ছাতকে বটেরখাল দখল নিয়ে দু’গ্রামবাসীর মধ্যে ফের সংঘর্ষের আশঙ্কা

download-5-2.jpg

ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি::ছাতকে বটেরখাল দখল নিয়ে দু’গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় এখনো এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। সংঘর্ষের পর স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের মধ্যস্থতায় তাৎক্ষনিক উভয়পক্ষ সালিশ মেনে নিলেও একপক্ষ অপর পক্ষকে ঘায়েল করতে সুনামগঞ্জ আদালতে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। যদিও অভিযোগটি এখনো মামলা হিসেবে গন্য হয়নি। সালিশি মুরব্বিদের অমান্য করে এক পক্ষ আদালতে অভিযোগ দায়ের করায় অপর পক্ষ অসন্তোষ্ট ও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছে। এতে দূ’গ্রামবাসীর মধ্যে আবারো রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।
জানা যায়, রাউলী রুপালী মৎস সমবায় সমিতির সম্পাদক কলিন্দ্র বিশ^াস কর্তৃক বটের নদী প্রকাশিত বটেরখালের কিছু অংশ লিজ গ্রহণ করে দীর্ঘদিন ধরে মাছ আহরণ করে আসছেন। এর মধ্যে ভূলবশত সোনামপুর মৌজার ৮৪ নং দাগের কিছু অংশ লিজে অন্তর্ভুক্তি না হলেও চৌআদ্দাতে তিনি অংশিদার। কলিন্দ্র বিশ^াসের লিজকৃত কিছু অংশের ভোগাধিকারে রয়েছেন সিংচাপইড় ইউনিয়নের খাঁসগাঁও গ্রামের করম আলী মেম্বার। এ হিসেবে রাউলী রুপারী মৎস্য সমবায় সমিতি দীর্ঘদিন ধরে লিজের ন্যায় ওই অংশটুকুও দখলে রেখেছেন। কিন্তু একই ইউনিয়নের সাতগাঁও গ্রামবাসী বটের নদী প্রকাশিত বটেরখালের ওই অংশটুকু তাদের দখলে নেয়ার চেষ্টা চালায়। এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কলিন্দ্র বিশ^াসের লোকজন ও সাতগাঁও গ্রামবাসীর মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এক পর্যায় জেলা প্রশাসকের নির্দেশে বিষয়টি নিস্পত্তি করার জন্য ৬ নভেম্বর স্থানীয় কুমারকান্দি দাখিল মাদরাসা মাঠে এক সালিশ বৈঠক অনুষ্টিত হয়। বৈঠকে বটের নদী প্রকাশিত বটেরখালের বিরোধকৃত অংশটুকু দখল পূর্বক মাছ আহরণ করবে বলে সাতগাঁও গ্রামের ছাদ মিয়া তার মতামত ব্যক্ত করলে সালিশি ব্যক্তিত্ব কালিপুর গ্রামের রাখাল বাবু তর্কে জড়িয়ে পড়েন। এ নিয়ে সাতগাঁও গ্রামের ছাদ মিয়া ও খাসগাঁওয়ের করম আলী পক্ষদ্বয়ের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনার কিছুক্ষণ পর খাসগাঁও বাজারের পূর্বের মাঠে দু’গ্রামবাসীর লোকজন তুমুল সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষের কারণে সালিশ বৈঠকটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। প্রায় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের মহিলাসহ অর্ধশত মানুষ আহত হয়। সংঘর্ষে দেশিও অস্ত্র-শস্ত্রসহ বন্দুক দিয়েও একাধিক রাউন্ড গুলিও করা হয়েছে বলে করম আলী মেম্বার অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, খাসগাঁও গ্রামের মৃত মাফিক আলীর পুত্র আশ্রব আলী (৪৫) ও মৃত শরিয়তুল্লাহর পুত্র আতাউর রহমান (৩৫) গুলিবিদ্ধ হয়ে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। সংঘর্ষে অবৈধ অস্ত্র বন্দুক দিয়ে গুলি করে তাদের দু’জনকে গুলিবিদ্ধ করা হলেও পুলিশ এসব অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে তৎপর নেই। কুমারকান্দি গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী মখছুছুর রহমান বলেন, বাড়ি থেকে তিনি ৩/৪টি বন্দুকের গুলির আওয়াজ শুনেছেন। তাৎক্ষনিক খাসগাঁও বাজারে ফোন করেও সত্যতা পেয়েছেন যে, সাতগাঁও গ্রামবাসীর পক্ষে বন্দুক দিয়ে একাধিক গুলি চালানো হয়েছে। সংঘর্ষে গুলা-গুলির শব্দ শুনেছেন বলে গিয়াস উদ্দিন, নিম্বর আলীসহ আরো অনেকেই জানিয়েছেন। তবে কোন পক্ষ গুলি করেছে এটি তাদের জানা নেই। সাতগাঁও গ্রামের পক্ষ থেকে বন্দুক দিয়ে গুলি করা হয়েছিল বলে সত্যতা স্বীকার করেন প্রত্যক্ষদর্শী কালিপুর গ্রামের কুতুব উদ্দিন। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন করম আলীসহ এলাকাবাসি।
এ ব্যাপারে সাতগাঁও গ্রামের ছাদ মিয়ার সাথে কথা হলে তারপক্ষের লোকদের বন্দুক ব্যবহারের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, শান্তিপূর্ণ সালিশ বৈঠকে করম আলী গংরা আমাদের সঙ্গে গায়েপড়ে সংঘর্ষ বাঁধিয়েছে। ওই সংঘর্ষে আমার পক্ষের অন্তত ১২জন লোক গুরুতর আহত হয়েছে। এখনো তাদের সন্ত্রাসী তৎপরতার ভয়ে গ্রামবাসী খাসগাঁও বাজার যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন।##

Top