মুস্তাফিজ প্রসঙ্গে মাশরাফির কড়া জবাব

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ৩:৩৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১১, ২০২০

মুহা. ইকবাল আজাদ, স্টাফ রিপোর্টার।

অফর্ফমে থাকা মোস্তাফিজকে নিয়ে টিমের ভিতরগত সমালোচনার উপযুক্ত জবাব দিয়েছেন মাশরাফি। গতকাল বিপিএলের নিজেদের ম্যাচ শেষে প্রেস কনফারেন্সে এসে এসব কথা বলেন প্লাটুন অধিনায়ক। মোস্তাফিজের প্রসঙ্গ সামনে এনে বেশ কড়া সুরে জবাব দিয়েছেন ক্যাপ্টেন ফ্যান্টাস্টিক। গত বিশ্বকাপে মোস্তাফিজ ৪র্থ উইকেট শিকারী হলেও রান বিলিয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে অনেকটা উদারতার পরিচয় দিয়েছেন। শ্রীলঙ্কা এবং ভারত সফরে যেন নিজেকেই খুঁজে বেড়াচ্ছিলেন দ্যা ফিজ। ৩ টি-টোয়েন্টি তে ৯.৫ ওভার বল করে ছিলেন উইকেট শূন্য। রান বিলিয়ে দেওয়ার উদারতায় যেন দানবীর সেজেছেন। ফলে জায়গা হয়নি টেস্ট দলের মূল একাদশেও।

খরুচে মোস্তাফিজের বিকল্প ভাবতে সামাজিক মাধ্যমে বিভিন্ন মন্তব্য করেছিলেন ক্রিকেট সমর্থকেরা। মিডিয়াতে হয়েছে নানান বিশ্লেষণ। কিন্তু মাশরাফি সমর্থক কিংবা সাংবাদিক নয়, বরং মোস্তাফিজের সাথে কাজ করা সমালোচকদের নিয়ে চটেছেন ম্যাশ।

জাতীয় দলের সতীর্থ মোস্তাফিজ প্রসঙ্গে মাশরাফি বলেন,
‘যে কথাটা আমি মুস্তাফিজের ক্ষেত্রে বলেছি, তাকে যত্ন করাটা খুব জরুরী। এ কথাটা সংক্ষেপে বলেছি। তাকে নিয়ে যদি সমালোচনা আমরাই করতে থাকি, আপনাদের (সাংবাদিক) কথা, দর্শকদের কথা আলাদা।’

‘সবাই চাইবে ও ভালো করুক, দর্শকরাও চাইবে ভালো করুক, ভালো না করলে সমালোচনা করবে এটা ঠিক আছে। কিন্তু আমি যখন মুস্তাফিজের দায়িত্বে আছি তখন আমি কেন মুস্তাফিজকে নিয়ে আপনাদের সামনে সমালোচনা করবো? তখন আমি মুস্তাফিজকে আগলে রাখার চেষ্টা করবো।’

মোস্তাফিজ বাংলাদেশ ক্রিকেটের অমূল্য রত্ন। যার বিকল্প এখনো তৈরি হয়নি। মোস্তাফিজের বিকল্প চিন্তা ইস্যুতে মাশরাফি যোগ করেন, ‘আমার যদি মুস্তাফিজের অর্ধেকও থাকে বাংলাদেশে ফাইন, আমাকে একটা হাফ অফ মুস্তাফিজ দেখান বাংলাদেশে। থাকলে আপনি দেখেন আমাকে। সেটা নাই, তো আমরা যারা মুস্তাফিজকে তৈরি করতে চাচ্ছি… মুস্তাফিজ বিশ্বকাপে ২১ উইকেট (২০) নিয়েছে, হয়তো বা ইকোনোমি রেট অনেক কিছু (৬.৭০) থাকতে পারে। এখন এ জিনিসটা ঠিক করবো কীভাবে? ঠিক করতে তো একটা উপায় আছে।’

অফ ফর্ম কাটিয়ে কোন ক্রিকেটারের বাংলাদেশ জাতীয় দলে ফিরে আসাটা অনেক কষ্টকর কেন ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মাশরাফি বলেন, ‘পৃথিবীর অনেক বড় বোলারেরও খারাপ ফর্ম গিয়েছে। আমাদের দেশে কেন হচ্ছেনা? কারণ আমাদের দেশে মুস্তাফিজকে নিয়ে যারা কাজ করছে তারাও আপনাদের ভাষায় কথা বলছে, বাইরের মানুষ যেটা বলছে সেভাবেই কথা বলছে। তো নিজস্ব চিন্তা ভাবনা কই আমি মুস্তাফিজকে ঠিক করবো? মুস্তাফিজকে নিয়ে সমালোচনা করে পরেরদিন তাকে নিয়ে আবার আমি মাঠে কাজ করতে যাচ্ছি। তো মুস্তাফিজ কি মানুষ না? সে তার যে চিন্তা ভাবনা সে আপনার কাছে কীভাবে শেয়ার করবে? কারণ আপনি ২৪ ঘন্টা আগে মুস্তাফিজকে নিয়ে সমালোচনা করে আসছেন। ‘

