রাস্তাঘাট ও খাল-ড্রেন সংস্কার ও রিক্সা-হকার উচ্ছেদের ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে বরিশালে বাসদের মানববন্ধন ও সমাবেশ

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ১২:৩২ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২০

——————
রাস্তাঘাট ও খাল-ড্রেন সংস্কার ও রিক্সা-হকার উচ্ছেদের ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে নতুনবাজার ও বিসিকে বাসদের মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত
অবিলম্বে বরিশালে চলাচলের অযোগ্য সকল ভাঙাচোরা রাস্তাঘাট-খাল-ড্রেন ও খাল সংস্কার, রিক্সা-ইজিবাইক ও হকার উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র বন্ধ ও করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে বকেয়া ফি মওকুফ করে রিক্সাশ্রমিকদের লাইসেন্স নবায়নের সুযোগের দাবিতে ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ আজ বাসদ বরিশাল জেলা শাখার উদ্যোগে সকাল ১১ টায় নতুনবাজরে এবং বেলা ১২ টায় বিসিকে মানবন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
নতুন বাজারে রিক্সা-ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি দুলাল মল্লিক এবং বিসিকে বাসদ ১নং ওয়াড এর সভাপতি মো. মিজানের সভাপতিত্বে নতুনবাজারের সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাসদ আহ্বায়ক ইমরান হাবিব রুমন, সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, মো. সোহেল, মো. রানা, মো. মনির হাওলাদার, রুবেল হাওলাদার, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের ২নং ওয়ার্ডের সভাপতি সানু আক্তার, বিসিক এলাকার সভাপতি পারভিন আক্তার, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের মহানগর শাখার দপ্তর সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক বিজন শিকদার, মো. সাজ্জাদ।
ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী বলেন, বিসিক এলাকা বরিশালের একমাত্র শিল্প এলাকা। এই এলাকারও অধিকাংশ রাস্তা ভেঙে চলাচলের অনুপোযগী হয়ে পড়েছে। নতুন বাজার থেকে লাকুটিয়ার রাস্তাও বরিশালের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সড়ত। অথচ এই রাস্তায় পিচের কোন আস্তরণ তো দুরের কথা মাছ চাষ করার মতো খানাখন্দে পানি জমে থাকে সবসময়ই। ঐতিহ্যবাহী জেলখাল আর লাকুটিয়া খাল বরিশালের অন্যতম প্রধান খাল দুটি আজ ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতে বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট দিনের পর দিন পানির নিচে ডুবে থাকে। নগরীর অন্যান্য এলাকার মত এখানকার মানুষকেও নির্বাচনের আগে উন্নয়নের স্বপ্ন দেখানো হয়েছিল। উন্নয়নের সেসব ফাঁকা বুলির অসারতা এসব খানা-খন্দে ভরা রাস্তায় চলতে গিয়ে জনগণ হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে।
বিসিক এলাকায় সমাবেশে অংশ নেয়া কর্মীদের স্থানীয় আওয়ামীলীগ সন্ত্রাসীরা ভয়ভীতি প্রদর্শন প্রসঙ্গে ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী বলেন, একটা দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দল হলে আওয়ামীলীগেরও উচিত বরিশালের উন্নয়নে, রাস্তাঘাট সংস্কারে কথা বলা আন্দোলন করা। প্রোগ্রামে অংশ নেয়া কর্মীদের ছবি তুলে ভয় না দেখিয়ে ভাঙাাচোরা রাস্তার ছবি তুলে মেয়র মহোদয়কে দেখান, সংস্কার করতে বলেন। আর আমাদের কর্মীদের উপর কোন নির্যাতন নীপিড়নের ঘটনা ঘটলেও তার জবাব দিতে প্রস্তুত আমরা।
ইমরান হাবিব রুমন বলেন, বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণের হার অত্যন্ত উচ্চ, কিন্তু নাগরিক অধিকার এর নিশ্চয়তা দেবার বেলায় তৎপরতা প্রায় অদৃশ্য। রাস্তা-খাল-ড্রেনের সংস্কার নেই,কিন্তু জনগণের পকেট কাটার সমস্ত আয়োজন রয়েছে। রিক্সার লাইসেন্স নবায়ন করতে গিয়ে শ্রমিকদের কাছ থেকে বিগত কয়েক বছরের সকল বকেয়া আদায়ে চাপ দেয়া হচ্ছে যা এই করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে অনেক রিক্সাশ্রমিকের জন্যই দেয়া সম্ভব নয় এবং এটা বেশ অমানবিকও বটে। করোনা মহামারির একটা বড় সময় রিক্সা বন্ধ ছিল এবং এখনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে রিক্সা শ্রমিকদের আয় কমে গেছে। এই অবস্থায় যেকোন জনপ্রতিনিধির উচিত এই রিক্সাশ্রমিকদের পাশে দাঁড়ানো। কিন্তু তা না করে বিসিসি থেকে যেভাবে এই মহামারি পরিস্থিতিতে টাকা আদায়ে রিক্সাশ্রমিকদের উপর চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে এবং নাহলে রিক্সা উচ্ছেদের হুমকি দেয়া হচ্ছে তা অখুবই বিস্ময়কর।

নেতৃবৃন্দ আগামীকাল ১৩ সেপ্টেম্বর রবিবার সকাল ১১টায় কাশীপুর বাজারে অনুষ্ঠিতব্য তিন দফা দাবির বিক্ষোভ সমাবেশে সবাইকে উপস্থিত থাকার আহবান জানান এবং নাগরিক অধিকার আদায়ের এই আন্দোলনে সবার সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।