হাসপাতালে সাধারণ রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করুন

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ২:০২ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৬, ২০২০

অ্যাডভোকেট মো. সাইফুদ্দীন খালেদ :

চিকিৎসা সেবা মানবতার সেবায় নিয়োজিত এক মহৎ পেশা। অন্যদিকে সেবা পাওয়া মানুষের মৌলিক অধিকার। অসুস্থ হওয়ার সাথে সাথে সাধারণত মানুষ অসহায় হয়ে পড়ে, দুর্বল হয়ে যায়। এই দুর্বল সময়ে চিকিৎসকই তার বড় অবলম্বন, যেন অসহায়ের সহায়। এজন্য চিকিৎসা সেবাকে মহান পেশা বলা হয়। মানুষের জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে যখন কারও কিছু করার সামর্থ থাকে না, ঠিক সেই সময়টাতে চিকিৎসকরাই এগিয়ে আসতে পারেন। মহান আল্লাহ তাঁর বান্দাদের সেবা করার যে দারুণ সুযোগ চিকিৎসকদের দিয়েছেন। চিকিৎসকদের কর্তব্য সমাজের প্রতি তার দায়িত্ব পালন করা ও জনকল্যাণমূলক রাষ্ট্রীয় আইন সমূহ মেনে চলা। চিকিৎসা পেশার মহত্ত্ব ও মানবতার কথা মনে রেখে একজন চিকিৎসক রোগীর সেবা করার জন্য সদা প্রস্তুত থাকবেন, এটাই স্বাভাবিক। রোগীর প্রতি চিকিৎসকের আচরণ হবে সৌজন্যমূলক, সৌহার্দ্যপূর্ণ ও সহানুভূতিশীল। রেজিষ্ট্রার্ড চিকিৎসকদের নির্দেশনা সংক্রান্ত মেডিক্যাল নীতিমালা রয়েছে। এই নীতিমালা একজন চিকিৎসকের সাধারণ কর্তব্য, রোগীর প্রতি কর্তব্য এবং সহকর্মী চিকিৎসকের প্রতি কর্তব্যের দিক নির্দেশনা বহন করে। ১৯৪৯ সনের ১২ অক্টোবর লন্ডনে বিশ্ব মেডিক্যাল এসোসিয়েশনের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক এই নীতিমালা পরিবর্তিতরূপে গৃহীত হয় এবং ইহাই জেনেভা ঘোষণা নামে পরিচিত। এই নীতিমালায় চিকিৎসকদের ব্যাপারে বলা হয় ‘‘আমি নিজে প্রতিজ্ঞা করতেছি যে, মানবতার সেবায় আমি আমার জীবন উৎসর্গ করব। আমি আমার সর্ব শক্তি দিয়া চিকিৎসা পেশার সম্মান ও গৌরবময় ঐতিহ্য বজায় রাখবার চেষ্টা করব। আমার রোগীর শারীরিক অবস্থাই আমার প্রথম বিবেচ্য বিষয় হবে। ধর্ম, গোত্র, জাতীয়তা, রাজনৈতিক মতাদর্শ