চট্টগ্রাম-০৭ আসনে নির্বাচনী জল্পনা কল্পনা

received_2173485086238184.jpeg

স্টাফ রির্পোটার;রাঙ্গুনিয়া ঃ

রাঙ্গুনিয়ায় আওয়ামীলীগ-বিএনপিতে দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দানের শেষ তারিখ ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে। মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমাদানের ক্ষেত্রে আওয়ামীলীগের চেয়ে বিএনপির প্রার্থী তালিকা তিনগুণেরও বেশি। চট্টগ্রাম-৭ রাঙ্গুনিয়া(আংশিক বোয়ালখালী) আসন থেকে আওয়ামীলীগ থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ শেষে জমা দিয়েছেন ৪ জন এবং বিএনপিতে ১৪ জন।
আওয়ামীলীগের ৪ জন হলো বর্তমান সাংসদ ও কেন্দ্রিয় আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, চট্টগ্রাম নগর আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী, চট্টগ্রাম উত্তরজেলা যুবলীগের সহসভাপতি ওসমান গণি চৌধুরী ও রাঙ্গুনিয়ার লালানগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. কাজী মো. ইউনুস। আওয়ামীলীগের ৪ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী হলেও আওয়ামীলীগ থেকে ড. হাছান মাহমুদই মনোনয়ন অনেকটা নিশ্চিত বলে বিশ্বস্তসুত্রে জানা যায়।
অন্যদিকে বিএনপি থেকে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন কেন্দ্রিয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরী, সাকা পুত্র হুম্মাম কাদের চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আবু আহমেদ হাসনাত, উপজেলা বিএনপির আহবায়ক শওকত আলী নূর, যুগ্ম আহবায়ক অধ্যাপক মোহাম্মদ মহসিন, উপজেলা বিএনপির সাবেক আইন সম্পাদক এডভোকেট রেজাউল করিম, উত্তরজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ইউনুছ চৌধুরী, চট্টগ্রাম উত্তরজেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজম খাঁন, উপজেলা বিএনপি নেতা শিল্পপতি আলহাজ ইলিয়াছ চৌধুরী, উত্তরজেলা বিএনপির সাবেক সহ শিল্প বিষয়ক সম্পাদক মো. আইয়ুব, উপজেলা বিএনপির অপর পক্ষের সভাপতি বর্তমানে কারাভ্যন্তরীণ অধ্যাপক কুতুব উদ্দিন বাহার, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) ফজলুল হক, উত্তরজেলা জিয়া পরিষদের আহবায়ক রোটারিয়ান জসিম উদ্দিন চৌধুরী, উত্তরজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মুরাদ চৌধুরী।
আগামী মঙ্গলবার সাক্ষাতকার অনুষ্ঠানে বসবেন এসব প্রার্থী। সাক্ষাতকারের মাধ্যমে রাঙ্গুনিয়ার বিএনপির প্রার্থী নির্ধারণ হবে বলে জানান বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতৃবৃন্দ। মনোনয়ন প্রত্যাশী একাধিক হলেও সবাই বলছেন, দল যাকে মনোনয়ন দেবেন তার পক্ষে কাজ করবে। বিএনপি থেকে ১৪ জন মনোনয়ন ফরম নিলেও নানা মনোনয়ন বোডের নিজেদের পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে সমর্থন যোগানোর জন্য বিএনপির এই দীর্ঘ প্রার্থী তালিকা বলে বিশ্বস্তসুত্রে জানা যায়। তবে বিএনপির প্রার্থী সাকা পরিবার থেকেই নির্ধারিত হবে বলে ধারণা করছেন একাধিক বিএনপি নেতা।
আওয়ামীলীগ বিএনপির বাইরেও রাঙ্গুনিয়া থেকে নির্বাচনে অংশ নিতে দলীয় মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক দল এলডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক এমপি মো. নুরুল আলম। ১৯৯১ সালের ৫ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি বিএনপির মনোনীত প্রার্থী ছিলেন। এছাড়াও রাঙ্গুনিয়ার নির্বাচনী কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রিয় মহাসচিব ও হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রিয় যুগ্ম সম্পাদক মুফ্তি ফয়জুল্লাহ, ইসলামী ফ্রন্টের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আবু নওশাদ নঈমী।

২০ দলীয় জোটের কাছে রাঙ্গুনিয়া আসনটি কর্ণেল অলি আহমদ অগ্রাধিকার ভিত্তেতে দাবী করেছেন জানিয়ে উপজেলা এলডিপির আহবায়ক সাবেক চেয়ারম্যান ফজলুল কাদের তালুকদার জানান, ১৯৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর নুরুল আলমের নেতৃত্বে রাঙ্গুনিয়ার আনাচে কানাচে যে পরিমাণ উন্নয়ন হয়েছে তা এখনো দৃশ্যমান। রাঙ্গুনিয়ার মানুষ তাঁকে ভুলেনি। তিনি ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হলে জয় সহজ হবে বলে তিনি জানান।
বিএনপির আহবায়ক শওকত আলী নূর বলেন, সাকা পরিবার থেকে প্রার্থী হলে রাঙ্গুনিয়ায় বিএনপি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ নিশ্চিত হবে। বিএনপিতে দীর্ঘ প্রার্থী তালিকা হলেও দল যাকে মনোনয়ন দেবেন সবাই তার পক্ষেই কাজ করবেন বলে আশা করি।’
উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি খলিলুর রহমান চৌধুরী জানান, রাঙ্গুনিয়ায় চার জন মনোনয়ন ফরম নিলেও হাছান মাহমুদই মনোনয়ন পাবেন বলে আমি শতভাগ বিশ্বাস করি। গত দশ বছরে তাঁর নেতৃত্বে রাঙ্গুনিয়ায় অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। দলের বাইরেও মাঠ পর্যায়ে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা বেড়েছে। তাই দল তাকে মনোনয়ন দিলে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ নিশ্চিত বলে আমি মনে করি।’

Top