শিশুদের সাথে প্রিয় নবী মুহাম্মদ[স:]

নিউজ নিউজ

ভিশন ৭১

প্রকাশিত: ১২:৫১ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯

মুনিরুল আলম মুনির:

শিশু মানেই ভালবাসার আরেক নাম।শিশুদের সাথে একটু খুঁনসুঁটি কার না ভাল লাগে!একটু কাছে টানতে কে না চায়!তবে যার হৃদয়-মন শুষ্ক মরুভূমি হয়ে আছে তার মনে শিশুদের প্রতিও নিষ্ঠুর মনোভাব পরিলক্ষিত হয়।এমন নিষ্ঠুর হৃদয়গুলোর হাতেই আজকের শিশুরাও হরেক রকম নির্যাতন,নিপীড়ন এমনকি ধর্ষণেরও শিকার হচ্ছে!

যাহোক,আজকের আয়োজন হলো ছোট্ট বন্ধু শিশুদের সাথে প্রিয় নবী মুহাম্মদ (স) এর আচরণ কেমন ছিল তা নিয়ে ছোট্ট অনুভূতি প্রকাশ।আমার এ লেখাটি প্রত্যেক শিশু বিশেষ করে নির্যাতিত ও অধিকার বঞ্চিত শিশুবন্ধুদের জন্য মুহাম্মদ (স) এর দরদ কেমন ছিল তারই ক্ষুূদ্র প্রকাশ।যা আজকের নিষ্ঠুর মানুষগুলো দেখাতে ব্যর্থ!

প্রিয় নবী(স) ছোট্ট শিশুদের খুবি ভালবাসতেন।তাদেরকে খুব কাছে থেকে সময় দিতেন।তাদের সাথে যখন কথা বলতেন তখন শিশু মন নিয়ে শিশুসুলভ কথাই বলার চেষ্টা করতেন। তাদের খোঁজ-খবর নিতেন।যেন তিনি তাদেরি অত্যন্ত কাছের বন্ধু।সুবহানআল্লাহ! একজন বিশ্বনবী, একজন রাষ্ট্রনায়ক শিশুদের সাথে এভাবে মিশতে পারেন-মুহাম্মদ(স) না হলে পৃথিবী হয়তো তা কল্পনাও করতে পারতো না!

তাইতো শিশুরা দূর থেকে দেখলেও তার কাছে আসার জন্য পাগলপারা হয়ে যেত।তার কাছে এসে ভীড় জমাতো।ঠিক এমনি একদিন তিনি কিছু শিশু বন্ধুদের পাশ দিয়ে কোথাও যাচ্ছিলেন।শিশুদের মাঝে ‘খাদিমুর রাসূল(স)’ হযরত আনাস(রা)ও ছিলেন।রাসূল(স) তাদেরকে দেখে সালাম দিলেন।হযরত আনাস(রা) বলেছেন-
انْتَهَى إِلَيْنَا رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم وَأَنَا غُلاَمٌ فِي الْغِلْمَانِ فَسَلَّمَ عَلَيْنَا ثُمَّ أَخَذَ بِيَدِي فَأَرْسَلَنِي بِرِسَالَةٍ وَقَعَدَ فِي ظِلِّ جِدَارٍ – أَوْ قَالَ إِلَى جِدَارٍ – حَتَّى رَجَعْتُ إِلَيْهِ ‏.‏

আনাস (রা) হতে বর্ণিত।
তিনি বলেন, একদা রাসূলুল্লাহ (স) আমাদের শিশুদের নিকট এসে পৌঁছলেন। আমিও শিশু হিসেবে তাদের সঙ্গে ছিলাম। তিনি (স) আমাদেরকে সালাম দিলেন। এরপর তিনি আমার হাত ধরে আমাকে একটি চিঠি দিয়ে পাঠালেন। তিনি একটি দেয়ালের পাশে ছায়ায় বসে থাকলেন, যতোক্ষণ না আমি তাঁর নিকট ফিরে আসি।
[সুনানে আবু দাউদ, হাদিস নং ৫২০৩,সহীহ]

সুবহানআল্লাহ!
চিন্তা করা যায়?কি মহান ব্যক্তিত্ব!প্রিয় নবী(স) এর!অথচ তিনিই শিশুদেরকে সালাম দিচ্ছেন।আবার তারই খাদিম হযরত আনাসকে শিশুদের সাথে রিক্রয়েশনের জন্য খেলতে দিচ্ছেন!অবাক করা কথা!আর আমরা কাজের মেয়েটির সামান্য ভুলেই তাকে কিল-ঘুষি,লাথি দিই,লোহার গরম ছেঁক দিই!ঈশ!কি নিষ্ঠুর-বিপন্ন মানবতা আমাদের!

