বরগুনায় ডোবা থেকে যুবলীগ নেতার মরদেহ উদ্ধার

নিউজ নিউজ

ভিশন ৭১

প্রকাশিত: ৬:৩৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনার বামনা উপজেলার সোনাখালি গ্রামের একটি ডোবা থেকে সদর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রিপন হাওলাদার (৩৮) নামের এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আজ সোমবার সকাল ৭টার সময় তার নিজ বাসভবনের পিছনের একটি ডোবা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত রিপন হাওলাদার সোনাখালী গ্রামের রশিদ হাওলাদারের ছেলে। তিনি সদর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

নিহত রিপনের পরিবারের দাবি তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে ডোবার ভেতর পুতে রাখা হয়েছিলো।

নিহতের মা রিজিয়া বেগম জানায়, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে তার ছেলেকে প্রতিপক্ষরা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে বাড়ীর পিছনে একটি ডোবায় পুতে রাখে।

তিনি আরও জানান, তার ছেলে ইজিবাইক চালক। রবিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে বাড়ীর সম্মুখে সড়কের পাশে তার ইজিবাইকটির ব্যাটারি চার্জ দিতে আসে। পরে সে আর ঘরে ফেরেনি। এরপর থেকে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে বাড়ির পিছনে একটি বাগানের মধ্যে ডোবার পানিতে ছেলের পায়ের জুতা ভাসতে দেখতে পান তিনি। পরে একটি লাঠি দিয়ে ওই ডোবার ভিতর খুজলে তার লাশ ভেসে উঠে। পরিবারের অন্য সদস্যদেরা সেখানে গিয়ে তার লাশ দেখতে পায়। পরে তারা পুলিশকে বিষয়টি জানায়।

পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্য থানায় নিয়ে আসে।

নিহত রিপনের ছোট ভাই সেলিম জানান, তার চাচা চাঁন মিয়া হাওলাদার, আঃ সহিদ হাওলাদার ও সৎ-ভাই ইলিয়াস হাওলাদারের সাথে তাদের জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। এ ঘটনায় সৎভাই ও চাচাদের আসামী করে একটি মামলা চলমান। এই মামলায় সৎ-ভাই ইলিয়াস হাওলাদার (৪২) গত রবিবার সে জামিনে মুক্তি পেয়ে তাদেরকে প্রাণনাশের হুমকি দেন।

এ ঘটনায় বামনা থানার অফিসার ইন চার্জ মোঃ মাসুদুজ্জামান বলেন, পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি ডোবা থেকে উদ্ধার করে। লাশের ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা কোর্টে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করে পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।