ভৈরবের ব্রহ্মপুত্র নদে সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অষ্টমীস্নান উৎসব অনুষ্ঠিত

29513488_10210031365054965_1911567545_o.jpg

মোঃ ফুরকান মিয়া, ভৈরব প্রতিনিধিঃ

আজ রবিবার ভৈরবে সনাতন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ঐতিহ্যবাহী অষ্টমীস্নান উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। শহরের পঞ্চবটী এলাকায় পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে অনুষ্ঠিতব্য অষ্টমীস্নান উৎসব শুরু হয় ভোরবেলা থেকে।

পুণ্যার্থীরা ফুল, বেলপাতা, ধান-দুর্বা, ডাব ও আমের পাতাসহ বিভিন্ন উপাচার নিয়ে মন্ত্র পড়ে শুরু করেন পাপমুক্তির স্নান।

বেলা বাড়ার সাথে সাথে সব বয়সী নারী-পুরুষের সমাগম ঘটতে থাকে। পূণ্য লাভের আশায় এখানে শত শত মানুষ পূণ্যস্নান করে পাপ মোচনের জন্য। সেই লক্ষ্যে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ব্রহ্মপুত্র নদের মিলনস্থলে এসে জমায়েত হয় হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা।

পূণ্যস্নানের পাশাপাশি অনুষ্ঠিত হয় পিন্ডদানসহ নানান পূঁজা। শত বছর ধরে চলে আসা এ অষ্টমীস্নান নির্বিঘ্নে করতে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষে নেয়া হয় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এ উপলক্ষ্যে এলাকায় বসেছে গ্রামীণ মেলা।

হিন্দু পুরাণ মতে, মহামুনি জন্মদগ্নির আদেশে পুত্র পরশুরাম মা রেনুকাকে কুঠার দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন। মাকে হত্যার শাস্তি হিসাবে কুঠার তার হাতেই লেগে থাকে। অনেক তপস্যা আর হিমালয়ে ব্রহ্মপুত্রের জলে স্নান করার পর পরশুরামের পাপ মুক্ত হয়। হাত থেকে খসে পড়ে কুঠার। এরপর ব্রহ্মপুত্রের সেই পবিত্র জল মর্ত্যরে মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পরশুরাম তার কুঠারটিকে লাঙ্গলের মতো করে টানতে টানতে পর্বত থেকে ব্রহ্মপুত্রের ধারা নিয়ে আসেন সমভূমিতে। অনেক দিন পর নারায়ণগঞ্জের লাঙ্গলবন্দে এসে থামে তার লাঙ্গলরূপী কুঠার। তখন থেকে ঐ এলাকার নাম হয় লাঙ্গলবন্দ।

Top