মহামারী করোনায় কেমন কাটছে বস্তিবাসীর জীবন;

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ২:২২ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০২০

শেখ মোহাম্মদ মাসুম:

গোটা বিশ্ব কেমন যেন থমকে গেছে, মনে হচ্ছে যেন কোন মেঘের ডাক পুরো বিশ্বকে ফালাফালা করে ফেলেছে। স্তম্ভিত গোটা বিশ্ব। মনে হচ্ছে পেছনেয় মৃত্যু উঁকিদিচ্ছে ক্ষনে ক্ষনে।মনে হচ্ছে এই যেন নিভে গেল জীবন প্রদীপ। করোনার এই করাল থাবা থেকে রেহায় পাইনি বাংলাদেশও।

মধ্যবিত্ত দেশ বাংলাদেশ, যাদের বেশিরভাগই জীবন নির্বাহ করে নিম্নমানের। আবার আর এক শ্রেনী আছে যারা নিজের গতর খাঁটিয়ে জীবন পাড়ি দিচ্ছে। আর এই শ্রেনীর মানুষ হচ্ছে শহরের বস্তিবাসী। তারা এমন এক শ্রেনীর মানুষ যারা শহরে থেকেও সর্বদিক থেকে অবহেলিত ও বঞ্চিত। চিকিৎসা ও শিক্ষা থেকে শুরু করে মৌলিক মানবাধিকার সবকিছুতেই তাদের পিছনে পড়ার গল্পটা আমাদের মানসপটে ভেসে উঠে। কেমন কাটছে বস্তিবাসীর জীবন? তারা কি পালন করছে সরকারের দেয়া সাস্থবিধি।

গাজিপুর জেলার টংগীর মিলগেইট এলাকার বস্তিবাসীর সাথে নিউজ ভিশনের এ প্রতিবেদকের সাক্ষাতকালে জানা গেছে, তারা গাদাগাদি করে বসবাস করছে। সেখানে তাদের নিয়ম পালন তো দুরূহ বিষয়। জীবনযুদ্ধে তারা যেন হার মানছে। জীবন স্থবির হয়ে পড়ছে। সবকিছু নিশ্চল হয়ে গেছে। তাদের দুংখের মাত্রা চরম সীমায় পৌঁছে গেছে। তাদের কাজ করার ইচ্ছা থাকলেও তারা এখন অক্ষম।

বস্তির এক যুবক জনাব আলী জানান, আমাদের জীবন ভালোই চলছিলো কিন্তু এই অবিনাশি মহামারী করোনা আমাদের সবকিছু শেষ করে ফেলেছে। যেখানে কাজ করতাম মনিব কাজ করতে নিষেধ করেছে। আমরা আর পেরে উঠতে পারছিনা, মরন ছাড়া আর অন্য কোন পথ নেই। এই বলে কেঁদে ফেলল আবেদ আলী।

দুঃখ যেন তাদের জীবন সঙ্গী। সত্যিই খুব শোচনীয় ভাবে জীবন কাটাচ্ছে বস্তিবাসী। সেখানে মানছে না কোন নিয়ম তাদের জীবন ঝুকি ক্রমাগত বেড়েয় চলছে। অন্যদিকে তাদের পেটে পরছে না আহার।

এমত অবস্থায় বস্তিবাসীর ব্যাপারে উদ্যেগী হতে সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিদের সনির্বন্ধ অনুরোধ করব। বস্তিবাসীর দিকে সরকার ও সকলের সজাগ দৃষ্টি আকর্ষন করছি। ফলে হয়তো তাদের জীবন প্রদীপ আবারো জেগে উঠতে পারে। এমন টায় প্রত্যাশা গোটা বস্তিবাসীদের।