ঢাকাশনিবার , ২ মার্চ ২০২৪
  1. সর্বশেষ

নতুন শিক্ষাক্রম ও আমার ভাবনা

প্রতিবেদক
নিউজ ভিশন
২ ডিসেম্বর ২০২৩, ১০:০১ অপরাহ্ণ

Link Copied!

মুহাম্মদ রমিজ উদ্দিনঃ

নতুন শিক্ষাক্রম নিয়ে আলোচনা হচ্ছে বেশি। আলোচনা হবার মতোই একটা শিক্ষা পদ্ধতি। নতুন শিক্ষাক্রম মানে নতুন কিছু হবে এটাই স্বাভাবিক কিন্তু সিস্টেমটা যে এতো অস্বাভাবিক হবে তা কল্পনাতীত ছিল।

নতুন শিক্ষা ব্যবস্থায় শিক্ষার্থীদেরকে গতানুগতিক মুখস্থ বিদ্যা এবং পুথিগত বিদ্যা থেকে বেরিয়ে এনে বাস্তবমুখী এবং পর্যবেক্ষণ ও পরিদর্শনের আলোকে সৃজনশীলমুখী এবং দক্ষ করে গড়ে তুলার ব্যর্থ চেষ্টা করা হচ্ছে। ব্যর্থ চেষ্টা বলার কয়েকটি কারণ আছে।

প্রথমত আমাদের দেশে আইনের বই কিংবা ধর্মীয় বিধিবিধানের বইয়ে যতটা নৈতিকতা আছে কিংবা বইয়ের পাতার নিয়মনীতি ও নীতিনৈতিকতায় আমরা যতটুকু বিশুদ্ধ বাস্তব প্রেক্ষাপটে তার সিকি ভাগও বিশুদ্ধ, পরিশুদ্ধ, স্বচ্ছ, সঠিক এর কোনটাই আমরা নই। সুতরাং কচিকাঁচা শিশুদেরকে পরিদর্শনের নিমিত্তে যদি মাঠ পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া হলে তারা সেখানে অনিয়ম, দুর্নীতি, অনৈতিক কর্মকান্ড ভিন্ন ভালো কিছু দেখবে না; যা দেখে তারা শিখবে এবং সেই দর্শন এবং পর্যবেক্ষণের আলোকে তারা ভালো কিছু লিখতে ও সৃষ্টি করতে পারবে।

যেমন ধরেন, কচিকাঁচা শিশুদেরকে ট্রাফিক পুলিশের কর্মকাণ্ড দেখানোর জন্য বিশ্বরোডে নিয়ে যাওয়া হলো। তারা সেখানে গিয়ে কী দেখবে? তারা কি সবুজ বাতি জ্বললে গাড়ি চলে এবং লালবাতি জ্বললে গাড়ি থেমে থাকে বইয়ে পড়া সেই দৃশ্য দেখবে নাকি পাশাপাশি পুলিশের সাথে ট্রাক চালকের লেনদেনের দৃশ্যও দেখবে! এ দৃশ্য কেবল ট্রাফিক পুলিশের ক্ষেত্রে নয় বাংলাদেশের প্রতিটি সেক্টরে যে দুর্নীতি এবং অনিয়ম তা পর্যবেক্ষণের তরে মাঠ পর্যায়ে গেলে কচিকাঁচা শিশুরা এসব দর্শন এবং পর্যবেক্ষণ থেকে অবশ্য ভালো কিছু গ্রহণ করতে পারবে না।

দ্বিতীয়ত নতুন শিক্ষাক্রমে বাস্তব অনুশীলনের নামে অভিনয় করে যা দেখানো হচ্ছে তা এক প্রকার মাকে নানুর গল্প শুনানোর মতোই। কারণ, এ দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান গ্রামে। গ্রামের প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। এবং শহরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায়ই শিক্ষার্থীও গ্রাম থেকে স্থানান্তর হয়ে আসা। সুতরাং তাদের প্রায়ই জানে কীভাবে রান্না করতে হয়, কীভাবে বিছানা তৈরি করতে হয়। কীভাবে কৃষকেরা ফসল ফলায় তার জ্ঞান তাদের নখদর্পনে। সুতরাং এসব প্র‍্যাক্টিক্যাল দেখানো মানে মাকে নানুর গল্প শুনানো।