মুস্তাফিজের সাথে যা হয়েছে মাশরাফির সাথেও তা হয়েছে কিনা জিজ্ঞেস করলে উত্তরে বলেন, ‘না আমার ক্ষেত্রে হয়নি। সমস্যাটা এখানেও আছে। আমার কাছে যেটা মনে হচ্ছে আমার সাথে যেটা হয়েছে অগোচরে আর মুস্তাফিজের সাথে যেটা হচ্ছে সেটা সামনে, আপনাদের সাথে এসে যারা কথা বলছে সেটাতো মুস্তাফিজ দেখছে। একটা কথা হল আপনি (সাংবাদিক) এনালাইসিস করছেন এটা ঠিক আছে কারণ আপনাদের কাজই এটা আমি সবসময় যেটা মনে করি।’

‘দর্শকরাও সেভাবে দেখবেন কারণ তারা আমাদের কাছে ভালো পারফরম্যান্স আশা করে, না হলে সমালোচনা করবে এটা স্বাভাবিক। কিন্তু আমি যখন মুস্তাফিজের সাথে কাজ করছি আমি কিন্তু মুস্তাফিজের একটা অংশ। আমারতো দায়িত্ব আছে মুস্তাফিজকে ঠিক করে আনার। আমি যখন মুস্তাফিজকে নিয়ে সমালোচনা করছি তখনতো আমিও সমালোচিত হতে পারি যে তাহলে তুমি কি কাজ করছো মুস্তাফিজের সাথে।’

প্রসঙ্গত, বিপিএল ২০১৯-২০ সেশনের শুরুর দিকে খরুচে মোস্তাফিজকে নিয়ে বিরক্তি প্রকাশ করেন জাতীয় দলের নির্বাচক হাবিবুল বাশার। ফিজের সমালোচনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার মনে হচ্ছে ওকে চিন্তা করতে হবে। আমরা ব্যাটসম্যানরা, বোলাররা চিন্তা করি ম্যাচ শেষে যে কী হচ্ছে। ইটস হাই টাইম ফর হিম ভালো করছি বা এসব চিন্তা না করে ব্যাটসম্যান আমাকে পড়ে ফেলছে বা আমাকে দ্বিতীয় পরিকল্পনায় যেতে হবে। কোচ হয়তো তাকে বলবে। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে ক্রিকেটারদেরও বোঝা উচিত আমার কীভাবে বোলিং করা উচিত।’

কাটার মাস্টারের খরুচে হওয়ার প্রভাব যে পুরো দলকে প্রভাবিত করছে সেসব প্রসঙ্গ টানতে গিয়ে তিনি আরও যোগ করেন, ‘প্রব্লেম ফর এভ্রিওয়ান। শেষ এক বছরে সে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি। কিন্তু সে খরুচে বোলার হয়ে যাচ্ছে। শেষের দিকে অনেক খরুচে হয়ে যাচ্ছে। আমাদের ডেথ বোলার কিন্তু মুস্তাফিজ। সে যদি খরুচে বোলিং করে তাহলে কিন্তু পুরো দলের ওপরেই চাপ চলে আসে। ও যদি খরুচে হয় তাহলে বাকিদের দিয়ে কভার করা মুশকিল।’

প্রধান নির্বাচকের সমালোচনার পরে মোস্তাফিজ যেন নিজেকে খুঁজে পেয়েছেন। কাটার, স্লোয়ারে বাম হাতকে যেন আরও শানিত করে তুলছেন। বিপিএলের এবারের আসরে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ উইকেট শিকারীর তালিকায় শীর্ষ স্থান দখল করে আছেন। শেষ দিকের ম্যাচগুলোতে রানের চাকার লাগাম টেনে ধরেছেন। এবারের আসরের ১২ ম্যাচে ১৫.৬০ গড়ে নিয়েছেন ২০ উইকেট। শুরুর দিকের ৯ এর বেশি ইকোনমিকে টেনে এনেছেন ৭ এর সংখ্যায়।

মোস্তাফিজের দল রংপুর রেঞ্জার্স কোয়ালিফাই করতে ব্যর্থ হয়েছেন। ফলে এবারের আসরে আর খেলা হবে না দ্যা ফিজের। হারাতে পারেন শীর্ষ উইকেট শিকারের জায়গাটিও। কিন্তু মোস্তাফিজ আবার পুরনো ছন্দে ফিরেছেন, এতেই জনমনে স্বস্তি।