মেলান্দহের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সোজাউদ্দৌলাহ নিজ বাড়ীতে জিম্মির অভিযোগ

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ২:২৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৯, ২০১৯

রোকনুজ্জামান সবুজ, জামালপুর ঃ

জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সোজা উদ্দৌলাহ সরকার ও তার পরিবারের সদস্যদের স্থানীয় সন্ত্রাসীরা নিজ বাড়ীতেই জিম্মি করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিবেশীদের সাথে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসীরা মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের নিকট দেড় লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করায় মেলান্দহ থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন মুক্তিযোদ্ধা সোজা উদ্দৌলাহ সরকার। অভিযোগে জানা গেছে, জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার ঘোষেরপাড়া ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সোজাউদ্দৌলাহ সরকার। তার ভোগদখলীয় পৈতৃক সম্পত্তি দীর্ঘদিন যাবত অন্যায়ভাবে জবর দখলের ষড়যন্ত্র করছে একই এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী আমিনুল ইসলাম গেদা ও একই এলাকার নুরুল ইসলাম গংরা। জমিটি মুক্তিযোদ্ধা সোজাউদ্দৌলাহ সরকার গংদের নামে সিএস, আরওআর এবং বিআরএস রেকর্ডভুক্ত। অথচ ওই জমি জবর দখলের পায়তারা করায় প্রতিবেশী আমিনুল ইসলাম গেদার বিররুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন মুক্তিযোদ্ধা সোজাউদ্দৌলাহ সরকার। ওই মামলা দায়ের করায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারটির সাথে দীর্ঘদিন যাবত প্রতিবেশী সন্ত্রাসীদের নানা বিরোধ চলছে। এরই জের ধরে রবিবার সকালে দেড় লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করেছে স্থানীয় সন্ত্রাসী আমিনুল ইসলাম গেদা ও একই এলাকার নুরুল ইসলাম গংরা। ওই সন্ত্রাসীরা তাদের দাবীকৃত চাঁদার টাকা না পেয়ে মুক্তিযোদ্ধা সোজাউদ্দৌলাহ সরকারের বসত-বাড়ী ও ব্যবসা প্রতিষ্টানের সামনে জোরপুর্বক বাঁশের বেড়া দিয়েছে। এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারটির কেহ বাড়ী থেকে বাইরে বের হলেই প্রাণে মেরে ফেলবে বলেও হুমকি দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। এতে মেলান্দহের কাহেত পাড়া গ্রামের ব্রীজপাড় এলাকায় নিজ বাড়ীতেই জিম্মি হয়ে পড়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সোজাউদ্দৌলাহ সরকার ও তার পরিবারের সদস্যরা।
এব্যাপারে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সোজাউদ্দৌলাহ সরকার রবিবার বিকালে মেলান্দহ থানায় এবং মেলান্দহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্র্তা ও মেলান্দহ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।
মেলান্দহের কাহেত পাড়া গ্রামের আমিনুল ইসলাম গেদা জানান, মুক্তিযোদ্ধা সোজাউদ্দৌলাহ সরকারের বসতভিটার জমি নিয়ে তার সাথে দীর্ঘদিন যাবত মামলা চলছে। ওই মামলা নিস্পত্তি হওয়ার আগে নালিশী ভুমিতে ইট সিমেন্টের স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণের চেষ্টা করায় সেখানে বাঁশের বেড়া দেওয়া হয়েছে।
মেলান্দহের ঘোষের পাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ওবায়দুর রহমান জানান, মুক্তিযোদ্ধা সোজা উদ্দৌলাহ সরকারের জমি নিয়ে প্রতিবেশীদের সাথে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ ও মামলা মোকদ্দমা চলছে। তবে একজন মুক্তিযোদ্ধার নিকট চাঁদা দাবী এবং তার বাড়ীর সামনে বাঁশের বেড়া দিয়ে তাকে জিম্মি করা ঠিক হয়নি।