আরেকদিনের ঘটনা।হযরত আনাস(রা) বলেছেন-
كَانَ رَسُولُ اللَّهِ ـ صلى الله عليه وسلم ـ يُخَالِطُنَا حَتَّى يَقُولَ لأَخٍ لِي صَغِيرٍ ‏ “‏ يَا أَبَا عُمَيْرٍ مَا فَعَلَ النُّغَيْرُ ‏”‏ ‏.‏ قَالَ وَكِيعٌ يَعْنِي طَيْرًا كَانَ يَلْعَبُ بِهِ ‏

রাসূলুল্লাহ (স) আমাদের সাথে মেলামেশা করতেন, এমনকি তিনি আমার এক ছোট ভাইকে বলতেন : হে আবূ উমায়র! কী করেছে নুগায়র? ওয়াকী’ (রাঃ) বলেন, অর্থাৎ যে পাখিটি নিয়ে আবূ উমাইর খেলা করতো।
(সহিহ মুসলিম-৩৭২০,সহীহ)

সুবহানআল্লাহ! কেমন ছিলেন বিশ্বনবী (স) এর শিশুপ্রীতি!একজন শিশুবন্ধুর খেলনার খোঁজখবরও তিনি রেখেছেন।তার সাথে একটু তা নিয়ে খুঁনসুঁটি করেছেন।

আরেকদিনের ঘটনা।হযরত বুরাইদা(রা) বলেছেন-
َّ رَأَيْتُ رَسُولَ اللَّهِ ـ صلى الله عليه وسلم ـ يَخْطُبُ فَأَقْبَلَ حَسَنٌ وَحُسَيْنٌ عَلَيْهِمَا قَمِيصَانِ أَحْمَرَانِ يَعْثُرَانِ وَيَقُومَانِ فَنَزَلَ النَّبِيُّ ـ صلى الله عليه وسلم ـ فَأَخَذَهُمَا فَوَضَعَهُمَا فِي حِجْرِهِ فَقَالَ ‏”‏ صَدَقَ اللَّهُ وَرَسُولُهُ ‏{إِنَّمَا أَمْوَالُكُمْ وَأَوْلاَدُكُمْ فِتْنَةٌ}‏ رَأَيْتُ هَذَيْنِ فَلَمْ أَصْبِرْ ‏”‏ ‏.‏ ثُمَّ أَخَذَ فِي خُطْبَتِهِ ‏.

রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) খুতবা দিচ্ছিলেন। তখন (শিশু) হাসান ও হোসাইন (রাঃ) লাল জামা পরিহিত অবস্থায় আছাড়-পাছাড় খেতে খেতে সামনে এসে দাঁড়ালেন। নবী (স) মিম্বার থেকে নেমে এসে তাদের উভয়কে তাঁর কোলে তুলে নিলেন এবং বললেনঃ আল্লাহ ও তাঁর রাসূল সত্য বলেছেন, “তোমাদের সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি তো পরীক্ষা বিশেষ” (সূরা তাগাবুন:১৫)। এ দু’জনকে দেখে আমি র্ধৈয ধারণ করতে পারলাম না। অতঃপর তিনি আবার খুতবা দিতে শুরু করেন।
(সুনানে ইবনে মাজাহ-৩৬০০,সহীহ)

আল্লাহু আকবার! কত বেশি ভালবাসতেন শিশুদেরকে বিশ্বনবী (স)!আর তার নাতি-নাতনীর কথাতো বলার অপেক্ষাই রাখেনা।

এক বেদুঈন তো একদিন বিস্ময়ে অভিভূত হয়ে গেল রাসূল(স) এর শিশুপ্রীতি দেখে।হাদীসে এসেছে- হযরত আয়েশা (রা) বলেছেন,
جَاءَ أَعْرَابِيٌّ إِلَى النَّبِيِّ صَلَّى اللّٰهُ عَلَيْهِ وَسَلَّم فَقَالَ أَتُقَبِّلُوْنَ الصِّبْيَانَ؟ فَمَا نُقَبِّلُهُمْ. فَقَالَ النَّبِيُّ صَلَّى اللّٰهُ عَلَيْهِ وَسَلَّم أوَ أَمْلِكُ لَكَ أَنْ نَزَعَ اللهُ مِنْ قَلْبِكَ الرَّحْمَةَ.

একদা এক বেদুঈন রাসূল (স)-এর খিদমতে আসল (সে দেখল ছাহাবায়ে কেরাম নিজেদের শিশু সন্তানদের চুমু দিয়ে আদর করছেন।) তখন সে বলল, তোমরা কি শিশুদেরকে চুম্বন কর? আমরা তো শিশুদের চুম্বন করি না। তখন রাসূল (সাঃ) বললেন, যদি আল্লাহ তা‘আলা তোমার অন্তর হতে স্নেহ-মমতা বের করে ফেলেন তবে আমি কি তা বাধা দিতে সক্ষম হব?
(বুখারী, মুসলিম)
(সুনানে ইবনে মাজাহ-২২৪,সহীহ)

সুবহানআল্লাহ!
এমনি ছিল আমাদের প্রিয় নবী,বিশ্বনবী মুহাম্মদ (স) এর শিশুপ্রীতি ও তাদের প্রতি দরদ।যা গোটা পৃথিবীকে তাক লাগিয়েছে।অবাক হয়েছে বিশ্বমানতা!আজকের মানবতা শিশুদের প্রতি এমন ভালবাসা,দরদ ও মমতা কি দেখাতে পারছে?বরং কিছু নিষ্ঠুর হৃদয় তাদের প্রতি অমানবিক নির্যাতন করছে, এমনকি ধর্ষণের মত ঘটনাও ঘটাচ্ছে!!

হে নিষ্ঠুর হৃদয়ের মানুষ!ফিরে আসুন বিশ্বনবী মুহাম্মদ (স) এর শিশুপ্রীতিতে।ধারণ করুন তার মহান আদর্শকে।আপনিও শান্তি পাবেন,পৃথিবীও শান্ত হবে,স্বর্গসুখে ভাসবে।।

লেখক:
শিক্ষার্থী,চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় :