মহেশখালীতে চেয়ারম্যানকে ফাঁসানোর চেষ্টায় এলাকাবাসীর ক্ষোভ

নিউজ নিউজ

ভিশন ৭১

প্রকাশিত: ১০:২৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৮, ২০২০

এস. এম. রুবেল, মহেশখালী প্রতিনিধিঃ মহেশখালীর কালারমারছড়া থেকে ডিবি পরিচয়ে ঢাবি ছাত্র ফরহাদকে তুলে নেয়ার ঘটনায় কালারমারছড়া ইউপি চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফকে জড়িয়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংবাদ প্রচার করার বিষয়টি মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলে জানা যায়। জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে মুলত ঐ ছাত্রকে আটক করে আজকে ছেড়ে দেয়া হয় বলে পুলিশ জানান।

এ বিষয়ে চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ বলেন, আটককৃত ঢাবি ছাত্র ফরহাদকে আমি ব্যক্তিগত ভাবে চিনিনা। ঘটনার দিনই তার ব্যাপারে শুনেছি। তার বাবা আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত এবং ঘটনার পর তারা আমার সাথে দেখা করেছিলো। আমি তাদের পুলিশের সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দিই। কিন্তু এই বিষয়টি নিয়ে আমাকে জড়িয়ে ভুয়া তথ্য ছড়ানো হয়েছে। মুলত আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা এ ঘটনাকে পুঁজি করে সুক্ষ্মভাবে আমার মানহানী করার অপচেষ্টা করেছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক।

এদিকে পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ফরহাদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছিল। পরে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়।

এই বিষয়ে ফরহাদ জানান, তাকে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ছেড়ে দেয়া হয়। কোন প্রকার নির্যাতন করা হয়নি।

এ ঘটনায় চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফকে জড়িয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন অপপ্রচার চালানোয় এলাকায় সাধারণ মানুষের মাঝে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

আবু বক্কর ছিদ্দিক, আবদু সাত্তার সওদাগর, আবদুল গণি মোস্তফা সহ একাধিক এলাকাবাসী জানান, ডিবি পরিচয়ে তুলে নেয়া ছাত্র ফরহাদ, তার পরিবার বা গোষ্ঠীর সাথে চেয়ারম্যানের কোন বিরোধ নেই। তাছাড়া ছেলেটি ঢাকায় পড়াশোনা করেন। কেন চেয়ারম্যানকে জড়িয়ে মিথ্যা তথ্য প্রচার হলো তা বোধগম্য নয়।