে নেতৃত্বের শূন্যতা পূরণে সফল বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক প্রবীণ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ হোসাইন বিএ।
তিনি আরো বলেন,দীর্ঘদিন ধরে বিএনপির দখলে থাকা পেকুয়া উপজেলাকে উদ্ধার করতে হলে সর্বমহলের গ্রহণযোগ্য ব্যাক্তি হিসেবে পরিচিত মোহাম্মদ হোসাইন এর নেতৃত্ব গুনের গুরুত্ব দিয়ে আগামী দিনে মোহাম্মদ হোছাইনকে সামনের কাতারে নিয়ে আসার ইচ্ছা সময়োপযোগী ও তাৎপর্যপূর্ণ পেকুয়া উপজেলার উন্নয়নের স্বার্থে।
উপজেলা ছাত্রলীগের আরেক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান,পেকুয়া উপজেলায় এখন দখলবাজী চাঁদাবাজি সন্ত্রাসী কর্মকান্ড নিত্যনৈতিক ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে।
আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে যাদের নাম শুনা যাচ্ছে তাদের অধিকাংশই কোন না কোন ভাবে ঐসব অপরাধের সাথে জড়িত। তবে দীর্ঘদিনের পরিক্ষত প্রবীণ জেলা আওয়ামী লীগের নেতা মোহাম্মদ হোছাইন ছিল তার ধরাছোঁয়ার বাহিরে। এমন ক্লিন ইমেজের নেতাদের নৌকার প্রার্থী করা হলে বিজয় ছিনিয়ে আনতে সহজ হবে।
জেলা আওয়ামী লীগের আরেক নেতা বলেন, মোহাম্মদ হোছাইন বিএ ১৯৭৫ এর পরবর্তী দলের কঠিন দুঃসময়ে আওয়ামী লীগের হাল ধরে টানা ২২ বছর কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে সততার সাথে,আর সাধারণ নেতাকর্মীদের আগলে ধরে রেখেছিল। ১১বছর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে জেলাব্যাপী সংগঠনকে গতিশীল করতে কাজ করে গেছেন কঠিন দুঃসময়ে।
তার জীবনের শেষ মুহুর্তে আশাকরি দলীয় প্রতীক দিয়ে পেকুয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী করে তার মেধা ও দলের প্রতি যে শ্রম ও সময় দিয়েছে তার মূল্যায়ন করবে।
এদিকে প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে প্রবীণ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ হোছাইন বিএ বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে প্রার্থী হতে চাই, দল যদি আমাকে নৌকার প্রতীকে নির্বাচন করার সুযোগ দেয় তাহলে বর্তমান পেকুয়া উপজেলার প্রধান সমস্যা দখলবাজি চাঁদাবাজি বন্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করব। অবহেলিত পেকুয়া উপজেলার প্রতিটি গ্রামে স্থানীয় সাংসদ সদস্যকে সাথে নিয়ে উন্নয়নের স্বার্থে স্কুল-কলেজ মাদ্রাসায় ব্যাপক উন্নয়ন অব্যহত রাখব। পেকুয়া উপজেলার প্রতিটি মানুষ যেন নিরাপদ জীবন যাপন করতে পারে তার জন্য সমস্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে আমার প্রথম কাজ। আশাকরি দল আমাকে নৌকার প্রতীক দিয়ে নির্বাচন করার সুযোগ দিবে। এবং দলীয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ আমাকে বেচে নিবে শেষ পর্যন্ত।

Top