সোমবার ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
আমাদের সম্পর্কে
যোগাযোগ

সুন্দরগঞ্জের মেধাবী ছাত্রী সাবিনাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

নভেম্বর ২১, ২০১৯
প্রিন্ট
নিউজ ভিশন

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দিনমজুর বাবার কণ্যা সাবিনা আক্তার (১৪) দীর্ঘদিন ধরে কিডনিজনিত রোগে ভুগছে। তার দুই কিডনিতে পানি জমেছে। সে মুমূর্ষু অবস্থায় মৃত্যু পথযাত্রী। আর্থিক সমস্যার কারনে চিকিৎসা করাতে পারছে না দিনমজুর বাবা। দীর্ঘদিন যাবৎ কিডনিজনিত রোগে ভুগলেও টাকার অভাবে বন্ধ হয়ে গেছে তার চিকিৎসা। সাবিনা উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের মনমথ (কুটিপাড়া) গ্রামের ছামিউল ইসলামের মেয়ে ও পার্শবর্তী বামনডাঙ্গা বালিকা উচ্চ বিদালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। পারিবারিক সুত্র জানায়, প্রায় এক বছর আগে হঠাৎ করে সাবিনার শরীর ফুলে যায় । তারপর এলাকার পল্লী চিকিৎসকের দেয়া হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খেয়েই চলে তাঁর চিকিৎসা। কিন্তু ঔষধ খাওয়ার পর সাবিনার শারীরিক অবস্থার আরো অবনতি হয়। পুরো শরীরে পানি জমে আরো স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটে। পরে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারকে দেখালে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে কিডনির সমস্যা ধরা পড়ে। এরপর থেকে টাকার অভাবে অনিয়মিত ঔষধ খেয়েই কোন রকম চিকিৎসা চলছে তার। তাকে কিছুদিন আগে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার মতো অর্থ না থাকায় হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরিয়ে আনা হয়েছে। সাবিনা বর্তমানে রংপুর মেডিক্যাল কলেজের বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের প্রধান ডা. নিয়াজ আহাম্মেদের তত্ত্বাবধানে আছেন। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ইতোমধ্যে সাবিনার একটা কিডনি ড্যামেজ দেখা দিয়েছে। আরেকটা কিডনিও ঝুকির মধ্যে আছে বলে জানিয়েছে চিকিৎসক। দ্রুত অপারেশন করতে পরামর্শ দিয়েছে ডাক্তাররা। তা না হলে কিডনি দুটো পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যাবে। সাবিনার অপারেশন করার খরচ প্রাথমিক তিন লাখ টাকার মতো নির্ধারন করেছে চিকিৎসক। নুন আনতে পান্তা ফুরিয়ে যাওয়া দরিদ্র পরিবারের পক্ষে তার চিকিৎসা চালিয়ে একেবারে অসম্ভব। তাই দিনমজুর বাবার পক্ষে সাবিনার চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। ফলে উন্নত চিকিৎসা করা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ অবস্থায় সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার অনুরোধ করেছে সাবিনার পরিবার। সাবিনার বাবা ছামিউল ইসলাম বলেন, আমি দিনমজুরি করে যা রোজগার করি তা দিয়ে কোন রকম সংসার চলে। অন্যের ক্ষেত-খামারে কাজ করে মেয়ের চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া অসম্ভব। ইতোমধ্যে মেয়ের চিকিৎসা করতে গিয়ে অনেক ধারদেনা করেছি। সুদের উপর টাকা নিয়ে অনেক গুলো টেষ্ট করতে হয়েছে। কিন্তু তিন লাখ টাকা জোগাড় করে মেয়ের চিকিৎসার খরচ বহন করবো কিভাবে? হয়তোবা বিনা চিকিৎসায় মারা যাবে সে। আমি সমাজের সম্পদশালী ব্যক্তি ও হৃদয়বান মানুষকে এগিয়ে আসার অনুরোধ করছি। সাহায্য পাঠাতে ০১৮৭২১০৯৬৬০।

সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
logo

নিউজ ভিশন বাংলাদেশের একটি পাঠক প্রিয় অনলাইন সংবাদপত্র। আমরা নিরপেক্ষ, পেশাদারিত্ব তথ্যনির্ভর, নৈতিক সাংবাদিকতায় বিশ্বাসী।

সম্পাদক ও প্রকাশক : মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম

ঢাকা অফিস: ইকুরিয়া বাজার,হাসনাবাদ,দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ,ঢাকা-১৩১০।

চট্টগ্রাম অফিস: একে টাওয়ার,শাহ আমানত সংযোগ সেতু রোড,বাকলিয়া,চট্টগ্রাম |

সিলেট অফিস: বরকতিয়া মার্কেট,আম্বরখানা,সিলেট | রংপুর অফিস : সাকিন ভিলা, শাপলা চত্ত্বর, রংপুর |

+8801789372328, +8801829934487 newsvision71@gmail.com, https://newsvisionbd.com
Copyright@ 2021 নিউজ ভিশন |
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ‌্য মন্ত্রণালয়ে আবেদিত ।