ঢাকা২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মোঃ শহিদ উল্লাহ সফল ফ্রিল্যান্সার ও উদ্যোক্তা হয়ে উঠার গল্প-

প্রতিবেদক
নিউজ ভিশন

ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২২ ৮:৩৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আমরা সবাই মনে করি একজন ফ্রিলান্সার প্রতিমাসে হাজার হাজার টাকা আয় করছেন। কিন্ত এটা জানি না এ জন্য তাকে কি কি করতে হয় বা কতটুকু পরিশ্রম করতে হয়। আমরা কখনও সেটা নিয়ে চিন্তাও করি না। আজ মোঃ শহিদ উল্লাহ এর সম্পর্কে জানব এবং তিনি কিভাবে এত দূর আসলেন এবং উনার এই পর্যন্ত আসতে কি কি বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছে।

#একনজরে ফ্রিল্যান্সার মোঃ শহিদ উল্লাহ’র পরিচয়:
মোঃ শহিদ উল্লাহ, পিতা- আবুল হোছাইন জেলা ও থানাঃ কক্সবাজার। গ্রামঃ চৌফলদন্ডী ৫নং ওয়ার্ড। ২০১৬ সালে তিনি কৃতিত্বের সাথে বাংলাদেশ আইসিটি ডিভিশন থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইনের উপর ডিপ্লোমা শেষ করেন, তার পছন্দের কাজের মধ্যে বেছে নিয়েছেন৷ অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং কে৷ বর্তমানে Genuine Information & Technology (GIT) এবং Suraloy Studio নামে ২টি প্রতিষ্টানের পরিচালক তিনি৷ এবং ফ্রিল্যান্সারদের অন্যতম বড় মার্কেটপ্লেস Freelancer এবং Upwork কাজ করছেন, বর্তমানে তিনি Freelancer এ Top Rated সেলার৷ কাজ করছে জনপ্রিয় ক্যাটাগরী Graphic Design এবং Video Editing/Animation & Sound Design নিয়ে৷

#কিভাবে মোঃ শহিল উল্লাহ সফল হলেন ফ্রিল্যান্সিং জগতে?
ফ্রিল্যান্সার হয়ে ওঠার পিছনের গল্প। তিনি একজন গ্রামের মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে। তারা দুই ভাই তিন বোন তার মধ্যে তিনি ৪ নম্বর। তিনি ছোটবেলা থেকে অনলাইনে বিভিন্ন বিষয়ের উপরে শিখার জন্য আগ্রহী ছিলেন। বাংলাদেশ আইসিটি ডিভিশন থেকে একটি গ্রাফিক ডিজাইন এর উপরে একটি কোর্স চালু চালু হয়। তিনি সে কোর্সে ২০১৬ সালে ভর্তি হয়। সফলভাবে কোর্স সম্পন্ন হওয়ার পর ২০১৮ সালের ১২ ই ডিসেম্বর কক্সবাজার থেকে তাকে সেরা ফ্রিল্যান্সার হিসেবে Bangladesh ICT Division থেকে এয়ার্ড প্রদান করেন।
তিনি সরকারিভাবে সেরা ফ্রিল্যান্সার ভূষিত হওয়ার পর থেকে আরও কাজের প্রতি বেশি মনোযোগী হয়। দেশের সেরা মার্কেটপ্লেস freelancer & Upwork আর ফাইবারে কাজ করতে থাকে। তিনি মুলত এসব মার্কেটপ্লেসে বেশিরভাগ সময় Design রিলেটিড কাজ করে থাকে। এখানে প্রচুর ক্লাইন্ট আছে, কিন্তু নতুন অবস্থায় কাজ পেতে একটু কষ্ট হবে, এভাবে দিন-রাত কষ্ট করে সে এই পেশায় সফল হয়। তিনি চিন্তা করলেন এই অভিজ্ঞতা তার মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে কক্সবাজারের বিভিন্ন বেকার ও অদক্ষ জনগোষ্ঠীকে দক্ষ জনশক্তিতে পরিণত করার। তখন তিনি যৌথভাবে কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও উপজেলাতে ১২ ডিসেম্বর ২০১৭ সালে একটি আইটি প্রতিষ্টান (জি আইটি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ সেন্টার) প্রতিষ্টার মাধ্যমে যাত্রা শুরু করেন।। বর্তমানে তাদের প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে প্রতি বছর শত শত ছাত্র-ছাত্রী বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে কাজ করে এবং অফলাইনে বিভিন্ন বড় বড় প্রতিষ্টানে কাজ করে যাচ্ছে। এভাবে করে তাদের ভবিষ্যৎ নিশ্চিত ক্যারিয়ার তৈরিতে সাহায্য করে যাচ্ছে।
শহিদুল্লাহ বলছেন এই কাজের ভবিষ্যৎ ইনশাল্লাহ উজ্জল এবং এরদ্বারা ক্যারিয়ার গড়া আল্লাহ চাহে তো অবশ্যই সম্ভব। তবে আমি মনেকরি প্রত্যেক ফ্রিল্যান্সারদের ফ্রিল্যান্সিং এর পাশাপাশি অপশন-বি থাকা চাই অর্থাৎ অন্য একটা কাজ থাকা দরকার, যেন আল্লাহ না করুন একাউন্টে সমস্যা হলে আপশন-বি এর উপর ডিপেন্ডেবল হতে পারে।

