রামুর গর্জনিয়ায় প্রতারক চক্র কাতারের ভিসার প্রলোভন দেখিয়ে হাতিয়ে নিল দুইলাখ চল্লিশ হাজার টাকা।

IMG_20181003_014615.jpg

মোঃসাইদুজ্জামান সাঈদ,রামু:

কক্সবাজার জেলার রামু গর্জনিয়ায় কাতারের ভিসা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে দুই লাখ চল্লিশ হাজার টাকা আত্মসাৎ করার চাঞ্চল্যকর অভিযোগ পাওয়া গেছে।
বাদী আসাদ আলী ও ২ নং গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের দেওয়া রায় সূত্রে জানা যায়,রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম বোমাংখিল এলাকার মরহুম আব্দুল কাদেরের পুত্র শামসুল আলম কাতার প্রবাসী।গত বছর প্রতিবেশী মরহুম আব্দু শরীফের পুত্র আসাদ আলীর দ্বিতীয় সন্তান মোঃ ওমর ফারুক কে কাতারের ভিসা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে দুই লাখ চল্লিশ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন।টাকা হাতিয়ে নিয়ে কাতারের ভিসা আজ দেবে কাল দেবে বলে সময় ক্ষেপন করতে থাকে।এরই মধ্যে প্রবাস থেকে শামসুল আলম দেশে চলে আসেন।উভয় পক্ষ একে অপরের নিকট আত্নীয় ও বটে।শামসুল আলম দেশে আসলে আসাদ আলী কাতারের ভিসা দেওয়ার চাপ প্রয়োগ করিলে শামসুল আলম ভিসা দিতে অপরাগতা জানালে তখন উভয়ের মধ্যে আত্নীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায়।এক পর্যায়ে শামসুল আলমের কাছ থেকে টাকা ফেরত চাইলে প্রতারনার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন অজুহাত সৃষ্টি করে সময় ক্ষেপন করতে থাকেন।আসাদ আলী গত ১৯/৭/২০১৮ ইং গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদে পশ্চিম বোমাংখিল এলাকার মৃত আব্দুল কাদেরের পুত্র শামসুল আলম ও তার স্ত্রী লুৎফুন্নাহার কে আসামী করে একটি দরখাস্ত করেন।পরিষদ ২২/৭ ২০১৮ ইংরেজি উপস্হিত হওয়ার সমন জারী করলে বিবাদী পক্ষ সময় চেয়ে আবেদনের পেক্ষিতে ২৫/৭/২০১৮ ইংরেজি ধার্য তারিখ নির্ধারন করেন।ওই ধার্য তারিখে উভয় পক্ষ গ্রাম আদালতে হাজির হয়ে ইউনিয়ন পরিষদের সালিশ বিচার মানবে বলে লিখিত অঙ্গীকারনামা প্রদান করেন।উভয় পক্ষ প্রতিনিধি নিয়োগ করেন।বিচারকগণ উভয় পক্ষের জবানবন্দী গ্রহন করেন।তদন্ত ও স্বাক্ষীর মারফত ঘটনার সত্যতার প্রমান পান বিচারকরা।বিচারকরা ভিসা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে আসাদ আলীর নিকট থেকে নেওয়া টাকা ফেরত দিতে বললে প্রতারক শামসুল আলম অঙ্গীকার পুরনে গড়িমসি শুরু করেন।প্রথম কিস্তি দশ দিনের মধ্যে একলক্ষ টাকা দেবেন ও তিনমাস অন্তর বকেয়া টাকা আদায় করার অঙ্গীকার করলে ও পরবর্তীতে টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন বিবাদী কাতার প্রবাসী প্রতারক শামসুল আলম।
গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের একটি লিখিত রায়ের কপি সাংবাদিকদের হাতে দিয়ে অসহায় আসাদ আলী আক্ষেপ করে বলেন,প্রতারক শামসুল আলম গংদের প্রতারনার ফাদেঁ এখন তারা একেবারে নিঃস্ব।কোথাও প্রতিকার পাচ্ছেন না। প্রতারক শামসুল আলম গংদের কবল থেকে আত্মসাৎ কৃত টাকা উদ্ধার ও আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানান প্রশাসন সহ সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে।
এব্যাপারে অভিযুক্ত শামসুল আলমের মুটোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে ও সংযোগ না পাওয়ায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

Top