বিজ্ঞানের ছাত্র জাহেদুল মানবিকে; এ দায় কার?

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ২:৪৭ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৭, ২০১৯

এজি লাভলু, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:

বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র জাহেদুল ইসলাম। নাম নিবন্ধন (রেজিস্ট্রেশন) করেছিল বিজ্ঞানের জন্য। দুই বছর ধরে পড়াশোনার পর এসএসসি পরীক্ষার আগে আগে তার রেজিস্ট্রেশন কার্ড এসেছে মানবিকের। এই ছাত্রকে এখন মানবিক বিভাগ থেকে পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিতে বলছেন শিক্ষকরা! ঘোগাদহ উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের গাফিলতির কারণে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ঘোগাদহ ইউনিয়নের ওই শিক্ষার্থী এই ভোগান্তিতে পড়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জাহেদুল ইসলাম সদর উপজেলার ঘোগাদহ ইউনিয়নের দোবাড়িয়ার ভিটা গ্রামের দিনমজুর নূরল আমিনের ছেলে। সে ওই ইউনিয়নের ঘোগাদহ উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা তার।

২০১৭ সাল থেকে ব্লাড ক্যান্সারের সঙ্গে যুদ্ধ করলেও পড়াশোনা থামায়নি জাহেদুল। তার স্বপ্ন ভবিষ্যতে কম্পিউটার নিয়ে পড়াশোনা করার। সে লক্ষ্যে নবম ও দশম শ্রেণিতে বিজ্ঞান বিষয়ে ক্লাস চালিয়ে এসেছে সে। নির্বাচনি পরীক্ষাও দিয়েছে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে। কিন্তু এবার বিপত্তি ঘটেছে এসএসসির ফরম পূরণ করতে গিয়ে। জাহেদুল জানলো, বিজ্ঞান নয়, তাকে পরীক্ষা দিতে হবে মানবিক বিভাগ থেকে।

জাহেদুলের ভাষ্য, ‘আমি দুই বছর বিজ্ঞান বিভাগের ক্লাস করেছি। আমার প্রস্তুতি বিজ্ঞান নিয়ে। এখন স্কুলের শিক্ষকরা বলছেন, আমাকে মানবিক থেকে পরীক্ষা দিতে হবে! কিন্তু আমার পক্ষে সেটা অসম্ভব। আমি তিন বছর ধরে শরীরে ক্যান্সার নিয়ে চলছি। মাত্র দুই মাসে আমি কীভাবে মানবিকের সিলেবাস কাভার করবো। এটা আমার পক্ষে অসম্ভব। আমি বিজ্ঞান বিভাগ থেকেই পরীক্ষা দিতে চাই।’

ভবিষ্যতে কম্পিউটার বিষয়ে পড়াশোনা করতে চায় জানিয়ে জাহেদুল বলে, ‘আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন, যেন আমি ক্যান্সার জয় করে স্বপ্ন পূরণ করতে পারি।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা চালিয়ে ফান্ড জোগাড় করে তার চিকিৎসার খরচ চালানো হচ্ছে। ২০১৮ সালে তাকে ভারতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। কিন্তু ছেলেটার খুব পড়াশোনার ইচ্ছা। দুই বছর ধরে বিজ্ঞান বিষয়ে প্রস্তুতি নিলেও স্কুল কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে তাকে মানবিক বিভাগ থেকে পরীক্ষা দিতে হবে। এ দায় স্কুল কর্তৃপক্ষ এড়াতে পারে না। আমরা চাই, বোর্ড ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে এর সঠিক ও বাস্তবসম্মত সমাধান দেবে; যাতে জাহেদুল বিজ্ঞান বিভাগ থেকেই পরীক্ষা দিতে পারে।’

জাহেদুল ইসলামের রেজিস্ট্রেশন ভুল হওয়ার কথা স্বীকার করে ঘোগাদহ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম মন্ডল দাবি করেন, ‘বোর্ড কিংবা কম্পিউটারে ভুল এন্ট্রি দেওয়ার কারণে জাহেদুলের রেজিস্ট্রেশন মানবিক বিভাগে হয়েছে। আমি ব্যাক্তিগতভাবে বোর্ডের সঙ্গে যোগাযোগ করে ওই শিক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন সংশোধনের চেষ্টা শুরু করেছি। দেখা যাক, কি করা যায়।’