সুস্থ পরিবেশ সুস্থ মন গড়ে তোলে

নিউজ নিউজ

ভিশন ৭১

প্রকাশিত: ৭:৫৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০

পরিবেশের নিজস্ব একটি প্রভাব রয়েছে।তার এই প্রভাবটা মানবমনে প্রতিফলিত হয় সবচেয়ে বেশি। শিশুবেলায় শিখেছিলাম পরিবেশের ছোট্ট একটি সংজ্ঞা আর সেটা হলো-“আমাদের চারপাশে যা কিছু রয়েছে তাই আমাদের পরিবেশ”।পরিবেশ নিয়ে ছোট্ট এই কথার মাঝে রয়েছে কতকথা।

সুস্থ পরিবেশ হচ্ছে সুস্থ সংস্কৃতি আর নীতিবোধের সমন্বয়।সুস্থ পরিবেশ উন্নত মানসিকতা গঠনে সহায়ক।সুস্থ পরিবেশে বেড়ে ওঠা শিশু সুস্থ মানসিকতাসম্পন্ন হয়ে গড়ে ওঠে। শিশুকাল থেকেই শিশুর মাঝে মানবিকতাবোধ,সুস্থ সংস্কৃতিচর্চার মানসিকতা আর পরিবেশ সচেতনতা এসব বিষয় জাগিয়ে তোলে।

বর্তমান সমাজের অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়,সুস্থ পরিবেশ নিয়ে সমাজ সচেতন,বিজ্ঞজনদের ভাবনা আর বিশ্লেষণধর্মী লেখাযোখা যতটুকুন পরিদৃষ্ট হয় বরং অসুস্থ আর নীতিবোধহীন পরিবেশ সমূলে উৎপাটনে তাঁদের কার্যকর কর্মপরিকল্পনা আর পদক্ষেপহীন উদ্যোগ সমভাবে লক্ষ্যণীয়।

অসুস্থ পরিবেশের অসুস্থ তাপমাত্রায় কলুষিত হচ্ছে যুব সমাজ,তরুণ-তরুণীরা।যাদের অধিকাংশের মাঝেই নীতি-নৈতিকতার কোনো বালাই নাই।চলছে পরিবেশের সাথে তাল মিলিয়ে চলার প্রবণতা। যে তারুণ্যের মাঝে আগামীর সম্ভাবণা লুক্কায়িত থাকে,যার মাঝে সমাজ পরিবর্তনের অনিঃশেষ উদ্যম নিহিত। সে কিনা নিছক প্যারালাইজড সমাজব্যবস্থার কাছে জিম্মি থাকতে চায়।আর এভাবেই সে হারাতে বসেছে শিক্ষার প্রকৃত উদ্দেশ্য। আর এদিকে সমাজব্যবস্থা,পরিবেশ চলছে আপন গতিতে। যেন তাকে রুখবার সাধ্য কারো নাই।
অসুস্থ ও নোংরা সংস্কৃতি সুস্থ সমাজব্যবস্থার জন্য হুমকি। আদর্শ,নীতিবোধ,মার্জিত ব্যক্তিত্ব এতে জন্ম নেয়না।সে জায়গাগুলোতে সাহেদ,সাব্রিনা আর পাপিয়ার মতো ঘৃণীত,বিবেকবর্জিত শিক্ষিতজনদের জন্ম হয়।যারা পরিবেশকে অসুস্থ রাখতেই বেশ উৎফুল্ল।

এ জায়গা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে।বিজ্ঞজনদের ভাবনায়,বিশ্লেষকদের বিশ্লেষণে আর লেখকদের লেখায় শুধু নয়,এর আশু সংস্কারে সমাজের শিক্ষিত,সচেতন মানুষকে একযোগে এ কাজে ঝাপিয়ে পড়তে হবে।নিতে হবে সঠিক কর্মপরিকল্পনা। হ্যাঁ,একটি কথা মাথায় রাখতে হবে পরিবেশটাকে চলমান অবস্থা থেকে ভিন্ন অবস্থানে(নীতিহীনতা থেকে নীতিবোধে)-নিতে পরিবর্তকদের একটু বঞ্চনা,ঘাম ঝরা পরিশ্রম আর সময়ের পরিক্রমায় বদলে যাওয়া মানুষের বদলে যাওয়া আচরণের মুখোমুখি হতে হবে।এ ক্ষেত্রে ধৈর্য্য-ই হতে পারে শ্রেষ্ঠ মাধ্যম।

রবিউল্লাহ সরকার সাইফ
শিক্ষার্থী, আরবি বিভাগ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।