এমপি হওয়ার চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কর্মী হওয়া ও গর্বের : এড. তালুকদার মোহাম্মদ ইউনুস

49751008_769297693432293_1786777640053506048_n.png

ছবিঃ সংগ্রহিত

সদ্য সমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েও আবার দলীয় সিদ্ধান্তে মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়া জাতীয় সংসদের সাবেক প্যানেল স্পীকার, দুইবারের সংসদ সদস্য ও বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট তালুকদার মোঃ ইউনুস বলেছেন, এমপি নির্বাচিত হওয়ার চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একজন কর্মী হয়ে দলের জন্য কাজ করা অনেক গৌরবের।
প্রথমে তাকে মনোনয়ন বঞ্চিত করায় বরিশাল-২ আসনের দলীয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে সর্বস্তরের সাধারণ ভোটারদের কান্নার রোল পরে যায়। তারা কঠোর আন্দোলন কর্মসূচীর প্রস্তুতি নিলেও শক্তহাতে তাদের নিভৃত করে নিজে মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েও তার আসনে যাকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে তার পক্ষে দিনরাত পরিশ্রম করে ভোটের মাধ্যমে বিজয় অর্জন করে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছেন সাবেক সাংসদ তালুকদার মোঃ ইউনুস
শুক্রবার রাতে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে একান্ত আলাপকালে তিনি (ইউনুস) বলেন, বর্তমান মন্ত্রী পরিষদসহ সংসদ সদস্যদের মধ্যে সবাই যোগ্য। মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েও কোন আক্ষেপ নেই। গণমানুষের জন্য কাজ করতে চাইলে জনপ্রতিনিধি হওয়া লাগবে এমন কোন বিধান নেই। আমরা যে যার অবস্থান থেকেই মানুষের জন্য কাজ করতে পারি। এনিয়ে আক্ষেপের কিছু নেই।
সূত্রমতে, স্কুল জীবন থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতির মধ্যদিয়ে রাজনীতিতে হাতেখরি হয় তালুকদার মোঃ ইউনুসের। এরপর বঙ্গবন্ধুর আহবানে সারাদিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন, পাকিস্তানীদের হাতে আটক হয়ে নির্মম নির্যাতন, ৭৫ পরবর্তী বিনাবিচারে কারাভোগ, বিএনপি-জামায়াত সরকারের আমলে হামলা-মামলার স্বীকারসহ নানান চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে বর্তমানে বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন অ্যাডভোকেট তালুকদার মোঃ ইউনুস।
২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দক্ষিণাঞ্চলের রাজনৈতিক বটবৃক্ষখ্যাত আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর অবর্তমানে তারই (আবুল হাসানাত) স্নেহধন্য তালুকদার মোঃ ইউনুস বরিশাল-১ আসন থেকে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। প্রথমবারের নির্বাচনেই সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর দুর্নীতি কিংবা স্বজনপ্রীতির উর্ধ্বে থেকে তার রাজনৈতিক অভিভাবক আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর নির্দেশনায় এলাকার উন্নয়নে অবদান রাখেন।
ফলশ্রুতিতে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরিশাল-২ (উজিরপুর-বানারীপাড়া) আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে দ্বিতীয়বারের মতো তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে জাতীয় সংসদের প্যানেল স্পীকার নির্বাচিত হন। দ্বিতীয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর সকল লোভ লালসাকে বিসর্জন দিয়ে বিতর্কের উর্ধ্বে থেকে নির্বাচনী এলাকা উজিরপুর ও বানারীপাড়ায় ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়ার পর দলীয় সিদ্ধান্তকে হাসিমুখে মেনে নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সংগঠিত করে জেলার সংসদীয় আসনগুলোতে নৌকা মার্কার প্রার্থীদের বিজয়ী করার জন্য তিনি দিনরাত পরিশ্রম করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বুকে ধারণ করে দলীয় সিদ্ধান্তে অনড় অবস্থানে থাকা অ্যাডভোকেট তালুকদার মোঃ ইউনুস দলমত নির্বিশেষে সকলের কাছে একজন সাদামনের মানুষ হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়।
বরিশালের রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, জেলার ছয়টি নির্বাচনী আসনেই বিএনপির মনোনয়ন বঞ্চিত কাউকেই ক্ষোভে নির্বাচনী মাঠে দেখা যায়নি। আর
সেখানে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েও পুরোটাই ব্যতিক্রর্মী ছিলেন দুইবারের নির্বাচিত সাংসদ তালুকদার মোঃ ইউনুস। নেতাকর্মীদের নিয়ে তিনি দলীয় মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা দেয়া থেকে শুরু করে নির্বাচনের দিন পর্যন্ত তিনি (ইউনুস) নিরলস পরিশ্রম করে প্রার্থীর বিজয়ের মাধ্যমে প্রমান করেছেন এমপি হওয়ার চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কর্মী হওয়াটাই গৌরবের।

এনভি/রুবেল

Top