#ফ্রিলান্সার হিসেবে তার কিছু অভিজ্ঞতার:
বর্তমানে আমি Freelancer এ TOP Rated সেলার, এ পর্যন্ত কাজ কমপ্লিট হয়েছে প্রায় 3k+, এপর্যন্ত আসতে আমার প্রায় ৪ বছর সময় লেগেছে। এতদুর আসতে অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে। বাধা বিপত্তি, হিংসা-বিদ্বেষ, ভালো, মন্দ অনেক কিছুই ঘটেছে। সবকিছু উপেক্ষা করেই আমার পথ চলা। শুরুতে ফ্যামিলির অনেক বাধা বিপত্তি এসেছে। হাজারো প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছে। একটা জিনিষ আমি সবসময় করি তা হলো: ”কাজ শেখায় কঠোর পরিশ্রম” আর এই জিনিষটা যে কাউকেই সফলতার মুখ দেখাতে পারে।

#নতুনদের উদ্দেশে তার পরামর্শঃ
নতুন যারা আছেন তাদের বলবো, ফ্রিলেন্সিং শুরু করতে ৩টি জিনিষের প্রয়োজন:
১। কম্পিউটার রিলেটেড যে কোন একটি কাজ
২। ইরেজীতে দক্ষতা
৩। ইন্টারনেট ব্যবহার করা। এসব কাজগুলো আপনি খুব সহজেই ইন্টারনেট ঘেটে শিখতে পারবেন, বিশেষ করে সার্চ দেয়া জানলেই হলো। ইউটিউবে একটা ভিডিও দেখে না বুঝলে আরেকটা দেখে কাজটা করার চেষ্টা করা। সাবধান কোন ভাবেই বিরক্ত হওয়া যাবেনা, প্রয়োজনে একটু বিশ্রাম নিয়ে নিন। তারপর ওই কাজটাই পুনরায় চেষ্টা করুন, এটা রেখে অন্য কাজে যাবেন না। একাজের পেছনে প্রতিদিন মাত্র ২ ঘন্টা করে ‍সময় দিলেই যথেষ্ট, তবে অবশ্যই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে। যারা প্রথমেই কোন ট্রেনিং সেন্টারে টাকার বিনিময়ে কাজগুলো শিখতে চায় তারা বেশিরভাগ সময়ে সফলতা কম পান। আপনি নিজেকে আপডেট বা আরো দক্ষ করার জন্য এডভান্স কোর্স করতে পারেন যেমন আমি প্রায়েই পেইড কোর্স করে থাকি। তবে সেটা অনেক পরে। আগে নিজে নিজে ইন্টারমেডিয়েট লেভেলের দক্ষতা অর্জন করুন। আশা করি বুঝতে পেরেছেন! পাশাপাশি ধৈর্য, পরিশ্রম, সততা এগুলো মেনে চলেন ইনশাল্লাহ সফল হবেনই হবেন।

সম্পর্কিত পোস্ট