আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রেসক্লাবে হিজড়া সম্প্রদায়ের মানববন্ধন!

45628130_2190474817862042_6977985068903956480_n.jpg

আকাশ আহমেদ রাজু,ঢাবি :

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ঝাঁক তরুণ শিক্ষার্থীদের প্রচেষ্টায় একীভূত সমাজ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে গড়ে ওঠা সংগঠন , ‘বৃহন্নলা’র উদ্যোগে আজ জাতীয় প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে একটি মানববন্ধনের আয়োজন করা হয় ।মানববন্ধনটি সকাল ১১ টায় শুরু হয়ে মানববন্ধনটি দুপুর ১ টায় শেষ হয় !

বৃহন্নলা সংগঠন বৃহন্নলাদের/হিজড়া সমাজের শিক্ষা ,করমসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি , প্রবেশগম্য পরিবেশ তৈরির মিশন নিয়ে যাত্রা যাত্রা শুরু করে ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে। বৃহন্নলা বা হিজড়া সম্প্রদায়ের সকল মানবিক ও নাগরিক অধিকার আদায়ের প্রশ্নেও বৃহন্নলা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ।

তাই , উক্ত মানববন্ধনে আগামী একাদশ আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বৃহন্নলা বা হিজড়া জনগোষ্ঠীর মধ্য থেকে প্রতিনিধি নির্বাচন, জাতীয় সংসদে বৃহন্নলাদের প্রতিনিধির জন্য একটি আসন সংরক্ষণ, সকল রাজনৈতিক দলের সাংগঠনিক কাঠামোতে বৃহন্নলাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরন ও আসন্ন নির্বাচনের ইসতেহারে সকল রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে তাদের অধিকার নিশ্চিতকরনের প্রতিশ্রুতি দানের দাবি জানানো হয়!

মানববন্ধনে সংহতি জানাতে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনইস্টিটিউটের বিশেষ শিক্ষা বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান । তিনি তার বক্তব্যে বলেন, ”বৃহন্নলারা আমাদের অন্য সবার মতই, তাদেরও আমাদের সবার মত পরিবার রয়েছে, কিন্তু সমাজের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির কারনে তারা আজ পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন, অধিকার থেকে বঞ্চিত।
” তিনি অভিযোগ জানিয়ে বলেন,”বৃহন্নলাদের উন্নয়নের জন্য সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের কোনোটির ই তেমন বাস্তবায়ন লক্ষ্য করা যাচ্ছে না , আগামী নির্বাচনে সকল দলের ইসতেহারে আমরা বৃহন্নলাদের অধিকার পূরনের প্রতিশ্রতি দেখতে চাই , সংসদে তাদের জন্য একটি সংরক্ষিত আসন আমরা দেখতে দেখতে চাই।” বৃহন্নলাদের অধিকার পূরনের প্রশ্নে দায়িত্বশীলদের গড়িমসির সমালোচনাও করেন তিনি এবং সমাজের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির অনেক বাস্তব অভিজ্ঞতাও তুলে ধরেন তার বক্তব্যে!

উক্ত মানববন্ধনের সাথে আরো সংহতি প্রকাশ করেছেন-

১। প্রফেসর ড সাদেকা হালিম, ডীন,সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৤

২। সৈয়দা তাহমিনা আখতার, ডিরেক্টর, শিক্ষা ও গবেষণা ইনইস্টিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৤

৩। প্রফেসর ড তারিখ আহসান, বিশেষ শিক্ষা বিভাগ, আই ই আর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৤

নিজেদের দাবি জানাতে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা শহরের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত হিজড়া জনগোষ্ঠীর প্রায় ৪০জন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ সচেতন শিক্ষারথীবৃন্দ ও বৃহন্নলার সকল এক্সিকিউটিভ ও ভলান্টিয়ারবৃন্দ ।

সংহতি প্রকাশ করতে আসা ডেফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী হৃদয় সাহা বলেন, “সচেতন একজন শিক্ষার্থী হিসেবে তাদের নাগরিক অধিকার প্রাপ্তির দাবি জানাতে আসতে পেরে আমার ভাল লাগছে, আইনগতভাবে তাদেরও নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ও বিভিন্ন দলে অংশ নিয়ে মত প্রকাশ এবং প্রতিনিধিত্ব করার অধিকার রয়েছে। ”

বৃহন্নলাদের পক্ষ থেকে নিজেদের দাবি জানাতে বক্তব্য রাখেন হাসনা, সাগরিকা, ইমু, রুবি, আলিশা সহ অনেকে ।

রুবি তার বক্তব্যে বলেন, “বাংলাদেশ ১১ লক্ষ রহিজ্ঞাদের আশ্রয় দিয়ে তাদের বাঁচিয়ে রাখতে পারলে হিজড়া জনগোষ্ঠির আমরা কি দোষ করেছি যে, আমাদের অধিকার পূরনে সবার এতো অবহেলা?”

হাসনা তার বক্তব্যে বলেন, ”একমাত্র আমাদের প্রতিনিধিই পারে আমাদের মনের কথা বুঝতে, আমাদের সমস্যাগুলো যথাযথভাবে তুলে ধরতে । তাই আমরা নির্বাচন করতে চাই, সংসদে সংরক্ষিত একটি আসন চাই, যার মাধ্যমে আমরা আমাদের দাবি জানাতে পারব সহজেই এবং তাতে আমাদের সম্পর্কে সবার ধারনা পালটে যাবে। আমরা একজন সাংবাদিক হতে চাই, হতে চাই একজন শিক্ষক, কিংবা অফিসার। অন্য দেশে সম্ভব হলে আমাদের দেশে কেনো নয়?”

বক্তারা সকলেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান তাদের(হিজড়াদের) স্বীকৃতি দানের জন্য এবং মানববন্ধনে উত্থাপিত দাবিগুলো বিবেচনয়ায় নেওয়ার অনুরোধ জানান ।

বৃহন্নলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো রোমান হোসেন তার বক্তব্যে আশা প্রকাশ করেন , বৃহন্নলাদের কর্মসংস্থানের সুযোগ দিতে পারলে , উপযুক্ত পরিবেশ দিতে পারলে এদেশের অর্থনীতিতেও ভূমিকা রাখতে পারবে হিজড়া সমাজ, ঘুচে যাবে অপরাধ , এ দেশ হবে স্বপ্নের একীভূত সোনার বাংলাদেশ।”

সমাপনী বক্তব্যে শিক্ষা ও গবেষণা ইনইস্টিটিউটের শিক্ষার্থী ও বৃহন্নলার সভাপতি সাদিকুল ইসলাম মানববন্ধনে উথাপিত দাবিসমূহ বিবেচনায় নিতে দায়িত্বশীলদের প্রতি আহ্বান জানান এবং দৃষ্টিভঙ্গি বদলে ফেলে একীভূত সমাজ বিনির্মাণে হিজড়া জনগোষ্ঠীকে নিজেদের পরিবারের সদস্য ভেবে আচরণ করার দাবি জানান ।

Top