জামালপুরে স্কুল মাঠ উন্নয়নে বরাদ্দের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

Jamalpur-Pic-01-2.jpg

রোকনুজ্জামান সবুজ, জামালপুর প্রতিনিধি:
জামালপুরের মেলান্দহে স্কুলমাঠ উন্নয়নে বরাদ্দকৃত প্রায় ৫ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার জাহানারা লতিফ হাইস্কুল মাঠ উঁচুকরণের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন কর্মসুচী টিআর-কাবিখা‘র আওতায় প্রায় ৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, জাহানারা লতিফ হাইস্কুলের মাঠে মাটি ভরাট ও মাঠ উন্নয়নে ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে কাবিখা ২ লাখ ৯৪ হাজার এবং ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে টিআর প্রকল্পের ২ লাখ টাকাসহ ৪ লাখ ৯৪ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়।
অভিযোগে জানা যায়, স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এমদাদুল হক কমিটির সদস্যদের সাথে আলোচনা না করে তার অনুগত সদস্য বোরহান উদ্দিনকে প্রকল্প সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফাকে সেক্রেটারি করে একটি প্রকল্প কমিটি গঠন করেন। প্রকল্প কমিটি প্রকল্পের কাজ না করে সমুদয় টাকা আত্মসাত করেছে বলে অভিযোগ ম্যানেজিং কমিটির সদস্য, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের। এ ব্যাপারে তারা জামালপুরের জেলা প্রশাসক এবং দুর্নীতি দমন কমিশনে একটি অভিযোগও দায়ের করেছেন।
ছাত্র অভিভাবক আফজাল হোসেন জানান, স্কুল মাঠটি অত্যন্ত নিচু। তাই বর্ষা মওসুমে পানি জমে থাকায় শিক্ষার্থীদের চলাচলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়।
ম্যানেজিং কমিটির সদস্য লাভলু আকন্দ জানান, আমি কমিটির সদস্য হলেও মাঠ উন্নয়ন প্রকল্পের বিষয়ে কিছুই জানিনা। প্রকল্পের মাঠ সংস্কারের দৃশ্যমান কোন কাজ হয়নি।
প্রকল্প সভাপতি বোরহান উদ্দিন জানান, আমাকে কাগজে-কলমে সভাপতি করা হয়েছে। টাকা কি হয়েছে জানিনা।
স্কুলের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফা জানান, খুবই চাপের মধ্যে আছি। এসব প্রকল্পের টাকা পেতে নানা জায়গায় ভাগ দিতে হয়। তিনি সাংবাদিকদের নিকট মাঠ সংস্কারের টাকার ব্যাপারে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি।
ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এমদাদুল হক জানান, টাকা জমা আছে। মাঠ উন্নয়নের পরিবর্তে ওই টাকা দিয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হবে।
মেলান্দহ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক জানান, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ ব্যাপারে জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবির জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অভিযোগ প্রমানিত হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Top