ঢাকারবিবার , ১৯ মে ২০২৪
  1. সর্বশেষ

তরুণ কবি তানভীর সিকদারের একান্ত সাক্ষাৎকার

প্রতিবেদক
নিউজ ডেস্ক
১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৫:৫৪ অপরাহ্ণ

Link Copied!

———-

তানভীর সিকদার। একজন সম্ভবনাময় তরুণ কবি ও বাচিকশিল্পী। বর্তমান সময়ে তরুণ কবিদের মধ্যে যে ক’জন তরুণ কেবলমাত্র কবিতা দিয়ে পাঠকের টনক নড়াতে পেরেছেন তার মধ্যে তানভীর সিকদার একজন। যার কবিতা নিয়ে প্রসংশা করেছেন বরেণ্য কবি আল মাহমুদ, তাঁর কি আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়? চলুন তাহলে আজ আড্ডা দেওয়া যাক এই সৃষ্টিশীল তরুণ কবির সাথে।

সাক্ষাৎকার জুড়ে থাকবেন : ফারজানা মিহি।

মিহি : আস্সালামু আলাইকুম। কবি সাহেব কেমন আছেন? আপনার সাম্প্রতিক ব্যস্ততা নিয়ে কিছু বলুন!

তানভীর : ওয়ালাইকুম আস্সালাম। আলহামদুলিল্লাহ, ভালো আছি। আশা করছি আপনিও ভালো আছেন। বর্তমানে কবিতা লেখার পাশাপাশি নিজের পড়াশোনা এবং আবৃত্তি নিয়ে কাজ করছি। আমার বিশ্বাস আবৃত্তির মাধ্যমে কবিতা কম সময়ে বেশি মানুষের কাছে পৌঁছানো যায়। এছাড়াও ছোটদের জন্য একটা আবৃত্তি এবং শুদ্ধ উচ্চারণের কর্মশালা আয়োজনের ছক করছি আমার নিজ উপজেলায়।

মিহি : বাহ! প্রথম কবিতা কোন ক্লাসে থাকতে লিখেছিলেন, কার অনুপ্রেরণায়?

তানভীর : ক্লাস ফাইভে যখন ছিলাম। আমাদের বাংলা বইতে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুলের ছোট্ট করে একটা জীবনী ছিলো। মূলত ওটা পড়ার পরই আমার মাথায় কবিতা লেখার ভূত চাপে। কেবল ভাবতাম, রুটির দোকানে চাকরি করা এই ছেলেটা যদি কবিতা লিখতে পারে, আমি কেনো পারবো না?

মিহি : বাংলা সাহিত্যের অমর কবি আল মাহমুদের সাথেও আপনার একটা বিশেষ স্মৃতি আছে। সে স্মৃতিটা যদি বলতেন।

তানভীর : সোফায় বসে আছি কবির মগবাজারের বাসায়। খানিক পর প্রিয় কবি আল মাহমুদ দাদা এসে বসলেন আমার পাশে। সালাম বিনিময় হলো, পরিচয় দিলাম। হাতে পাণ্ডুলিপি দেখে আচমকা বলে উঠলেন, এতো ছোট মানুষ তুমি! তোমার বইপ্রকাশ করার সাহস কিন্তু আমাকে অবাক করছে। আমি লজ্জায় মৃদু হাসলাম। তারপর পাণ্ডুলিপি থেকে শুনলেন একে একে অনেকগুলো ছড়া। এই স্মৃতিটা আমার আমৃত্যু মনে থাকবে।

মিহি : ফুল পাখিদের মতো, সেফটিপিনে গেঁথে আছে মায়াবতী সুখ, আমাদের জুঁইগুলো সুঁই দিয়ে গাঁথা। কোন বইটিকে আপনি বেশি প্রাধান্য দেবেন?

তানভীর : হাহাহা। এটা আমার জন্য একটু কঠিন হয়ে গেলো। কারণ সবগুলোই আমার সৃষ্টি। প্রতিটি বইতেই আমি আমার সেসময়কার সবচেয়ে সুন্দর চিন্তাটা ধারণ করেছি। তবে কেবলমাত্র কবিতার কথা বলতে বললে সেফটিপিনের কবিতাগুলোর কথা বলতে পারি। এই কবিতাগুলোতে আমি আমার সর্বোচ্চটা দিতে পেরেছিলাম বলে আমার ধারণা।

মিহি : তেইশের বইমেলায় তো আমাদের জুঁইগুলো সুঁই দিয়ে গাঁথা খুব বাজিমাত করলো। বইমেলা শেষে অক্ষরবৃত্ত সম্মানীও দিলো। পরবর্তী বই কবে পাচ্ছে পাঠক?

তানভীর : হুম। ধন্যবাদ অক্ষরবৃত্তকে। তবে নতুন বই নিয়ে এখনই কিছু বলতে পারছি না। কেননা বছর বছর কবিতার বই প্রকাশ করার পক্ষে আমি কখনোই ছিলাম না। একজন কবির সব বই কালোত্তীর্ণ হয় না। অনেকগুলো বই থেকে একটা হয়। সেই বইয়ের সবকটা কবিতা থেকে একটা কবিতা কালোত্তীর্ণ হয় আর সেই কবিতার অনেকগুলো পঙতি থেকে একটা পঙতি পাঠকের মুখে মুখে হাজার বছর বেঁচে থাকে।

মিহি : আমাদের সময় দেওয়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ প্রিয় কবি। ভালো থাকুন।

তানভীর : আপনাকে এবং সময় নিয়ে যারা এই সাক্ষাৎকাটি পড়বেন তাদেরও ধন্যবাদ।

140 Views

আরও পড়ুন

শেরপুরে আন্তঃজেলা গরু চোরচক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার ও চোরাই গরু উদ্ধার

বিচ্ছুর বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

শারমিন মীমের কবিতা “ভেজাল”

শেরপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

শার্শায় ভোটগ্রহণ নিয়ে কর্মকার্তাদের সাথে নির্বাচন কমিশনারের ব্রিফিং

নাগরপুরে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বিএনপি নেতা দুলাল বহিষ্কার

গাজায় চলমান গণহত্যার বিরুদ্ধে বুটেক্স শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

রূপগঞ্জের জাঙ্গীর কুদুর মার্কেট-নদীরঘাট রাস্তাসহ ড্রেন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

নাগরপুরে হেভিওয়েট প্রার্থী না থাকায় জমেনি উপজেলা নির্বাচন

“রাখে আল্লাহ, মারে কে” : নাইক্ষ্যংছড়ি ছালামী পাড়ায় মোটরসাইকেল মার্কার সমর্থনে উঠান বৈঠকে চেয়ারম্যান প্রার্থী তোফাইল

কবি ফিরোজ খানের কবিতা

নাইক্ষংছড়িতে প্রিজাইডিং সহকারী প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ !!