ঢাকাসোমবার , ২৭ মে ২০২৪
  1. সর্বশেষ

ঊর্ধ্বগতির বাজার প্রবণতায় বুটেক্স শিক্ষার্থীদের ঈদ কেনাকাটা

প্রতিবেদক
নিউজ ডেস্ক
১০ এপ্রিল ২০২৪, ১:৫৯ পূর্বাহ্ণ

Link Copied!

তাওহিদুল ইসলাম শিশির,বুটেক্স প্রতিনিধি।

মুসলিম উম্মাহর দু’টি প্রধান ধর্মীয় উৎসবের মধ্যে ঈদুল ফিতর একটি। দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন কর্তৃক ঘোষিত পুরস্কারের প্রত্যাশায় এই ঈদ অনেক বেশি মহিমান্বিত ও আনন্দঘন। 

তাই এই দিনটি তারা খুব আমেজের সাথে পালন করে। দীর্ঘ সময় ঘর থেকে দূরে থাকা শিক্ষার্থীরা এই সময় ঈদের খুশি ভাগাভাগি করে নিতে ফিরে যায় আপন আঙ্গিনায়। এই খুশিতে অন্যমাত্রা দেয় ‘ঈদ কেনাকাটা’।

বর্তমানে অন্যতম একটি আলোচিত বিষয় হলো দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি। প্রতিনিয়ত ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে বিভিন্ন অজুহাতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়াচ্ছে। ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের এই লাগামহীন মূল্যবৃদ্ধিতে বিপন্ন হয়ে পড়েছে শিক্ষার্থীসহ নানা পেশাজীবীর মানুষ। এই নিয়ে বিপাকে পড়ছে সাধারণ শিক্ষার্থীরাও।বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এখন আত্মনির্ভরশীল। তাদের ঈদ কেনাকাটা পুরোটা সাড়ে টিউশনে পাওয়া অর্থ দিয়ে। যদিও বাধ সাধে প্রতিটি পণ্যের গলাকাটা মূল্যে।

চলুন শুনে আসা যাক চড়া দ্রব্যমূল্যের এই বাজারে বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুটেক্স) শিক্ষার্থীদের ঈদের কেনাকাটা নিয়ে ভাবনা—

———
এবারের ঈদ আমার জন্য বিগত বছরগুলোর চেয়ে অনেকটাই ভিন্ন। কারণ যখনই মনে হয়েছে জীবনের আঁকাবাঁকা মূহুর্তগুলো উতরে নিজেকে গুছিয়ে নিতে পেরেছি তখনই দুঃসংবাদ আসলো বাবা চাকরি হারিয়েছেন। এমতাবস্থায় পরিবারের পাশে দাঁড়াতে নিজের ব্যস্ততা আরও বাড়িয়ে দেই। তাছাড়া বর্তমানে বাজারে দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধগতিতে যেখানে প্রত্যেকেরই নাভিশ্বাস অবস্থা সেখানে আমাদের জন্য ঢাকা শহরে থাকা যেন বিলাসিতা মনে হলো। এর মাঝে এই রমজান মাসে মরার উপর খাঁড়ার ঘা-র মতো আমাদের বাসায় চুরি হলো। চুরি হওয়া জিনিসপত্রের মাঝে আমার তিল তিল করে টিউশনের জমানো টাকায় কেনা ল্যাপটপটাও ছিলো যেটা আগত পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য খুব বড় সহায়ক ছিলো। ভেবেছিলাম এই ঈদে পরিবারের সবাইকে কিছু উপহার দিব আর নিজের জন্য একটা পাঞ্জাবি কিনবো। কিন্তু পরিস্থিতির এমন বেহাল দশায় নিজের জন্য তো দূরে থাক বাবাকে একটা টি-শার্ট গিফট করা ছাড়া আর কাউকেই তেমন কিছু গিফট করতে পারিনি। এর মাঝেই মনে হলো রমজান মাস ধৈর্য্যের মাস, তাই ধৈর্য্য ধারণ করাই সবচেয়ে উত্তম হবে আমার জন্য এই পরিস্থিতিতে।

৪৭ তম ব্যাচের,
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী

————
ঈদুল ফিতর হিন্দু ধর্মানুসারিদের উৎসব না হলেও বন্ধুবান্ধবদের সাথে কেনাকাটা অনেকটা হয়ে যায়। তিনিও গিয়েছিলেন বন্ধুর সাথে পাঞ্জাবি কেনার সঙ্গী হয়ে। নিজেও কিনেছেন একটি পাঞ্জাবি। অনলাইন-অফলাইন প্রতিক্ষেত্রেই পাঞ্জাবির মূল্য যেন আকাশচুম্বী। বিশেষত ঈদের এই সময়টায় সব ছেলেই পাঞ্জাবি কেনার চেষ্টা করে। কিন্তু এবছর চড়া মূল্যের বাজারে গুণমান এবং দাম সবকিছু মিলিয়ে পাঞ্জাবি পাওয়া বেশ কষ্টসাধ্য হয়ে গেছে। 

৪৭ তম ব্যাচের
শিক্ষার্থী, সৌমিক সাহা।

————
সন্তান হিসেবে বাবা-মার জন্য কিছু একটা করতে পারাই যেন সবচেয়ে বড় সার্থকতা। কেনাকাটার অভিজ্ঞতা তেমন না থাকায় এবং আকাশ ছোঁয়া দামের জন্য এই ঈদের বাজারে বাবার জন্য একটি পাঞ্জাবী এবং মায়ের জন্য একটি থ্রি পিসই কিনতে পেরেছেন তিনি। তাও কিনেছেন সারা বছর টিউশনের জমানো টাকা দিয়ে। নিজের জন্য কিছু কেনার ইচ্ছা থাকলেও চড়ামূল্যের বাজারে তা আর সম্ভব হয়নি।

৪৮তম ব্যাচের
শিক্ষার্থী, তায়াসসুক ইমাম

———–
ভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার পর এইটা আমার দ্বিতীয় ঈদ। এইবারও ঈদ শপিং ঢাকা থেকেই করা হয়েছে। চেষ্টা করেছি বিভিন্ন ব্র‍্যান্ডের দোকান থেকে নিতে কারণ এইসব জায়গায় রুচিশীল পণ্য সহজেই পাওয়া যায় যদিও আউটলেট গুলোতে আমার কিছু ক্ষেত্রে দাম একটু বেশি মনে হয়েছে। তাও ঈদ খুশির সামনে এইসব দাম বাধা হয় নি। টিউশনি আর কোচিং করিয়ে কিছুটা স্বাবলম্বী হওয়ার পর থেকেই পরিবারের জন্য প্রতি ঈদে কিছু উপহার দেয়ার চেষ্টা করি এইবার ও তার ব্যাতিক্রম হয় নি, নিজের সামর্থ্যের মধ্যে পরিবারের জন্য ঈদে কিছু নিয়ে যাওয়ার আনন্দের তুলনা হয় না।

৪৮ তম ব্যাচের
শিক্ষার্থী, সাঈদ ফাতিন।

———
আগে এক হাজার টাকা হলে আমার মার্কেট হয়ে যেত সেখানে এখন এই টাকায় নিজের জন্য একটা ভালো শার্ট কেনাও মুশকিল হয়ে যাচ্ছে। বাড়ির সবার জন্য কিনতে গেলে বাজেট দশ হাজার পেরিয়ে যাচ্ছে যেখানে আমার টিউশনের বেতন মাত্র সাত হাজার টাকা। তাই সবাইকে দেয়ার ইচ্ছা থাকলেও তা সম্ভব হয় না। জিনিসপত্রের দাম আমাদের মত মধ্যবিত্তদের নাগালের বাইরে, আমরা চাইলেও সব কিনতে পারিনা। অনেক ভেবে চিনতে দামাদামি করে সবচেয়ে কমদামী জিনিসটাই আমাদের কিনতে হয়। বাবা-মা বেসরকারি শিক্ষক। তারা এখনো মাসের বেতন ও বোনাস পায়নি। বাবার খামার থাকায় গরু বিক্রির টাকা দিয়ে পরিবারের সবার মার্কেট করতে পেরেছি এবার। কিন্তু অনেকের তো তাও নেই, তারা কিভাবে করছে আল্লাহ ভালো জানেন। এগুলো ভাবলেই খারাপ লাগে সবসময়, মনে হয় যদি আরেকটু সাপোর্ট করতে পারতাম পরিবারকে।

৪৮ তম ব্যাচের
শিক্ষার্থী, তানভীর হাসান তন্ময়।

————
দ্রব্যমূলের ঊর্ধ্বগতিতে নিত্য প্রয়োজনীয় সকল পণ্যই যেন আজ হাতের নাগালের বাইরে। সবকিছুর দাম যেন জনমনে ক্ষোভ বাড়িয়েই চলেছে। নিজের খরচ চালাতে আমি কয়েকটি টিউশন করাই। এই বছর প্রথমবার আমি নিজের পাশাপাশি বাবা-মা এবং বোনকেও ঈদের কেনাকাটা করে দিয়েছি। এই কারণে এবারের ঈদটা তুলনামূলকভাবে বেশি ভালোলাগার এবং আনন্দের। তবে প্রতিটি পণ্যেই কড়া মূল্যের ছাপ প্রতীয়মান ছিল।

৪৯ তম ব্যাচের
শিক্ষার্থী, নাবিলা

———-
ঈদের শপিং বিষয়টা বেশ আনন্দদায়ক প্রত্যেকের জন্য। তবে দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি, অসাধু ব্যবসায়ীদের অতি মুনাফা লিপ্সা আমাদের এই আনন্দের পথে প্রাথমিক ও সবচাইতে বড় বাধা। মাসের ১০ তারিখ এর আগে অভিভাবকদের বেতন দেয়ার অনীহা, রমজানে সকল দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি সব মিলিয়ে অভিভাবকরাও সীমাহীন দুর্ভোগ এর মধ্যে দিনাতিপাত করছেন। তাই আপাতত ঈদের জন্য সেভাবে কিছু কেনাকাটা হয় নি তবে ইচ্ছে আছে, চেষ্টা করছি।

৪৯ তম ব্যাচের
শিক্ষার্থী , মাহমুদুল হাসান জোনায়েত জানান

——–

196 Views

আরও পড়ুন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যতিক্রমধর্মী এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

পায়রা ও মংলা সমুদ্র বন্দরে ৭ নং, কক্সবাজার ৬ নং বিপদ সংকেত

পায়রা বন্দরের দিকে আরো ৬৫ কি.মি. এগিয়ে আসলো রেমাল

রাজশাহীর পাম্পগুলোতে পাওয়া যাচ্ছে হেলমেটবিহীন তেল

বুটেক্সে সিনিয়র-জুনিয়রের কোন্দলের জেড়ে আহত শিক্ষার্থী ও ভাঙচুর

দর্শন বিভাগের আয়োজনে শিক্ষকতায় নৈতিকতা বিষয়ক কর্মশালা

ঝিকরগাছায় ১২কেজি গাঁ*জা ও সাজাপ্রাপ্ত আসামী আটক

ট্রেনের ১৮ টিকিটসহ এক কালোবাজারি গ্রেফতার।

চট্টগ্রাম বায়তুশ শরফ মাদরাসায় ইসলাহুত ত্বোলাবা কমিটি গঠন

শুভ জন্মবার্ষিকী নজরুল

রূপগঞ্জে চুক্তি ভঙ্গ করে পাইকারি কাঁচাবাজার ও ফলের আড়ত দখলে নেওয়ার পাঁয়তারার অভিযোগ

বেপরোয়া ড্রাম্প ট্রাকের ধাক্কায় মারা গেলো কাইছার