বাবা আমার জীবনে আদর্শ শিক্ষক,আশীর্বাদ স্বরুপ – জুবায়েদ মোস্তফা

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ৭:৫৩ অপরাহ্ণ, জুন ২১, ২০২০

———-
আজ বিশ্ব বাবা দিবস।আমার কাছে জীবনের প্রতিটি মুহূর্তই বাবা দিবস।বাবাকে অনুভব করতে,ভালবাসতে নির্দিষ্ট দিবসের প্রয়োজন নেয়।প্রত্যেকটি বাবা তাঁর সন্তানের জন্য বট বৃক্ষের ছাঁয়ার ন্যায়।
প্রত্যেকটি বাবা তাঁর সন্তানের জন্য আশীর্বাদ স্বরুপ।
সন্তানের মঙ্গলের জন্য মাথার ঘাম পায়ে ফেলে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত নিরলস পরিশ্রম করে যায়।বাবার ভালবাসা নিঃস্বার্থ ভালবাসা।কখনো মুখে বলতে হয় না সন্তানকে ভালবাসে।বাবার প্রত্যেকটি কর্মকান্ডই ভাবিয়ে তুলে কতোটা উদার হৃদয়ে ভালবাসে।নিজে দু মুঠো আহার ভাল করে মুখে দেয় না।সন্তানের আত্মতৃপ্তির জন্য বার বার ভাবে।নিজে ভাল কিছু পরিধান না করে সন্তানের চিন্তা করে।সন্তানের জন্য বাবার কপালে সর্বদা লক্ষ্য করা যায় চিন্তার ভাঁজ।
এতকিছু করার পর অজস্র বাবাকে কাটাতে হয় বৃদ্ধাশ্রমে।কোথায় আজ আমাদের বিবেক,কোথায় মানবিকতা?
আমরা শিক্ষিত হতে পেরেছি ঠিকই সঠিক শিক্ষা কি অর্জন করতে পেরেছি?
আমাদের মধ্যে কি মনুষ্যত্ব বোধ জাগ্রত হয়েছে?

আজকের এই দিনে পৃথিবীর সকল বাবার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।ভাল থাকুক পৃথিবীর সকল বাবারা।

তবে আজকের এই দিনটা উৎসর্গ করব, তাঁকে নিয়ে লিখলে হইতো সম্পূর্ণ রজনীতেও শেষ হবে না।ফুড়িয়ে আসবে কলমের কালি, লিখটা হইত অসমাপ্ত থেকে যাবে। তাই সংক্ষেপেই লিখব।আর হ্যাঁ যাকে নিয়ে তিনি আর কেউ নন তিনি আমার জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষক, আমার আইডল, আমার মতো হাজারো ছাত্রের নয়ণ মণি এবংআমার জীবনে জীবন্ত কিংবদন্তি হয়ে আছেন, তিনি হলেন আমার জন্মদাতা পিতা শ্রদ্ধেয় লোকমান হেকিম মাস্টার। ওনার কাছ থেকে আমার নম্রতা, ভদ্রতা, বিচক্ষণতা, আদব -কায়দা, আচার ব্যবহার চাল -চলন সমস্ত কিছুর হাতে খড়ি।ওনার শিক্ষাটাই আমার জীবনের সবচেয়ে বড় পাওয়া।জীবনের প্রতিটি ধাপেই ওনার শিক্ষার প্রতিফলন পায়।ওনার শিক্ষাটা এতটাই শক্তিশালী যে, জীবনে যত বড় সমস্যার সম্মুখীন হয় না কেন, ওনার আদর্শের ওপর ভর করে সামনে এগিয়ে যেতে ন্যূনতম দ্বিধা বোধ করি না।ওনী শুধু আমার বাবা নন ওনী একজন জাতি গঠনের কারিগর।সততা আর কর্মনিষ্ঠতার ওপর ভর করে তিনি সব সময় ছিলেন অপ্রতিরোধ্য। ওনীর ওনার মত করে সব সময় এগিয়ে গেছেন, ওনী ভাল করেই জানেন ভয় কে কি করে জয় করতে হয়।ওনী ওনার শিক্ষকতা জীবনের ঊষালগ্ন থেকে নিরলসভাবে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন ছাত্রদের পিছনে। সুশিক্ষিত জাতি গঠনে যার কোন জুড়ি নাই।ওনার লক্ষ্য একটাই শিক্ষিত জাতি গঠন করা।ওনী চিরকালই পরিশ্রমী মেধাবী এবং শ্রমবান্ধব।ওনী আমার মত হাজারো জুবায়েদ গঠনের স্থপতি।স্কুলে ঝড় তুফান যায় হোক আর কেউ ক্লাসে না যাক ওনী ঠিকই ক্লাসে উপস্থিত হয়ে জাতি গঠনের মহা ব্রতীতে নিজেকে আত্মনিয়োগ করেন।দুর্দিনে ক্লাশ করার মতো হাজারো বিরল রেকর্ড ওনার আছে।ওনার শিক্ষার একটা বড় গুণ শিক্ষার্থীদের আপন করে পিতৃ স্নেহে শিক্ষাদান।যা শিশুদের শিক্ষা লাভ এবং সুষ্ঠু বিকাশে অনেকটাই কার্যকরী।পরিশেষে বলতে চায় এই মহান পেশায় যেন সারাজীবন উৎসর্গ করতে পারেন এই কামনা করবেন।
বাবার দীর্ঘায়ু এবং সুস্বাস্থ্য কামনা করছি।যুগ যুগ ধরে মাথার ওপর ছাঁয়া হয়ে থাকুক।

———
লেখকঃ জুবায়েদ মোস্তফা
শিক্ষার্থী,লোকপ্রশাসন বিভাগ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।