কক্সবাজারের ৮ উপজেলায় নির্মাণ হচ্ছে ৬২টি আশ্রয় কেন্দ্র

images-4.jpg

কায়সার হামিদ মানিক,উখিয়া:
কক্সবাজারের উপকূলীয় ও দূর্যোগপ্রবণ এলাকায় বহুমূখী আশ্রয় কেন্দ্র প্রকল্পের আওতায় ৬২টি সাইক্লোন সেন্টার নির্মাণ কাজ চলছে। প্রায় ৩১০কোটি টাকা ব্যয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম-সাইক্লোন সেন্টার নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন উখিয়া উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর।
এসব সাইক্লোন সেন্টারের মধ্যে উখিয়ায় ৭টি, চকরিয়া-১০টি, পেকুয়ায়-৫টি, কক্সবাজার সদরে-৫টি, কুতুবদিয়ায়-১১টি, মহেশখালীতে-১১টি, টেকনাফে-৭টি ও রামু-৪টি সহ ৬২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম-সাইক্লোন সেন্টার নির্মাণ হচ্ছে। প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন সেন্টার নির্মাণের প্রাক্কলিত ব্যয় প্রায় ৫কোটি টাকা বলে জানা গেছে।
জানা যায়, উখিয়ায় নির্মিত ৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম-সাইক্লোন সেন্টার গুলো হচ্ছে লম্বাঘোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম হলদিয়াপালং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্যম হলদিয়াপালং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সাবেক রুমখাঁ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রতœাপালং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব ভালুকিয়া তুলাতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কড়ইবনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।
লম্বাঘোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুর আহমদ বলেন, তাঁর বিদ্যালয়ে চলমান প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম-সাইক্লোণ সেন্টার নির্মাণ কাজ স্থানীয় সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি উদ্বোধন করেছেন।
ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইডিএ) এবং বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক সহায়তায় এলজিইডি-এর অধীন ‘বহুমূখী দুর্যোগ আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প (এমডিএসপি)’-এর আওতায় কক্সবাজার জেলায় ৬২টি সাইক্লোণ সেন্টার ও সংযোগ সড়ক নির্মাণের জন্য ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদিত হয়। এতে সরকারের ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০৯ কোটি ৫০ লাখ টাকা।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উখিয়া উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী আবদুল আলিম লিটন বলেন, প্রকল্পের প্যাকেজের কাজ পুরোদমে চলছে। ২ বছরের মধ্যে এসব প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম-সাইক্লোন সেন্টার নির্মাণ কাজ শেষ করার বাধ্য-বাধকতা রয়েছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে ঢাকার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওয়াহিদ কনষ্ট্রাকশন এসব সেন্টার নির্মাণ করছে। তিনি এও বলেন, কাজের গুণগত মান সরকারি সিডিউল অনুযায়ী হচ্ছে।

Top