অনুশীলনের নামে শিক্ষকদের নাচানাচি, সাইকেল চালানোর দৃশ্য, ব্যাঙের মতো লাফানো এসব অনুশীলন করে শেখানোর কোনো মানে হয় না। এসব প্র‍্যাক্টিক্যাল শিক্ষার সাথে এদেশের প্রায়ই আশির ভাগ শিক্ষার্থী শিশুকাল থেকে পরিচিত এবং অভ্যস্ত। অনেক পরিবারে কচিকাঁচা শিশুদের সাইকেল কিনে দেওয়া হয়। যাদের সাইকেল কিনে দেওয়ার সামর্থ্য নেই সেসব পরিবারের শিশুরা নিজ দায়িত্বে সাইকেল ভাড়া নিয়ে হাত পা ভেঙে হলেও শিখে ফেলে। সুতরাং ক্লাস রুমে এসব অভিনয় করে দেখানো মানে শিক্ষা ব্যবস্থাকে হাস্যকর করে তুলা এবং শিক্ষার্থীদেরকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিমুখ করার চেষ্টা করা।

ব্যাঙ কীভাবে লাফায় তাও এদেশের আশির ভাগ শিক্ষার্থী শিশুকাল থেকে দেখে আসছে। হাঁস কীভাবে ডাকে তাও জানে। সুতরাং এসব হাস্যকর শিক্ষা ব্যবস্থা কচিকাঁচা শিশুদের জানার কৌতূহলকে কবরস্থ করবে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিমূখ করবে।

এসব বাস্তব অনুশীলনের শিক্ষা ব্যবস্থা বাইরের উন্নত দেশের জন্য উপযুক্ত। ইউরোপ, চীন, জাপান, আমেরিকাসহ সেসকল দেশের জন্য প্রযোজ্য। যেসকল দেশে নৈতিকতা এবং নিয়ম কানুনের ভিত্তি খুবই মজবুত। তারা অমুসলিম হতে পারে কিন্তু ব্যক্তিগত এবং রাষ্ট্রীয় নৈতিকতার ভিত তাদের অনেক মজবুত। তাদের নিয়ম কানুন এবং নৈতিকতা খুবই কার্যকরী। সুতরাং তাদের কচিকাঁচা শিশুরা পথঘাট বা বাইরের জগতে গিয়ে বাস্তব দর্শন ও অনুশীলনের মাধ্যমে শিখতে পারবে। এ দেশে বইয়ে লেখা দার্শনিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, মনীষী ও পীর আউলিয়াদের গল্পই উপযুক্ত।

শিক্ষার্থীরা আগে বই খাতা কলম পেন্সিলের সাথে সম্পর্ক রাখত। আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থায় এখন সম্পর্ক মোবাইলের সাথে সম্পর্ক। যে মোবাইলের ইন্টারনেটের সাইটগুলো এমনভাবে সেটিংস করা; যেকোনো সাইটে সার্চ করা হোক না কেন নগ্নতার বিজ্ঞাপন আসবেই।

এ শিক্ষা ব্যবস্থা বা নতুন শিক্ষা পদ্ধতি থেকে আঁচ করতে পারি নতুন শিক্ষাক্রম নতুন প্রজন্মকে এক প্রকার মানসিক প্রতিবন্ধী হিসেবে তৈরি করবে। নতুন শিক্ষাক্রম পুরোদস্তুর চালু হওয়ার আগেই কর্তৃপক্ষের ভাবা উচিত তারা কি শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজিয়ে পরিশুদ্ধ করবে না কি উন্নত দেশের মতো নিজেদের নৈতিকতা এবং রাষ্ট্রীয় নৈতিকতার ভিত্তি মজবুত করবে!

177 Views

আরও পড়ুন

জমকালো আয়োজনে রাবি প্রেসক্লাবের ৩৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

মাদারীপুরে রেটিং দাবা প্রতিযোগিতার উদ্বোধন

দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের সম্ভাব্য ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আবুল কালামের গণসংযোগ

যশোরবাসীর দাবির মুখে সাবমার্সিবল বিল বাতিল করেছে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ

বস্তায় আদা চাষে লাভবান ঝিকরগাছার কৃষক সোবহান

নওগাঁর পত্নীতলায় জাতীয় স্থানীয় সরকার ও জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত

মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে ফ্যাশন ও উন্নত প্রযুক্তির সমন্বয়ে পণ্য তৈরিতে জোর হুয়াওয়ের

দশম শ্রেণির সিলেবাসে হবে এসএসসি পরীক্ষা, এইচএসসি হবে দুইবার!

জাবিতে ভর্তিচ্ছুদের পাশে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সমিতি

জাবিতে চট্টগ্রাম জেলা সমিতির ’হেল্প ডেস্ক’

আদমদীঘিতে স্কুল ছাত্রী অ’প’হ’রণ : পিতা পুত্রসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

রাবিতে ‘ভেন্ডিং মেশিন’র সেবা পাবে শিক্ষার্থীরা