ঢাকা২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সন্ত্রাস, মাদক ও জুয়া নির্মূলে জিরো টলারেন্সের ঘোষণা দিয়েছেন ওসি মুহাম্মদ নাজির আলম

প্রতিবেদক
নিউজ ভিশন

ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২১ ৮:৪৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিনিধি :
সন্ত্রাস, মাদক ও জুয়া নির্মূলে জিরো টলারেন্সের ঘোষণা দিয়েছেন দোয়ারাবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ নাজির আলম।

দোয়ারাবাজার থানা পুলিশের উদ্যোগে বাংলাবাজার ইউনিয়ন বিট ও কমিউনিটি পুলিশিং সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারী ) বিকেল ২টায় বাংলাবাজার ইউনিয়নের চৌধুরীপাড়া বাজারে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাবাজার ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য নজরুল ভুইয়ার সভাপতিত্বে ও দোয়ারাবাজার থানার এ এস আই আছকির মিয়ার পরিচালনায় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,দোয়ারাবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ নাজির আলম।
সভায় উপস্থিত ছিলেন দোয়ারাবাজার প্রেস ক্লাবের সদস্য সচিব সাংবাদিক এম এ মোতালিব ভুঁইয়া, সাবেক ইউপি সদস্য হাছিব উদ্দিন,সমাজসেবক হাজী ইস্কান্দর আলী,আল আমিন লাভলু,আবু আহমেদ বাচ্চু,মনির মাষ্টার, সাদেক মাষ্টার, আক্কাছ আলী মড়ল,আব্দুল কুদ্দুছ, রমিজ উদ্দিন,আব্দুর রহমান মোল্লা, জসিম রানা,জাহাঙ্গীর আলম, আবুল কাশেম,হাছন আলী,মানিক মিয়া,আজিম মিয়া প্রমুখ

সভায় দোয়ারাবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ নাজির আলম বলেন, আমরা সন্ত্রাস ,জুয়া খেলা ও চাঁদাবাজের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছি। এখন মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছি। মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে এখনই সবাইকে শপথ নিতে হবে।’ খুন, চুরি-ডাকাতি বন্ধে পুলিশের পাশাপাশি জনগণকেও দায়িত্ব নিতে হবে । সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে একটি এলাকা সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নতি সম্ভব। শুধুমাত্র পুলিশের মাধ্যমে আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ ও অপরাধ দমন সম্ভব নয়। মাদকদ্রব্য নির্মূল, জঙ্গিবাদ দমন ও সব ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধ। জুয়া ও তীর খেলা বন্ধে পুলিশ জিরো টলারেন্স ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

মুহাম্মদ নাজির আলম বলেছেন, মাদক সেবনকারীদের ধরে মাদক কারবারিদেরকেও ধরা হবে। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা এসপি স্যারের নির্দেশে দোয়ারাবাজার থানা পুলিশ মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূলে ব্যাপকভাবে কাজ করে যাচ্ছে । আমরা আশা রাখছি অচিরেই দোয়ারাবাজার থেকে মাদককে নির্মূল করা হবে।

তিনি আরও বলেন, শুধু সাধারণ জনগণই নয়, মাদকের সঙ্গে পুলিশ জড়িত থাকলেও তাকে ছাড় দেয়া হবে না।কথায় নয়, কাজের মাধ্যমে আমার পরিচয় দিতে চাই। তিনটি চাকরিকে আমি চাকরি মনে করি না। এগুলো হল-পুলিশ, সাংবাদিক ও চিকিৎসক। এই চাকরি গুলোকে আমি সেবামূলক পেশা বলেই মনে করি। কারণ এ পেশাগুলো বেশির ভাগ জনগণের সাথে সরাসরি সম্পর্ক যুক্ত। আমি পুলিশ হিসাবে নিজেকে সেবক মনে করি। মাদকের বিরুদ্ধে আমরা যুদ্ধ ঘোষণা করেছি। মাদকের ব্যাপারে তথ্য দিয়ে আরও সহযোগিতা করার জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানাই
এজন্য সবাই পুলিশকে সহযোগিতা করতে হবে।

সম্পর্কিত পোস্ট